BSS-BNhrch_cat_news-24-5
বাসস
  ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ২০:৪৯

অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে গৃহিত পদক্ষেপ জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট

ঢাকা, ৬ ডিসেম্বর, ২০২১ (বাসস) : পানামা ও প্যারাডাইস পেপার্সে নাম আসা অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে; তা জানাতে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট বিভাগ।
আগামী ৯ জানুয়ারির মধ্যে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) ও সিআইডিকে তা জানাতে বলা হয়েছে।
বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হক সমন্বয়ে গঠিত একটি হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ আজ এই আদেশ দেন।
আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন এডভোকেট খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি এটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক শুনানি করেন। তিনি বাসসকে আদালতের আদেশের বিষয়টি জানান।
তিনি বলেন, দুদক পানামা ও প্যারাডাইস পেপার্সে নাম আসা অর্থপাচারের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের তালিকা পৃথক দুটি প্রতিবেদনে গতকাল ৫ ডিসেম্বর হাইকোর্ট বিভাগে দাখিল করা হয়।
প্যারাডাইস পেপার্সে নাম আসা দুদকের তালিকায় থাকা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান: ১. আব্দুল আউয়াল মিন্টু, মাল্টিমোড লি., অ্যাংকর টাওয়ার, ১০৮ বীর উত্তম সি আর দত্ত রোড, ঢাকা।
২. নাসরিন ফাতেমা আউয়াল, মাল্টিমোড লি., অ্যাংকর টাওয়ার, ১০৮ বীর উত্তম সি আর দত্ত রোড, ঢাকা। ৩. তাবিথ আউয়াল, মাল্টিমোড লি., অ্যাংকর টাওয়ার, ১০৮ বীর উত্তম সি আর দত্ত রোড, ঢাকা। ৪. তাফসির আউয়াল, মাল্টিমোড লি., অ্যাংকর টাওয়ার, ১০৮ বীর উত্তম সি আর দত্ত রোড, ঢাকা। ৫. তাজওয়ার মো. আউয়াল, মাল্টিমোড লি, অ্যাংকর টাওয়ার, ১০৮ বীর উত্তম সি আর দত্ত রোড, ঢাকা। ৬. মোগল ফরিদা ওয়াই, ৮০-৭২, তাইরন পিআই, জ্যামাইকা, নিউইয়র্ক, ইউএসএ। ৬. শহিদ উল্লাহ, ২৩৫, স্যাডল রজি পেলস, দ্য উড ল্যান্ডস, টেক্সাস, ইউএসএ। ৭. চৌধুরী ফয়সাল, বাড়ি- ২৩, রোড- ২৩, ব্লক-বি, বনানী, ঢাকা। ৮. আহমাদ সামির, অ্যাপার্টমেন্ট- ৪বি, ১৫ ইউনাইটেড নেশানস রোড, বারিধারা, ঢাকা। ১০.  ব্রামার অ্যান্ড পার্টনার্স অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট বাংলাদেশ লি., ৫০ মহাখালী বা/এ, ঢাকা। ১১. মুসা বিন শমসের, ভেনাস ওভারসিজ কোং, হোল্ডিং ব্লক-আই, বনানী, ঢাকা। ১২. ফজলে এলাহী, ডাইনামিক এনার্জি, হোল্ডিং বাড়ি- ৪২৪, রোড- ০৭, বারিধারা ডিওএইচএস, ঢাকা। ১৩. কেএইচ আসাদুল ইসলাম, ইন্ট্রিপিড গ্রুপ, ধানমন্ডি, ঢাকা। ১৪. জুলফিকার আহমেদ, খালেদা শিপিং কোম্পানি, বাড়ি -১৩২, রোড- ০৫, ধানমন্ডি আ/এ, ঢাকা। ১৫.  তাজুল ইসলাম তাজুল, জেমিকো ট্রেড ইন্টা. চাষাড়া, নারায়ণগঞ্জ। ১৬. মোহাম্মদ মালেক, বেঙ্গল শিপিং লাইনস, ১০১ আগ্রাবাদ, চট্টগ্রাম। ১৮.  