BSS-BNhrch_cat_news-24-5
বাসস
  ০৩ জুলাই ২০২২, ১৬:৪৯
আপডেট  : ০৩ জুলাই ২০২২, ১৬:৫৭

বাংলাদেশ এখন মেধা রপ্তানিরও দেশ : টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী

ঢাকা, ৩ জুলাই, ২০২২ (বাসস) : ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেছেন, বাংলাদেশ কেবল তৈরি পোষাক রপ্তানিকারক দেশই নয়, মেধা রপ্তানিরও দেশ হয়েছে। 
তিনি বলেন, অতীতের তিনটি শিল্প বিপ্লব মিস করে প্রযুক্তিতে শত-শত বছরের পশ্চাদপদতা অতিক্রম করে বাংলাদেশ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের নেতৃত্বের জায়গায় উপনীত হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচির ধারাবাহিকতায় ডিজিটাল প্রযুক্তিতে  বৈপ্লবিক পরিবর্তনের অভিযাত্রা আজ বিশ্বের বিস্ময়।
মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন বিলিয়ন ডলারের সফটওয়্যার রপ্তানি করছে। রপ্তানিকরা সফটওয়্যারের শতকরা ৩৪ ভাগ আমেরিকার বাজারে যাচ্ছে। আমরা মোবাইল ফোন, কম্পিউটার ল্যাপটপ এমনকী আইওটি ডিভাইসও রপ্তানি করছি।’
মোস্তাফা জব্বার শনিবার রাতে রাজধানীর একটি হোটেলে চীনা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে আয়োজিত সীডস ফর দ্য ফিউচার ২০২২ প্রতিযোগিতার গালা ইভেন্টে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষের জীবনধারার সাথে ডিজিটাল প্রযুক্তি ওৎপ্রোতভাবে জড়িয়ে গেছে। সাম্প্রতিক বন্যায় দুর্বিষহ দুর্ভোগের মাঝেও বন্যার্ত মানুষ খাদ্যের সাথে ডিজিটাল সংযুক্তিও প্রত্যাশা করেছে। 
তিনি এ বিষয়ে বেশ কিছু দৃষ্টান্ত তুলে ধরে বলেন, ‘তারা খাবার নয়, তারা মোবাইল নেটওয়ার্ক সচল চায়, ইন্টারনেট চায়। তারা মনে করে নেটওয়ার্ক সচল থাকলে তারা প্রশাসনসহ আপনজনদের সাথে সংযুক্ত থাকতে পারবে, তাদের দুর্ভোগ লাগব হবে। 
এটাই হচ্ছে আজকের বাংলাদেশের বাস্তবতা এ কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন. পৃথিবীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর দেশ বাংলাদেশকে প্রথম ডিজিটাল দেশ হিসেবে ঘোষণা করেছেন। পরবর্তীতে ২০০৯ সালে ইংল্যান্ড, ২০১৪ সালে ভারত এবং ২০১৯সালে পাকিস্তন তাদের দেশকে ডিজিটাল দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দিয়েছে। 
বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তাফা জব্বার বলেন, হাজার বছরের পরাধীন জাতিকে পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর জন্য বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেছেন। 
তিনি আরো বলেন, কিসিঞ্জারের তলাবিহীন ঝুড়ির অবজ্ঞাখ্যাত বাংলাদেশ আজ সাড়ে ৬ লাখ কোটি টাকার জাতীয় বাজেটের দেশ। এই বাংলাদেশ আজ নিজের টাকায় পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্তম সেতু ‘পদ্মা সেতু’ নির্মাণ করেছে। এই সেতু নির্মাণে প্রযুক্তিগত সহযোগিতার জন্য তিনি সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান।
মন্ত্রী বলেন, হুয়াওয়ে প্রতিভা অন্বেষণে যে ভূমিকা রাখছে, তা দেশের তরুণ সমাজকে অনুপ্রাণিত করবে। 
তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, প্রযুক্তিতে শিক্ষা অর্জন করতে না পারলে সামনের দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা কঠিন হবে। 
ডিজিটাল যুগের যোগ্য মানুষ গড়তে শিক্ষার্থাীদের প্রযুক্তির সাথে সম্পৃক্ত করার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে মন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থী এবং ইন্ডাস্ট্রির মধ্যে বিদ্যমান গ্যাপ কমাতে হবে। 
তিনি প্রতিযোগিতার বিচারকদের রায়ের ভিত্তিতে প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকারি ওয়াসিফার নাম ঘোষণা করেন এবং মোট নয়জন বিজয়ীর মাঝে নিজের হাতে পুরস্কার বিতরণ করেন। 
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশে ইউনেস্কোর কান্ট্রি ডাইরেক্টর বেট্রিস কালড্রাম, ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির ভিসি ড. মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশে চীনা দূতাবাসের কালচারেল কাউন্সিলর ইউই লিউয়েন এবং হুয়াওয়ে টেকনোলজি লিমিটেডের বোর্ড মেম্বার লি জুনসেং বক্তৃতা করেন।

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন