জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবেলায় নিজ সামর্থ্যে লড়ছে বাংলাদেশ, এগিয়ে আসুক বিশ্ব : তথ্যমন্ত্রী

339

ঢাকা: ৯ মার্চ, ২০১৯ (বাসস) : তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবেলায় নিজস্ব সামর্থ্যে কাজ করে চলেছে বাংলাদেশ। আঞ্চলিক ও বিশ্ব সংস্থাগুলো থেকে প্রাপ্ত অর্থায়ন এ কাজকে আরো এগিয়ে নিতে পারে।’
মন্ত্রী শনিবার সকালে রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে ২য় আন্তর্জাতিক জলবায়ু অর্থায়ন সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।
‘বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় বিশ্ব সম্প্রদায়কে পথ দেখিয়েছে’ বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য দায়ী না হয়েও ক্ষতির স্বীকার হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে জলবায়ু পরিবর্তন ফান্ড গঠন করে বিশ্বের বুকে অনন্য নজির স্থাপন করেছে বাংলাদেশ।’
‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জলবায়ু পরিবর্তনে খাপখাওয়ানো ও যুগান্তকারী পরিবেশবান্ধব তৎপরতার জন্য ২০১৫ সালে চ্যাম্পিয়নস অভ দ্য আর্থ পুরস্কারে ভূষিত হন’ উল্লেখ করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশ গৃহকাজে সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহারে পৃথিবীর প্রথম স্থানে। মোট বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীর ৩.৩% বা ৫৫ লক্ষ বসতবাড়িতে ৫৬০ মেগাওয়াট এখন সৌর বিদ্যুত। শিগগিরই এ হার ১০% এ উন্নীত হবে।’
বেলজিয়াম থেকে পরিবেশ বিজ্ঞানে ডক্টরেট তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ এসময় ২০১৭ সালে সারাবিশ্বের জিডিপি’র ২.২% সামরিকখাতে ব্যয় হওয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, আমরা নিজেদের ধ্বংসের জন্য অস্ত্র বানাতে যে অর্থ ব্যয় করি, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলায় সে পরিমাণ অর্থের যোগান দেই না। এটি দুঃখজনক।’
বাংলাদেশ সেন্টার ফর এডভান্সড স্টাডিজ এর নির্বাহী পরিচালক ড. আতিক রহমানের সভাপতিত্বে কনফারেন্সে ড. সালিমুল হক, ইউএনএফসিসি প্রতিনিধি ড. পল ভি দেশংকর, অক্সফোর্ড পলিসি ম্যানেজমেন্ট এর সিনিয়র কনসালট্যান্ট ক্যাথেরিন কুক-সহ দেশী-বিদেশী জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

image_printPrint