ঢাকা, রবিবার, মে ২০, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

রাষ্ট্রপতি : ওলামা, মুক্তিযোদ্ধা ও এতিমদের সঙ্গে রাষ্ট্রপতির ইফতার   |   প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা `মুক্তিযোদ্ধা' চিত্রকর্ম এঁকেছেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে খুলনার মেয়রের সাক্ষাত   |    জাতীয় সংবাদ : বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নিলেও গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে : সেতুমন্ত্রী   |    জাতীয় সংবাদ : শ্রমবাজারের চাহিদা বিবেচনায় সরকার কারিগরি শিক্ষা প্রসারে বদ্ধপরিকর : শিক্ষামন্ত্রী * বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ৭১ তম সম্মেলন শুরু হচ্ছে আগামীকাল * বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যে আস্থার সম্পর্ক আরো দৃঢ় হয়েছে : টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ফ্রান্সে বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদিসহ ১ চেচেন গ্রেফতার * চীনে অগ্নিকাণ্ডে ৫ জনের মৃত্যু * বসনিয়ায় বসবাসরত তুর্কীদের সমাবেশে যোগ দেবেন এরদোগান   |   

মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলা : নোয়াখালীর চার আসামীর রায় যে কোন দিন

ঢাকা, ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ (বাসস) : মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় নোয়াখালীর সুধারামের আমির আলীসহ চার জনের বিরুদ্ধে যে কোন রায় (সিএভি) ঘোষণা করা হবে।
উভয়পক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিচারিক প্যানেল আজ এ আদেশ দেয়। মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধ তথা যুদ্ধপরাধের মামলায় এটি ট্রাইব্যুনালের ৩১ তম রায়।
২০১৬ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর এ মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। আনীত অভিযোগ প্রমাণে সক্ষম হয়েছেন দাবি করে আসামীদের সর্বোচ্চ সাজা চেয়ে প্রসিকিউটর জাহিদ ইমাম ও প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমন শুনানি করেন।
আসামী চারজনের মধ্যে গ্রেফতার হয়ে কারাগারে রয়েছেন আমির আহম্মেদ ওরফে রাজাকার আমির আলী, জয়নাল আবদিন ও আব্দুল কুদ্দুস এবং পলাতক রয়েছেন আবুল কালাম ওরফে এ কে এম মনসুর।
মামলার অন্য আসামি ইউসুফ আলী গ্রেফতারের পর অসুস্থ হয়ে মারা যাওয়ায় তাকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।
আসামীদের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে নোয়াখালীর সুধারামে ১১১ জনকে হত্যা-গণহত্যার তিনটি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে। ২০১৬ সালের ২০ জুন অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে এ চারজনের বিচার শুরু হয়।
২০১৫ সালের ৫ অক্টোবর আসামীদের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) দাখিল করা হয়।

সম্পর্কিত সংবাদ