BSS-BNhrch_cat_news-24-5
বাসস
  ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৫৫
আপডেট  : ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:৩৬

সাগরে ঘুর্ণিঝড় ‘গুলাব’ : সমুদ্রবন্দর সমূহে দু’নম্বর দূরবর্তী সংকেত

ঢাকা, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ (বাসস) : বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত  ঘুর্ণিঝড় ‘গুলাব’ বাংলাদেশের উপকূলের সাড়ে ৫ শ’ থেকে ৬শ’ কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থান করছে। এটি আরও পশ্চিম দিকে আগ্রসর হয়ে ভারতের উড়িষ্যার উপকূলের দিকে ধাবিত হচ্ছে। 
চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর সমূহকে দু’নম্বর দূরবর্তী হুশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। 
আবহাওয়াবিদ খন্দকার হাফিজুর রহমান বাসসকে জানান, এটি বাংলাদেশের উপকূলে তেমন প্রভাব অথবা আঘাত আনার সম্ভাবনা নেই।
তিনি জানান, পূর্ব মধ্য বঙ্গোপসাগর ও এর কাছাকাছি উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত গভীর নি¤œচাপটি আরও পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘনীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাবে’ পরিণত হয়েছে। বর্তমানে এটি উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও এর আশপাশের পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করছে। এটি আরও পশ্চিম অথবা উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে ।
তিনি আরও জানান, এর প্রভাবে উপকূলে দমকা হাওয়াসহ চট্টগ্রাম, বরিশাল ও খুলনা বিভাগের কোথাও কোথাও বৃষ্টি হতে পারে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে।
আবহাওয়ার সতর্ক বার্তায় বলা হয়, উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও আশপাশের পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘গুলাব’ আরও পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে আজ সকালে একই এলাকায় অবস্থান করছিল এবং এটি চট্টগ্রম সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫২৫ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং পায়রা সমুদ্ব বন্দর থেকে ৫৩০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল। এটি আরও পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।
ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ৬২ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে।
উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলার সমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। সেই সাথে তাদেরকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে।
আজ সকাল থেকে পরবর্তী ২৪ ঘন্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ঢাকা, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারী ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারী ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।
পরবর্তী তিন দিনে বৃষ্টিপাতের প্রবনতা বাড়তে পারে।
আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় ঢাকাতে সর্বোচ্চ ৫৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া গোপালগঞ্জে ৪৫, টাঙ্গাইল ১০ ও মংলায় ৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। 
এছাড়া সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। 
শনিবার ময়মনসিংহে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ টাঙ্গাইলে সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ২৪ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। ঢাকায় গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৫ দশমিক শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াস।  ঢাকায় আজ সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ২৫ দশমিক শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়।
পূর্বাভাসে আরও বলা হয়, মৌসুমী বায়ূ অক্ষের বাড়তি অংশ রাজস্থান, মধ্য প্রদেশ, উড়িষ্যা, ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রস্থল ও বাংলাদেশ হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমী বায়ূ বাংলাদেশের উপর কম সক্রিয় এবং উত্তর বাঙ্গোপসাগরে মাঝারী অবস্থায় বিরাজ করছে।
আজ সকালে ঢাকায় দক্ষিণ-পূর্ব  অথবা পূর্ব দিক থেকে  ঘন্টায় ১০ থেকে ১৫ কিলোমিটার বেগে বাতাস প্রবাহিত হচ্ছে, যা অস্থায়ীভাবে দমকায় ২৫ থেকে ৩৫ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে। সকালে ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৯৮ শতাংশ।
আজ ঢাকায় সূর্যাস্ত সন্ধ্যা ৫ টা ৫০ মিনিটে এবং আগামিকাল সূর্যোদয় হবে ভোর ৫ টা ৪৯ মিনিটে।
 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন