বাসস
  ০৪ জুলাই ২০২৩, ২১:৫৯
আপডেট  : ০৪ জুলাই ২০২৩, ২২:২১

মার্কিন নীতিতে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসবাদকে বিবেচনায় নিতে জো বাইডেনের প্রতি ১৭ বাংলাদেশ-আমেরিকান নাগরিকের আহবান

ঢাকা, ৪ জুলাই, ২০২৩ (বাসস) : বাংলাদেশে বিএনপি-জামায়াত জোট এবং তাদের সরাসরি পৃষ্ঠপোষকতায় অন্যান্য সন্ত্রাসী সংগঠনের মাধ্যমে সংঘটিত ব্যাপক সন্ত্রাসবাদের বিষয়টিকে মার্কিন নীতিতে বিবেচনায় নেওয়ার আহবান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংগঠনের বাংলাদেশ-আমেরিকান  নেতারা। তারা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে বাংলাদেশের বিষয়ে সে দেশের নীতি সম্পর্কে সম্প্রতি দেওয়া এক যুক্ত বিবৃতিতে এ আহবান জানান।
বিবৃতিতে তারা বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ায় সন্ত্রাসী কর্মকান্ড মোকাবেলায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কৌশলকে জোরালোভাবে সমর্থন করেন।  তারা বলেন, ‘বাংলাদেশে আসন্ন নির্বাচন নিয়ে আমরা আপনার প্রশাসনের উদ্বেগের প্রশংসা করলেও, মার্কিন নীতিতে অবশ্যই বাংলাদেশে ব্যাপক সন্ত্রাসবাদের ঘটনা বিবেচনা করতে হবে, যা সরাসরি বিএনপি-জামায়াত জোট এবং জোটের পৃষ্ঠপোষকতায় অন্যান্য সন্ত্রাসী সংগঠন দ্বারা সংঘটিত হয়েছে।’ তারা বলেন, ‘মুসলিম দেশ ও অঞ্চলের ঐতিহাসিক ও সামাজিক-রাজনৈতিক মাত্রা বিবেচনা না করে, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে মার্কিন পররাষ্ট্রনীতির বারবার ব্যর্থতার বিষয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। আফগানিস্তান, ইরাক, সিরিয়া এবং লিবিয়া আমেরিকার পররাষ্ট্র নীতির ব্যর্থতার উজ্জ্বল উদাহরণ। আমরা বাংলাদেশে তা চাই না। অনুগ্রহ করে আমাদের বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচনের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করার অনুমতি দিন।’ তারা বলেন, বাংলাদেশে ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১ এবং ২০০৮  সালে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত এবং ভাল অংশগ্রহণমূলক ৪টি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থা থেকে দেখা যাচ্ছে যে, শুধুমাত্র অবাধ নির্বাচন অনুষ্ঠানই উদার গণতান্ত্রিক ফলাফলের নিশ্চয়তা দেয় না। বিশেষ করে, ২০০১ এবং ২০০৮ সালের দুটি অবাধ নির্বাচনের মধ্যে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় সন্ত্রাসী ঘটনাগুলি ইঙ্গিত করে যে, ২০০৪  সালে একটি অবাধ (এবং তথাকথিত সুষ্ঠু) নির্বাচন প্রকৃতপক্ষে বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থাকে পরিবর্তন করবে না,  যদি না স্টেকহোল্ডারদের  নিরাপত্তা, নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দিয়ে একটি টেকসই সমাধান খুঁজে পাওয়া এবং সংখ্যালঘু এবং রাজনৈতিক ভিন্নমতাবলম্বীদের নির্বাচন-পরবর্তী রাজনৈতিক অংশগ্রহণের নিশ্চয়তা না দেয়া যায়।
বিবৃতিতে তারা বলেন, ২০০১  সালের অক্টোবরে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অবাধ নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বাধীন চারদলীয় ইসলামী জোট জয়লাভ করে। বিজয়ের পরপরই, ওই জোট বাংলাদেশের ১১ টি পশ্চিমাঞ্চলীয় জেলা জুড়ে হিন্দু এবং আওয়ামী লীগ সমর্থকদের বিরুদ্ধে নৃশংস আক্রমণ চালায়। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে ভোট দেওয়ার কারণে হিন্দু ও বিরোধী কর্মীদের টার্গেট করা হয়েছিল। সহিংসতার ফলে ব্যাপক লুটপাট এবং বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া, হিন্দু নারীদের ধর্ষণ এবং হিন্দুদের উচ্ছেদ করা হয়। এটি ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াতের শাসনামলে চলতে থাকে, কিছু ক্ষেত্রে জোট নেতাদের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকতায় অব্যাহত থাকে।’ বিবৃতিতে ধর্মীয় সংখ্যালঘু হিন্দুদের বিরুদ্ধে ঘন ঘন সহিংসতা ছাড়াও, নিচে  শুধুমাত্র বিএনপি-জামায়াত জোট নেতাদের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকতায় সন্ত্রাসী নেটওয়ার্কের মাধ্যমে চালানো সহিংসতার কয়েকটি বড় উদাহরণ দেওয়া হয়েছে। ২০০১-২০০৬ সালে বিএনপি-জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতায় বড় ধরনের সহিংসতার ঘটনাগুলো হলো, ২০০৪ সালের ২৪  মে বাংলাদেশের হরকাত-উল-জিহাদ আল-ইসলামী ওরফে হুজি তৎকালীন ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপর ব্যাপক গ্রেনেড হামলা চালায়। এই হামলায় তিনজন নিহত এবং হাইকমিশনারসহ ৫০ জন আহত হয়। এই হামলার মামলার রায়ে মুফতি হান্নান এবং অন্য দুজনকে ২০০৮ সালের ২৩শে ডিসেম্বর মৃত্যুদন্ড দেওয়া হয়।
২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট  গ্রেনেড হামলায় বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে খারাপ সন্ত্রাসী ঘটনা হুজি দ্বারা সংঘটিত হয়। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশে বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী মারাত্মকভাবে আহত হন এবং  ২৪ জন নিহত হন। নৃশংস এই গ্রেনেড হামলায় ৫ শতাধিক লোক মারাত্মকভাবে আহত হন, যাদের মধ্যে এখনও অনেকে সারাজীবনের জন্য পঙ্গুত্ব বরণ করে অসহায় জীবন যাপন করছে। বিএনপি-জামায়াত জোট শুধু ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হয়নি, বরং একজন দরিদ্র জজ মিয়া এবং একজন আওয়ামী লীগ কর্মী শৈবাল সাহা পার্থকে মিথ্যাভাবে জড়িয়ে একটি নাটক মঞ্চস্থ করেছে। জঘন্য অপরাধের কথা স্বীকার করার জন্য দুজনকেই নির্যাতন করা হয়েছিল যে বিষয় সম্পর্কে তাদের কোন ধারণা ছিল না। পরবর্তীতে তত্ত্বাবধায়ক ও আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে, হুজি নেতা মুফতি আবদুল হান্নান হামলার নেপথ্যের কথা স্বীকার করেন এবং বিএনপির বর্তমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া, তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, তৎকালীন উপ-মন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু,  ষড়যন্ত্রকারী হিসেবে প্রমাণিত। ২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর মুফতি হান্নানের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির ভিত্তিতে হান্নান, তারেক জিয়া, বাবর, পিন্টু এবং অন্যদের সঙ্গে মুফতি হান্নান, বাবর এবং ১৭  জনের মৃত্যুদন্ড এবং তারেকসহ ১৮ জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেওয়া হয়েছিল।