ইমরান রহমান, ওসান আইস শিপিং কোম্পানি, ইপিজেড ঢাকা । ১৭. মোহাম্মদ এ আউয়াল, শামস শিপিং লি., ৭৭, মাওলানা শওকত আলী রোড, লালখান, চট্টগ্রাম। ১৯. এরিক জনসন আনড্রেস উইলসন, ডব্লিউএমজি লি. বাড়ি- ১৪, রোড - ১৩, সেক্টর- ৪, উত্তরা, ঢাকা। ২০.  ফারহান ইয়াকুবুর রহমান, ইন্ট্রিডিপ গ্রুপ, বাড়ি- ৫, রোড- ৫১, গুলশান, ঢাকা। ২১. তাজুল ইসলাম, জেমিকো ট্রেড ইন্টা., বালুর মাঠ, চাষাঢ়া, নারায়ণগঞ্জ। ২২. আমানুল্লাহ চাগলা, পদ্মা টেক্সটাইল, বাড়ি- ৪৫৮, লেন-৮, ডিওএইচএস, বারিধারা ঢাকা।
২৩. মোহাম্মদ আতিকুজ্জামান, নিউটেকনোলজি ইনভেস্টমেন্ট, মস্কো, রাশিয়া। ২৪. মোহাম্মদ রেজাউল হক, মাল্টা। ২৫. মোহাম্মদ কামাল ভুইয়া, তুহিন-সুমন, জেমিকো ট্রেড ইন্টা., বালুর মাঠ, চাষাঢ়া, নারায়ণগঞ্জ।
২৬. মাহতাবা রহমান, সেলকন শিপিং কোম্পানি, বাড়ি - ৮৭এ, রোড - ০৬, ডিওএইচএস, বনানী, ঢাকা। ২৭. ফারুক পালওয়ান, জেমিকো ট্রেড ইন্টা, নারায়ণগঞ্জ। ২৮. মাহমুদ হোসাইন, গ্লোবাল এডুকেশন সিস্টেম, আয়ারল্যান্ড। ২৯. শাহনাজ হুদা রাজ্জাক, সাউদার্ন আইস শিপিং কোম্পানি, ঢাকা ইপিজেড। এছাড়া পানামা পেপার্সে নাম আসা দুদকের দাখিল করা তালিকায় থাকা ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান হচ্ছে : বারাকা পতেঙ্গা পাওয়ার লিমিটেডের চেয়ারম্যান ফয়সাল আহমেদ চৌধুরী, সেতু করপোরেশনের পরিচালক উম্মে রুবানা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সিডব্লিউএন (এ) আজমত মঈন, বনানীর সালমা হক, এস এম জোবায়দুল হক, বারিধারা কূটনৈতিক এলাকার সৈয়দ সিরাজুল হক, ধানমন্ডির দিলীপ কুমার মোদি ও শরীফ জহির, গুলশানের তারিক ইকরামুল হক, ইউনাইটেড গ্রুপের চেয়ারম্যান হাসান মাহমুদ রাজা, পরিচালক খন্দকার মঈনুল আহসান শামীম, পরিচালক আহমেদ ইসলাইল হোসেন ও পরিচালক আখতার মাহমুদ।
নামে-বেনামে বেআইনি উপায়ে দেশের টাকা বিদেশে পাচার ও অবৈধ আয়ে বৈধ ক্ষমতার মালিক হওয়া নিয়ে ২০১৬ সালের এপ্রিলে পানামা পেপারস নামে দুর্নীতির প্রতিবেদন আসে বিশ্ব গণমাধ্যমে। ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর প্রকাশ হয় একই ধরনের আরেকটি তালিকা, যা পরিচিতি পায় প্যারাডাইস পেপারস নামে। এই দুই পেপারসে বাংলাদেশের উল্লেখিত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম উঠে এসেছে।
প্যারাডাইস ও পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিতে নাম আসা বাংলাদেশিদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক দুর্নীতির তদন্ত সংস্থা বিএফআইইউ ও পুলিশের অপরাধ তদন্ত সংস্থা সিআইডি কী পদক্ষেপ নিয়েছে, তা জানতে চায় হাইকোর্ট বিভাগ। আগামী ৯ জানুয়ারি তা প্রতিবেদন আকারে জানাতে নির্দেশ দিয়েছে আদালত। দু’টি তালিকায় দেশের ৪৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম উঠে এসেছে।

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন