ঢাকা, বুধবার, জানুয়ারী ১৭, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

বিনোদন ও শিল্পকলা : বাচ্চাদের বই পড়ায় আগ্রহী করে তুলতে হবে : সংস্কৃতি মন্ত্রী   |    জাতীয় সংবাদ : আতিকুল ইসলাম ঢাকা উত্তর সিটি কার্পোরেশন উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী * বরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী শাম্মী আক্তার আর নেই   |    জাতীয় সংবাদ : বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় উচ্চ শিক্ষায় নতুন মাত্রা যোগ করেছে : শিক্ষামন্ত্রী * সুন্দরবন অঞ্চল নিরাপদ রাখতে আরো ৪টি র‌্যাব ক্যাম্প স্থাপন করা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী * ঝড়-বৃষ্টির মৌসুমে স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা ঝুঁকিতে ৫ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা শিশু : ইউনিসেফ   |   জাতীয় সংসদ : একই পরিবারের চারজন পরিচালক রাখার বিধান করে সংসদে ব্যাংক কোম্পানী সংশোধন বিল পাস * বিচারাধীন মামলা দ্রুত নিষ্পত্তিতে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে : আইনমন্ত্রী * সরকারি শূন্য পদ দ্রুত পূরণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে : জন প্রশাসন মন্ত্রী   |   প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরামের উদ্বোধন করবেন আগামীকাল * একনেকে ১৪ প্রকল্প অনুমোদন : তিন হাজার বিদ্যালয়ে একাডেমিক ভবন নির্মাণ করা হবে * আবুল খায়েরের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক   |   বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি : ঢাকা শহরের ছাদ ব্যবহার করে ১ হাজার মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব : নসরুল হামিদ   |    অর্থনীতি : নওগাঁয় রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের ৬ মাসে ৯২ কোটি ৩০ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ    |    জাতীয় সংবাদ : এই অঞ্চলের স্বাধীনতার নেতাদের হত্যার কারণ খুুঁজে বের করতে হবে : প্রণব মুখোপাধ্যায় * ২ বছরের মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন সম্পন্নে রূপরেখা চূড়ান্ত * ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা : আরো দুই আসামীর পক্ষে যুক্তিতর্ক পেশ    |   খেলাধুলার সংবাদ : পুলিশ বর্ষসেরা খেলোয়াড় দ্বীন ইসলাম, লতা পারভীন ও আকলিমা *মাঠে খারাপ আচরণের জন্য কোহলিকে জরিমানা   |   শিক্ষা : বাংলাদেশের জন্মের পেছনে ঢাবির অবদান রয়েছে : ঢাবি উপাচার্য   |    বিভাগীয় সংবাদ : জয়পুরহাটে বোরো ধানের চারা রক্ষা করতে পলিথিনে ঢেকে রাখার পরামর্শ * নীলফামারীতে কৃষক নেমেছে বোরো আবাদের মাঠে : লক্ষ্যমাত্রা ৮৪ হাজার হেক্টর জমি   |   আবহাওয়া : আগামীকাল থেকে দক্ষিণাঞ্চলের শৈতপ্রবাহ কেটে যেতে পারে   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ট্রানজিট বিষয়ে সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষর * আফগানিস্তানে আইএসের ২১ যোদ্ধা নিহত * জাপানের জলসীমায় ভেসে আসা নৌকা থেকে ৮ জনের লাশ উদ্ধার * লিবিয়ার পশ্চিম উপকূল থেকে অবৈধ ৩৬০ শরণার্থী উদ্ধার   |   

৯ বছরে জাতীয় গ্রীডে ১১,১০৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যুক্ত হয়েছে

