ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের বিপুল বিজয়

406

ঢাকা, ১১ মার্চ, ২০১৯ (বাসস) : বহু প্রতিক্ষীত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগ বিপুল বিজয় অর্জন করেছে।
এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত যেসব হল সংসদের ফলাফল পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হল ছাত্রসংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগ মনোনীত প্রার্থী শহীদুল হক শিশির সহ-সভাপতি (ভিপি), মো. মেহেদী হাসান মীর্জা সাধারণ সম্পাদক (জিএস) এবং সাদিল আব্বাস সহ-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন।
অন্যান্য সম্পাদকীয় পদে নির্বাচিত হয়েছেন, সাহিত্য সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক ইমরান হোসেন, রিডিং রুম সম্পাদক বিল্লাল হোসেন, আন্তঃক্রিড়া সম্পাদক শাহরিয়ার সনেট, বহিঃক্রিড়া সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম এবং সদস্য পদে আবদুর রহমান, শাহ ইবনে সৈয়দ, জাহাঙ্গীর আলম এবং মুজাহিদুল ইসলাম নির্বাচিত হয়েছেন।
হাজী মুহম্মদ মুহসীন ও স্যার সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে পূর্ণাঙ্গ প্যানেলে জয়ী হয় ছাত্রলীগ। তবে বঙ্গবন্ধু হলে ভিপি-জিএসসহ ১১টি পদে জয়ী হয় এই প্যানেল। বাকি দুইটি পদে জয় পান স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।
এছাড়া সার্জেন্ট জহুরুল হক হলে ভিপিসহ ১২ পদেই জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্রার্থীরা। কেবল জিএস হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী। ফজলুল হক মুসলিম হলের হল সংসদ নির্বাচনে ভিপিসহ পাঁচ পদে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। হল সংসদের বাকি আটটি পদে জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্যানেলের প্রার্থীরা।
শামসুন নাহার হল সংসদে ১৩ পদের মধ্যে ভিপি ও জিএসসহ আট পদেই জয় পান স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা হলের হল সংসদ নির্বাচনেও ভিপি এবং সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক পদে বিজয়ী হন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্জেন্ট জহুরুল হক হল সংসদ নির্বাচনে সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্রার্থী সাইফুল্লা আব্বাছী অনন্ত। তবে এই হলে সাধারণ সম্পাদক (জিএস) পদে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র জোটের প্রার্থী তৌফিকুল ইসলাম। হল সংসদের বাকি পদগুলোতে জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্যানেলের সদস্যরা।
এদিকে, ফজলুল হক মুসলিম হলের হল সংসদ নির্বাচনে ভিপিসহ পাঁচ পদে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। হল সংসদের বাকি আটটি পদে জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্যানেলের প্রার্থীরা।
আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তাদের নিজ নিজ আবাসিক হলে গিয়ে ডাকসু এবং হল সংসদের নেতাদের নির্বাচিত করতে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৪৩ হাজার ২৫৬ শিক্ষার্থী এ নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। তার মধ্যে ১৬ হাজার ২৯২ ছাত্রী এবং ২৬ হাজার ৯৬৪ ছাত্র ভোটধিকার প্রয়োগ করেন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি হলের ৫শ’ বুথে সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট গ্রহণ চলে।
প্রতিটি ভোটার ডাকসু এবং হল সংসদের নির্বাচনে দু’টি আলাদা ব্যালট পেপারে ৩৮ জনকে নির্বাচিত করে। তাদের মধ্যে ডাকসুর ২৫ জন এবং হল সংসদের ১৩ জনকে নির্বাচিত করে।
ডাকসুর ২৫টি পদে মোট ২২৯ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তাদের মধ্যে ২১ জন ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) এবং ১৪ জন সাধারণ সম্পাদক এবং ১৩ জন সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।
এছাড়াও ডাকসুর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক পদে ১১ জন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং কমন রুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক পদ দুটিতে ৯ জন করে, আন্তর্জাতিক সম্পাদক পদে ১১ জন, সাহিত্য সম্পাদক পদে ৮ জন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে ১২ জন, ক্রীড়া সম্পাদক পদে ১১ জন, পরিবহন সম্পাদক পদে ১০ জন, সমাজকল্যাণ সম্পাদক পদে ১৪ জন এবং সদস্য পদে ৮৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি আবাসিক হলের প্রতিটিতে ১৩টি পদে হল সংসদের নির্বাচনে মোট ৫০৯ জন শিক্ষার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ডাকসু নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে।
‘ছাত্র-ছাত্রীরা সুশৃঙ্খলভাবে তাদের ভোট প্রদান করে এক উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। উদ্যমী ছাত্র-ছাত্রীরা উৎসবমুখর পরিবেশে তাদের ভোট প্রদান করে।’
এদিকে বামপন্থী কোটা সংস্কার ও স্বতন্ত্র জোট নেতা ও কর্মীবৃন্দের প্রতিবাদে বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রি হলের নির্বাচন বিলম্বিত হওয়ায় বিকাল ৫টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। আন্দোলনের কারণে রোকেয়া হলের ভোট গ্রহণ স্থগিত হয়। বিকাল ৩টায় আবার ভোট গ্রহণ শুরু হয়।

image_printPrint