বরিশালে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে চাঁই তৈরির কারিগররা

473

বরিশাল, ৩ জুন, ২০১৭ (বাসস) : চলতি বর্ষায় জেলায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে চাঁই (মাছ ধরার ফাঁদ) তৈরির কারিগররা। এসময় জেলেরা নৌকায় করে জাল, চাঁই অথবা বড়শি দিয়ে মৎস্য শিকার করে থাকেন। চাঁই’র জন্য বিখ্যাত আগৈলঝাড়া উপজেলার মহনকাঠী গ্রামের শতাধিক পরিবার এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে চাঁই তৈরিতে। নিপূণ হাতের শৈল্পিক কারুকার্যে বাঁশ ও বেতের সাহায়্যে তৈরি হচ্ছে এসব চাই।
জানা যায়, প্রায় ২শ’ বছর ধরে অগৈলঝাড়ার মহনকাঠী গ্রামে চাঁই তৈরি হয়ে আসছে। যুগ যুগ ধরে এই গ্রামের ৪শ’ পরিবারের জীবিকা নির্বাহের প্রধান উৎস চাঁই তৈরি। গ্রামের পুরুষরা বর্ষা মৌসুমে চাঁই তৈরি ও অন্য সময়ে বিভিন্ন শ্রমের কাজ করে থাকেন। পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও এসময় চাঁই তৈরি করতে সাহায্য করে থাকে। এখানকার তৈরি করা চাঁই বরিশাল বিভাগসহ দক্ষিাণাঞ্চলের বিভিন্ন হাট-বাজারে বিক্রি হয়ে আসছে।
মহনকাঠী গ্রাম চাঁই পল্লী হিসেবে বিখ্যাত। ভরা বর্ষায় নদী, খাল, বিল ও পুকুরে চাঁই দিয়ে মাছ ধরার রীতিমত উৎসব শুরু হয়ে যায়। বিশেষ করে গ্রাম অঞ্চলের বিভিন্ন বিল ও মাঠগুলোতে পানি জমে প্রচুর মাছ পাওয়া যায় চটপদশীয় প্রজাতির এসব মাছের বেশ কদর থাকায় চাঁই’র কদরও বেড়ে যায় বর্ষাকালে। জেলার বিভিন্ন উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে দেখা গেছে পর্যাপ্ত চাই বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা।
গ্রামের বাসিন্দা তপন বৈরাগী জানান, চাঁই তৈরির প্রধান উপকরন হচ্ছে বাঁশ, বেত ও লতা। ৪শ’ টাকার তল্লা বাঁশ, বেত ও কৈয়া লতা দিয়ে একজন শ্রমিক ৫দিনে ২০টি (এক কুড়ি) চাঁই বানাতে পারেন। যার পাইকারী বাজার মূল্য ১৮শ’ থেকে ২২শ’ টাকা। তবে সাম্প্রতিক সময়ে চাঁই তৈরির উপকরনের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় আগের মত লাভ হয় না বলে জানান তিনি। এখানকার তৈরি চাঁই স্থানীয় বাজারে বিক্রির পাশাপাশি ভোলা, পটুয়াখালী, খুলনা, নোয়াখালী, ফরিদপুরসহ বিভিন্ন জেলায় বিক্রি করা হয়।
গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া বাজারে চাঁই বিক্রি করতে আসা রহিম শেখ ও লোকমান গাজী বলেন, গত কয়েকদিনের টানা বর্ষায় বিভিন্ন এলাকার নি¤œাঞ্চল ও বিলগুলোতে প্রচুর পরিমাণ পানি জমেছে। জোয়ারের ¯্রােতে এসব পনিতে প্রচুর মাছ আসছে।
তারা জানান, আর এ মাছ ধরতে জাল ও বড়শির চাইতে চাঁই অধিক কার্যকর ভূমিকা রাখে। তাই অনেকেই চাঁই কিনছেন এখান থেকে। প্রতিটি চাঁই ১শ’ ২০ টাকা থেকে শুরু করে প্রকার ভেদে ১শ’ ৮০ টাকায় বিক্রি করছেন। সামনের বর্ষার দিনগুলোতে চাঁই বিক্রি আরো বাড়বে বলে জানান তারা।