বাসস দেশ-১৮ : মহামারী মোকাবেলায় অর্থবহ বৈশ্বিক অংশীদারিত্বের আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর

116

বাসস দেশ-১৮
মোমেন-জি ৭৭-কোভিড
মহামারী মোকাবেলায় অর্থবহ বৈশ্বিক অংশীদারিত্বের আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর
ঢাকা, ১৩ নভেম্বর, ২০২০ (বাসস) : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন এজেন্ডা ২০৩০ এর সময়োপযোগী বাস্তবায়ন এবং মহামারীর মত ভবিষ্যৎ বিপর্যয়ের ঝুঁকি কমানোর জন্য দৃঢ় ও অর্থবহ বৈশ্বিক অংশীদারিত্বের আহ্বান জানিয়েছেন।
আজ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়। এতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার জি-৭৭-এর ৪৪ তম বার্ষিক সভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বক্তৃতাকালে বলেন, কোভিড-১৯ এর প্রতিক্রিয়া এবং পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া আমাদের আরও বেশি টেকসই এবং স্থিতিশীল বিশ্ব গড়তে সম্মিলিতভাবে কাজ করার এবং প্রতিক্রিয়ার সুযোগ করে দিয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মহামারীজনিত প্রভাবকে হ্রাস করে জনগণের জীবন ও জীবিকা নির্বাহের জন্য দেশের জিডিপির ৪ দশমিক ৩ শতাংশ প্রায় ১৪ দশমিক ১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের উদ্দীপক প্যাকেজসহ বাংলাদেশের ব্যাপক প্রতিক্রিয়া পরিকল্পনাকে এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী তুলে ধরেন।
ড. মোমেন রোহিঙ্গা সংকটের কথা উল্লেখ করে বলেন, এটি মহামারীর সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশের জন্য দ্বিগুণ ঝুঁকির সৃষ্টি করেছে এবং এসডিজি অর্জনে তার অভূতপূর্ব সাফল্যকে ব্যাপকভাবে বিঘিœত করেছে।
তিনি তার মন্তব্যে নিরাপদ, কার্যকর এবং সাশ্রয়ী মূল্যের কোভিড-১৯ টীকা এবং অন্যান্য প্রতিরোধমূলক সরঞ্জামে ন্যায্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করার গুরুত্বের উপর জোর দেন।
গ্রুপ অব ৭৭ এর সদস্য দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা এবং চীন একটি ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে কোভিড-১৯ মহামারীর প্রভাব, অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং পরিবেশগত ক্ষেত্রে উন্নয়নশীল দেশগুলো যেসব চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছে, তা নিয়ে আলোচনা করেন।
গ্রুপ অব ৭৭ (জি-৭৭) গ্রুপটি ৭৭ টি উন্নয়নশীল দেশ নিয়ে ১৫ জুন ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। যদিও, বর্তমানে জি-৭৭ এর সদস্য ১৩৪ টি দেশে উন্নীত হয়েছে তবুও, মূল নামটি তার ঐতিহাসিক গুরুত্বের কারণে বজায় রাখা হয়েছে।
বাসস/সবি/এসই/২১২৫/আরজি