২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট জামাত-উল-মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমজেবি) ৬৪টি জেলা জুড়ে একযোগে ৪৫৯টি বোমা বিস্ফোরণ করে ব্যাপক বোমা হামলা চালায়, এতে দুইজন নিহত এবং প্রায় ১০০  জন আহত হয়। হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন জেএমজেবির প্রধান শায়খ আব্দুর রহমান এবং  বাংলা ভাই নামে পরিচিত সিদ্দিকুল ইসলাম। বাংলা ভাই কলেজে পড়ার সময়ে ইসলামী ছাত্রশিবির (জামায়াতে ইসলামীর ছাত্র সংগঠন) নেতা ছিলেন। ক্ষমতাসীন বিএনপি-জামায়াত জোটের শীর্ষ নেতাদের পৃষ্ঠপোষকতায় জেএমজেবি এবং হুজি প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তি ও সাংস্কৃতিক কর্মীদের বিরুদ্ধে অসংখ্য হামলা চালিয়েছে। ২০০৭ সালের  ২১  জুন  ডেইলি স্টারের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে “তারেক রহমান এবং বেশ কয়েকজন বিএনপির সাবেক মন্ত্রী (ব্যারিস্টার আমিনুল হক, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, নাদিম মোস্তফা, বিএনপির সকল এমপি) সরাসরি জেএমবির জঘন্য কর্মকান্ডের পৃষ্ঠপোষকতা করেছিলেন। জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ রাজশাহীতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার পূর্ণ সমর্থন নিয়ে এই নৃশংসতা চালিয়েছিল। ২০০৭ সালের ৩০ মার্চ আবদুর রহমান ও সিদ্দিকুল ইসলাম বাংলা ভাইয়ের ফাঁসি কার্যকর করা হয়।
২০০৪ সালের ২৪  ডিসেম্বর  রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইউনূস জামায়াত-শিবির ক্যাডারদের বেশ কয়েকটি হামলায় বেঁচে গিয়েও শেষ পর্যন্ত জোট সরকারের একই গ্রুপের নৃশংস হামলার শিকার হন। এই হামলাগুলো ২০০১ সালের অবাধ নির্বাচনকালে গণতান্ত্রিক ফলাফল নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হয়েছিল। এখন, সন্ত্রাসী ঘটনা ও অন্যান্য অভিযোগে সাজাপ্রাপ্ত তারেক জিয়া বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। আমাদের উদ্বেগ হলো, তারেক জিয়া ও অন্য আসামিরা কোনোভাবে পেছনের দরজা দিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হলে কোন ধরনের গণতন্ত্র নিরাপদ হবে? এতদিন রাজনৈতিক কার্যালয়ের বাইরে থাকার পরও বিএনপি-জামায়াত জোট তাদের সহিংস পথ ছেড়েছে বলে মনে হয় না। ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারিতে জামায়াত-ই-ইসলামী নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে যুদ্ধাপরাধের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করার পর, জামায়াত-শিবিরের ক্যাডাররা দেশব্যাপী সহিংসতা চালায়,  যার ফলে শত শত মানুষ নিহত হয়। এই সহিংসতার কারণে দেশের ইতিহাসে বিএনপি-জামায়াত সমর্থকদের হাতে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তার মৃত্যু হয়েছে। আবার, ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসে, বিএনপি-জামায়াত বেসামরিক লক্ষ্যবস্তুতে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে সরকারকে অস্থিতিশীল করার জন্য একটি ব্যাপক সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালায়। বোমা হামলায় ৬০ জনেরও বেশি প্রাণ হারিয়েছিল এবং শতাধিক আহত হয়েছিল। ২০১৫ সালের ২৫ জানুয়ারী অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের একটি প্রতিবেদনে বিএনপি-নেতৃত্বাধীন কার্যক্রমের কঠোর সমালোচনা করে বলেছিল যে “...যেভাবে বিএনপি নেতৃত্বাধীন বিক্ষোভগুলি পরিচালিত হচ্ছে তা স্পষ্টতই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা সহিংসতার পুনরাবৃত্তির প্যাটার্ন। "
