বাসস দেশ-২৩ : লন্ডন দূতাবাসে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের তথ্যচিত্র প্রদর্শন ও বিশেষ আলোচনা

355

বাসস দেশ-২৩
লন্ডন-৭ মার্চ-আলোচনা
লন্ডন দূতাবাসে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের তথ্যচিত্র প্রদর্শন ও বিশেষ আলোচনা
লন্ডন, ৮ মার্চ, ২০১৯ (বাসস) : এখানে বাংলাদেশ হাই কমিশনে যথাযোগ্য মর্যাদায় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার হাই কমিশনে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের তথ্যচিত্র প্রদর্শন ও বিশেষ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাই কমিশনার সাইদা মুনা তাসনীমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় যুক্তরাজ্যে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সুলতান মাহমুদ শরীফসহ ব্রিটিশ-বাংলাদেশী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ অংশ নেন। আলোচনা সভার শুরুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করে শুনানো হয়।
অনুষ্ঠানে হাই কমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে বলেন, বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ছিল মূলত বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ। এই ভাষণ যাতে বিশ্ববাসীর কাছে না পৌঁছায় সেজন্য পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠী সব ধরনের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিয়েছিল। তারপরও সে ভাষণ বিশ্ববাসীর কাছে পৌঁছে গেছে।
তিনি বলেন, ২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর ইউনেস্কো বঙ্গবন্ধুর এই ঐতিহাসিক ভাষণকে বিশ্ব ঐতিহ্যের অমূল্য প্রামাণ্য দলিল হিসেবে তাদের মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড রেজিস্ট্রারে অন্তর্ভূক্ত করেছে। এই ভাষণ আজ সব দেশের সকল নিপীড়িত ও স্বাধীকারকামী মানুষের মুক্তির দিক-নির্দেশনায় পরিণত হয়েছে।
তিনি তাঁর বক্তব্যে আরো বলেন বঙ্গবন্ধুর আজীবনের লালিত স্বপ্ন বাংলাদেশকে একটি সুখী ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলা’য় পরিণত করা। এই স্বপ্ন পূরণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের সবাইকে অব্যাহত প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।
বাসস/সবি/২২২৫/আরজি