বাসস দেশ-৩২ : এক মাসের মধ্যে তৈরি পোশাক শ্রমিকদের বেতন-ভাতা প্রদান করা হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী

288

বাসস দেশ-৩২
টিপু মুন্সী- সভা
এক মাসের মধ্যে তৈরি পোশাক শ্রমিকদের বেতন-ভাতা প্রদান করা হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী
ঢাকা, ৮ জানুয়ারি, ২০১৯ (বাসস) : তৈরি পোশাক শ্রমিকদের জন্য প্রদত্ত মজুরি কাঠামোর অসংগতি দূর করে মালিক ও শ্রমিকদের নিয়ে ত্রিপক্ষীয় কমিটি গঠন করে এক মাসের মধ্যে তাদের বেতন-ভাতা প্রদান করা হবে।
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপুু মুন্সী আজ শ্রম অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট বিষয়ক কোর কমিটির বিশেষ সভা শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, ‘তৈরি পোশাক শ্রমিকদের জন্য প্রদত্ত মজুরি কাঠামোর অসংগতি দূর করে মালিক ও শ্রমিকদের নিয়ে ত্রিপক্ষীয় কমিটি গঠন করে এক মাসের মধ্যে তাদের বেতন-ভাতা প্রদান করা হবে।’
পোশাক শিল্পের অস্থিতিশীল পরিস্থিতি বিবেচনায় সদ্য বাস্তবায়নাধীন মজুরি কাঠামো পর্যালোচনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার উল্লেখ করে এক মাসের মধ্যে মজুরি কাঠামো পর্যালোচনা করে নতুন সিদ্ধান্ত জানানোর কথা বলেন নতুন বাণিজ্যমন্ত্রী।
এছাড়াও কোন ধরনের গুজবে কান না দিয়ে কারখানায় যোগদানের জন্য আন্দোলনরত শ্রমিকদের আহ্বান জানান টিপুু মুন্সী।
সভায় শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের নবনিযুক্ত প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব আফরোজা খান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মফিজুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) আছাদুজ্জামান মিয়া বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন, বিজিএমইএ নেতা আব্দুস সালাম মুর্শেদী উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়াও বিজিএমএ, বিটিএসইএ, বিকেএমইএ ও জাতীয় শ্রমিক লীগ এবং জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনসহ মালিক ও শ্রমিকদের বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত চিলেন।
বৈঠক শেষে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মালিক পক্ষের ৫ জন, শ্রমিক পক্ষের ৫ জন এবং সরকারের বাণিজ্য সচিব ও শ্রম সচিবকে নিয়ে মোট ১২ সদস্যের কমিটি করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ কমিটি আগামী এক মাসের মধ্যে মজুরির অসঙ্গতিগুলো খতিয়ে দেখবে এবং সমস্যা সমাধানে পদক্ষেপ নেবে।’
তিনি বলেন, ‘জানুয়ারি মাসে কোনো শ্রমিককে কম বেতন দেয়া হবে না। কোনো গ্রেডে কারও যদি বেতন কমে যায়, তবে সেটা হিসাব করে সমন্বয় করা হবে। বকেয়া আকারে শ্রমিকরা সেই বেতন পেয়ে যাবেন’বলেন টিপু মুন্সী।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমান শ্রমিক আন্দোলনের পেছনে শিল্পের বাইরের লোকের ইন্ধন আছে । শ্রমিকদের বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। শ্রমিকরা যাতে কোনো রকম গুজব কিংবা উস্কানিতে পা না দেন আমরা সেই অনুরোধ করছি। আজকের পর থেকে ইন্ডাস্ট্রি বিরোধী কোনো কর্মকান্ড করলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে বলেও হুসিয়ারি দেন তিনি।
বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘যারা ধ্বংসাত্মক কাজ করেছে তারা শ্রমিক না। তারা এ ট্রেডের বন্ধু না। তাদের কঠোর হাতে দমন করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। মালিক ও শ্রমিক একটা বাইসাইকেলের দুই চাকা। তাদের এক সঙ্গেই এগোতে হবে। কোথায় কোনো অসঙ্গতি থাকালে সেটা দেখা হবে। কিন্তু কোনো ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড সহ্য করা হবে না।’
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সাইবার ক্রাইম শুরু হয়ে গেছে। বিভিন্ন রকম প্রচারপত্র লিফলেট বিতরণ করা হচ্ছে অনলাইনে। আমরা বরাবর দেখেছি, প্রত্যেক ঘটনার ক্ষেত্রে এ ধরনের অপকর্ম ঘটছে। এসব কর্মকান্ড সম্পর্কে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।
শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুন্নুজান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত শ্রমিকবান্ধব। তিনি নিজেই সুপারিশ করে পোশাক শ্রমিকদের মজুরি বাড়ানোর ব্যবস্থা করেছেন। এখন নতুন মজুরি কাঠামোর কোথাও কোনো অসুবিধা থাকলে আলোচনা করে তা ঠিক করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তাই আর কোনো বিশৃঙ্খলা নয়।
বাসস/এএসজি/এফএইচ/২১০০/এএএ