মহিলা বিশ্বকাপে পঞ্চম শিরোপা জয় করতে চায় স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া

160

সিডনি, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ (বাসস/এএফপি): ফেভারিট হিসেবেই এই সপ্তাহে টি-২০ বিশ্বকাপ ক্রিকেট আসরে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নামতে চায় স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার নারী ক্রিকেট দল। তারা টুর্নামেন্টে রেকর্ড সংখ্যক দর্শক উপস্থিতি নিশ্চিতের পাশাপাশি অক্ষুন্ন রাখতে চায় নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব।
মেগ ল্যানিংয়ের নেতৃত্বাধীন বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা ২০১৯ সালের দ্বিতীয় ভাগে খুব একটা পরীক্ষার মুখে পড়েনি। এ সময় তারা সংক্ষিপ্ত ভার্সনের এই ক্রিকেটে ইনজুরি আক্রান্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও শ্রীলংকাকে হোয়াইট ওয়াশ করেছে।
তবে শিরোপার জোড়ালো দাবীদার এই দলটি এই মাসে বিষ্ময়কর ভাবে হেরে গেছে মূল প্রতিদ্বন্দ্বি ভারত ও ইংল্যান্ডের কাছে। পরে অবশ্য অনুশীলন মুলক ত্রিদেশীয় সিরিজ জয় করেছে।
ল্যানিং অবশ্য মনে করেন,‘ বিশ্বকাপের আগে এভাবে চাপে পড়াটা অবশ্যই ভাল প্রস্তুতি। ’ সাম্প্রতিক এই হারের পরও অস্ট্রেলিয়া আশা করছে তারা আগামী ৮ মার্চ মেলেবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডের (এমসিজি) ফাইনালে খেলবে। যেখানে মহিলা ক্রীড়ায় দর্শক উপস্থিতির রেকর্ড হবে বলে আশা করছে আয়োজকরা।
১৯৯৯ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার অনুষ্ঠিত মহিলা বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনালে রেকর্ড সংখ্যক ৯০,১৮৫ জন দর্শক উপস্থিত হয়েছিল। ওই ম্যাচে স্বাগতিক যুক্তরাস্ট্র টাইব্রেকারে চীনকে হারিয়ে শিরোপা জয় করে। এবার এমসিজিতে এক লাখ দর্শকের সমাগম ঘটবে বলে আশা করা হচ্ছে।
পুরুষ দলের সমান বেতন পাওয়া অসি নারী দলকে হারানো বেশ কঠিন বলেই মনে করা হচ্ছে। তারা আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের পাশাপাশি নিয়মিত ভাবে খেলে থাকে জনপ্রিয় মহিলা বিগ ব্যাশ টুর্নামেন্টে। এবারের আসরে এ দলটিকেই ভাবা হচ্ছে দুই ফাইনালিস্টের একটি হিসেবে।
ল্যানিং ছাড়াও অস্ট্রেলিয়া দলকে অনুপ্রানীত করতে আছেন উইকেট রক্ষক-ব্যাটসম্যান আলিসা হিলি, অল রাউন্ডার এলিসে পেরি ও বোলিং সেনসেশন জেস জোনাসেন। এরা সবাই বর্তমানে বিশ্বসেরার কাতারে রয়েছে।
১১ বছর আগে বিশ্বকাপের শুরু থেকেই আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছেন অসিরা। এ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত ছয়টি আসেরর মধ্যে চারটি শিরোপা জয় করেছে অস্ট্রেলিয়া। সর্বশেষ ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজে অনুষ্ঠিত ফাইনালে ইংল্যান্ডকে আট উইকেটে হারিয়ে শিরোপা ঘরে তুলে অস্ট্রেলিয়া। টুর্নামেন্ট থেকে বাকী দুটি শিরোপা জয় করেছে ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ নারী দল। ২০০৯ সালে নিজেদের মাটিতে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টের শিরোপা জয় করেছিল ইংল্যান্ড। আর ২০১৬ সালের শিরোপা জয় করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।
আগামী শুক্রবার সিডনিতে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে ১০ দলের এই টুর্নামেন্টে শিরোপা মিশনে নামবে অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচে ভারতীয় দলকে প্রেরনা যোগাবে ব্যাটিং সেনসেশন শেফালি ভার্মা।
ল্যানিং ওই ম্যাচের লাইনআপ প্রসঙ্গে বলেন,‘এবারের বিশ্বকাপে আমাদের মোকাবেলা করতে হবে কয়েকটি ভিন্ন ধরনের দলকে, যাদের খেলার ধরন আলাদা। যে কারণে আমাদেরকে সেরা কম্বিনেশন নিয়েই মাঠে নামতে হবে। তবে আমার দৃঢ় বিশ্বাস প্রতিপক্ষ দলটি যেমনই হোক আমরা ভাল খেলে সাফল্য ঘরে তুলবো।’
সর্বশেষ চার ম্যাচে ২টি করে জয় পেয়েছে ভারত ও অস্ট্রেলিয়া। ভারতীয় দলের অধিনায়ক হারমানপ্রীত কাউর বলেছেন, তার দল গত বিশ্বকাপের পর থেকে দারুন উন্নতি করেছে। শেষ আসনে আসরের সেমি-ফাইনালে ইংল্যান্ডের কাছে হেরে গিয়েছিল ভারত।
নিজের কলামে তিনি লিখেছেন,‘ আমি যদি দুই বছর আগের দিকে তাকাই, তাহলে দেখব ভারত ৫০ ওভারের ম্যাচে ভাল করেছে। তবে টি-২০ দলকে ধুকতে হয়েছে। তবে গত দুই বছর ধরে আমরা টি-২০ দলে মনোযোগ দিয়েছি এবং ইতিবাচক মানষিকতা নিয়েই অস্ট্রেলিয়া এসেছি।’
আগামী রোববার দক্ষিন আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে ইংল্যান্ড। তারাও নকআউটে খেলার জোড়ালো প্রতিদ্বন্দ্বি। অধিনায়ক হিথার নাইট প্রতিপক্ষ দলগুলোকে সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন,‘ আমরা এমন একটি স্কোয়াড পেয়েছি যারা এই ক্রিকেটে জয়ের ক্ষমতা রাখে।’