১৯৭১ সালের বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের ভুল নীতি অনুসরণ সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট-বাংলাদেশ সম্পর্কের ৫০ বছরে উল্লেখযোগ্যভাবে উন্নতি হয়েছে। আমরা পারস্পরিক অর্থনৈতিক স্বার্থ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে দুই দেশের মধ্যে শক্তিশালী সম্পর্ক প্রত্যাশা করি।
বিবৃতিতে তারা আরো বলেন, সম্প্রতি আমরা আপনার প্রশাসনের কিছু পদক্ষেপ এবং কিছু আইন প্রণেতাদের বক্তব্য বাংলাদেশ বিরোধী বক্তব্যের মতো লক্ষ্য করছি এবং এই পদক্ষেপগুলি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। আমরা এসব ঘটনা নিয়ে  উদ্বিগ্ন এবং বিনীতভাবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটকে প্রতিফলিত করে এমন পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য অনুরোধ করছি, যা বাংলাদেশকে সহিংসতামুক্ত একটি ধর্মনিরপেক্ষ ও গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবে।
তারা বলেন, বাংলাদেশের রাজনৈতিক ক্ষেত্র দুটি বিরোধী শক্তিতে সম্পৃক্ত, একটি বাংলাদেশের ধর্মনিরপেক্ষ উদার আদর্শের সঙ্গে এবং অন্যটি রাজনৈতিক জঙ্গিবাদের সঙ্গে মিশ্রিত ধর্মীয় উগ্রবাদে। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথমটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন এবং অপরটির নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিএনপি-জামায়াত অক্ষ। সাম্প্রতিক মার্কিন নীতি এবং বক্তৃতা শুধুমাত্র সন্ত্রাসবাদীদের অনুপ্রাণিত করছে এবং উদারপন্থী শক্তিকে মারাত্মকভাবে বিভ্রান্ত করছে। তারা বাংলাদেশের জন্য সহিংসতামুক্ত ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে বর্তমান কর্মপন্থা পরিবর্তন করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতি অনুরোধ জানান।
বিবৃতিতে স্বাক্ষরকারীরা হলেন নির্বাচিত বাংলাদেশী-আমেরিকান কর্মকর্তা কাউন্সিলম্যান ড. নুরুন নবী, এনজে মেয়র মাহাবুবুল আলম তৈয়ূব, রাজ্য প্রতিনিধি আবুল খান, কাউন্সিলম্যান আবু আহমেদ মুসা এবং কাউন্সিলম্যান নুরুল হাসান,  সম্প্রীতি ফোরামের  অধ্যাপক এবিএম নাসির, ইউএসএ বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রকৌশলী রানা হাসান মাহমুদ ও প্রকৌশলী স্বীকৃতি বড়–য়া, বাংলাদেশ লিবারেশন ওয়ার ভেটেরান্স ১৯৭১ ও ইউএসএ ইনকর্পোরেটেড গোলাম মোস্তফা খান মিরাজ,  ক্যালিফোর্নিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের নজরুল আলম, যুক্তরাষ্ট্র ঘাতক  দালাল  নির্মূল কমিটির ফাহিম রেজা নূর, মিশিগান বঙ্গবন্ধু পরিষদের ইঞ্জি. আহাদ আহমেদ, ইউএসএ কমিটি ফর ডেমোক্রেটিক অ্যান্ড সেক্যুলার বাংলাদেশ’র জাকারিয়া চৌধুরী, জর্জিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের মাহাবুবুর রহমান ভূঁইয়া, যুক্তরাষ্ট্রের বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের খুরশীদ আনোয়ার বাবলু, গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসি বঙ্গবন্ধু পরিষদের দস্তগীর  জাহাঙ্গীর, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ড. আব্দুল বাতেন, ম্যাসাচুসেটস বঙ্গবন্ধু পরিষদের সফেদা বসু, গণতান্ত্রিক নেতা মোরশেদ আলম,  পেনসিলভানিয়া বঙ্গবন্ধু পরিষদের আবু তাহের বীর প্রতীক, একাডেমিক গ্রুপের প্রফেসর জিয়াউদ্দিন আহমেদ, প্রফেসর মিজান আর মিয়া, প্রফেসর জামিল তালুকদার, প্রফেসর শাহাদাত হোসেন এবং দক্ষিণ নিউ জার্সি বঙ্গবন্ধু পরিষদের নূরন্নবী চৌধুরী ।

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়