বাসস দেশ-৪৬ : সরকার পদ্মা-গড়াই মোহনায় ‘সমন্বিত-বহুমুখী উন্নয়ন প্রকল্প’ বাস্তবায়নের পরিকল্পনা নিয়েছে : পানি সম্পদ সচিব

114

বাসস দেশ-৪৬
পদ্মা- বৃক্ষরোপন
সরকার পদ্মা-গড়াই মোহনায় ‘সমন্বিত-বহুমুখী উন্নয়ন প্রকল্প’ বাস্তবায়নের পরিকল্পনা নিয়েছে : পানি সম্পদ সচিব
কুষ্টিয়া, ১ জুলাই, ২০২০ (বাসস) : পানি সম্পদ সচিব কবির বিন আনোয়ার বলেছেন,সরকার পদ্মা ও গড়াই নদীর মোহনায় উদ্ধারকৃত জমি এবং নদী-তীরবর্তী বিস্তীর্ণ-অঞ্চলে ‘সমন্বিত-বহুমুখী উন্নয়ন প্রকল্প’ বাস্তবায়নের পরিকল্পনা নিয়েছে।
এ প্রকল্প বাস্তবায়নে ইতোমধ্যে প্রাথমিক সম্ভাব্যতা যাচাই সম্পন্ন হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন,একটি ড্রেজিং ষ্টেশন স্থাপন, রেষ্ট হাউস নির্মাণ ও ইকোপার্ক গড়ে তোলার মধ্যদিয়ে সমন্বিত এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।
পানি সম্পদ সচিব বুধবার বেলা ১২টার দিকে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পদ্মা ও গড়াই নদীর মোহনায় নানা প্রজাতির তিন শতাধিক বৃক্ষ রোপনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।
কুষ্টিয়ায় বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের চলমান ‘গড়াই খনন প্রকল্পের ভুমি উন্নয়ন কর্মসূচীর’ আওতায় বৃক্ষ-রোপন উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মো: আসলাম হোসেনসহ জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কুষ্টিয়া-জোনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মনিরুজ্জামান,নির্বাহী প্রকৌশলী পিযুষ কৃষ্ণ কুন্ডু ও গড়াই খনন প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী তাজবির হোসেন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে কবির বিন আনোয়ার বলেন,শিলাইদহ-কুঠিবাড়ি, তালবাড়িয়া ও গড়াই নদীর তীরবর্তী অন্যান্য ভাঙ্গন কবলিত এলাকার নদী-ভাঙ্গনের ঝুঁিকি নিরসনে একটি প্রকল্প ইতোমধ্যে হাতে নেয়া হয়েছে।
পানি সম্পদ সচিব বলেন,‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের গ্রেট ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনসহ এই জনপদের জীব বৈচিত্র রক্ষা এবং প্রাকৃতিক সত্ত্বার অন্যতম আঁধার পদ্মার শাখা নদী গড়াইয়ের প্রাণ ফেরাতে ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।’
তিনি বলেন, এরই অংশ হিসেবে চলমান খনন প্রকল্পের কাজ চলছে, গড়াই ফিরে পাচ্ছে তার হারানো প্রাণ। একই সাথে প্রাকৃতিক প্রাণস্পন্দন ফেরাতে হাতে নেয়া হয়েছে ভূমি উন্নয়নসহ বনায়নের কর্মসূচী।
পানি সম্পদ সচিব বলেন,‘আগামী ২০২২ সাল পর্যন্ত চলমান এই প্রকল্পের বাস্তবায়ন সম্পন্ন হলে গড়াইয়ের দু’ধার সংরক্ষণের মাধ্যমে বিলীন হয়ে যাওয়া ভূমি উদ্ধারের পাশাপাশি এ এলাকার সমৃদ্ধি ও সম্ভাবনার দ্বার খুলে যাবে।’
বাসস/সংবাদদাতা/জেডআরএম/১১২৫/এবিএইচ