॥ শুকুর আলী শুভ ॥
ঢাকা, ৩ জানুয়ারি, ২০১৮ (বাসস) : গত ৯ বছরে জাতীয় গ্রীডে মোট ১১ হাজার ১০৪ মেগাওয়াট (এমডব্লিউ) বিদ্যুৎ যুক্ত হয়েছে। এতে দেশের মোট জনসংখ্যার ৮৩ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে বলে সরকারি সূত্র জানিয়েছে।
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ মঙ্গলবার বাসসকে বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদন ১৬ হাজার ৪৬ মেগাওয়াটে পৌঁছেছে এবং বর্তমানে দেশের ৮৩ ভাগ মানুষ বিদ্যুতের সুবিধা পাচ্ছে।
তিনি বলেন, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিদ্যুৎ সরবরাহ বৃদ্ধি পাওয়ার অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, দ্রুত নগরায়ন ও শিল্পায়ন ঘটেছে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য-আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে গড়ার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে সরকার অতিরিক্ত ৮৫টি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, ১ লাখ ৬০ হাজার কিলোমিটার বিতরণ লাইন, ২ হাজার ৬২২ সার্কিট কিলোমিটার সঞ্চালন লাইন স্থাপন করেছে।
নসরুল হামিদ বলেন, ভারত, জাপান, চীন, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া ও সিঙ্গাপুরের সহযোগিতায় পাবলিক ও প্রাইভেট পার্টনারশিপের (পিপিপি) আওতায় সরকার ১৩টি মেঘা প্রকল্প ও ৫ হাজার ৯২৫ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপনের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। আমরা আশা করছি, ১৩শ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন প্রথম মেগা প্রকল্প পায়রার উৎপাদন ২০১৯ সালের এপ্রিলে শুরু হবে।
তিনি বলেন, বিল পরিশোধ প্রক্রিয়া সহজ করা ও শতভাগ বিল আদায়ের লক্ষ্যে প্রি-পেইড মিটারিং সিস্টেম চালু করা হয়েছে। ইতোমধ্যে প্রায় ৭ লাখ প্রি-পেইড মিটার স্থাপন করা হয়েছে এবং ২০১৮ সালের জুন মাসের মধ্যে আরো ২৭ লাখ মিটার চালু করা হবে বলে আশা করা হচ্ছে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, দক্ষতা, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও গ্রাহক সেবায় গুণগতমান বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিদ্যুৎ বিভাগকে ডিজিটালাইজেশনের আওতায় আনা হয়েছে।
তিনি বলেন, সময়ের চাহিদার প্রেক্ষিতে বিশেষ করে বৃহৎ নগরীগুলোতে আন্ডারগ্রাউন্ড ইলেকট্রিসিটি ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেমের উন্নয়নের জন্য আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
জ্বালানি বিনিয়োগ প্রসারণ প্রসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রাকৃতিক গ্যাস দিনে দিনে ফুরিয়ে যাওয়ার কারণে সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদনে রূপান্তরিত জ্বালানির ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যে সরকার প্রাকৃতিক গ্যাসের পাশাপাশি ক্রমশঃ কয়লা, এলএনজি ও অন্যান্য সহজে প্রাপ্য জ্বালানি ব্যবহারের জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ও এই সেক্টরের সার্বিক উন্নয়নে সরকার পাওয়ার সেক্টর মাস্টার প্ল্যান (পিএসএমপি)-২০১৬ তৈরি করেছে।
তিনি বলেন, সরকার ২০২১ সালের মধ্যে আঞ্চলিক সহযোগিতার মাধ্যমে আরো সাড়ে ৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি ও ভারত থেকে সাম্প্রতিক সময়ে ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা নিয়েছে।
নসরুল জানান, এছাড়াও অফ-গ্রিড গ্রামাঞ্চলে সাড়ে ৪ কোটি সোলার হোম সিস্টেম (এসএইচএস) ও ১০টি সোলার মিনি গ্রিড স্থাপন করা হয়েছে। অন্যদিকে সরকার ২০১৮ সালের মধ্যে ৬ কোটি এসএইচএস ও ৫০টি সোলার মিনি-গ্রিড স্থাপনের মাধ্যমে মোট জনসংখ্যার প্রায় ১০ ভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।
পাওয়ার সেল-এর মহাপরিচালক প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসেন বাসসকে বলেন, বিদ্যুৎ খাতে বিদ্যুতের সিস্টেম লস ১৬.৮৫ শতাংশ থেকে কমে ১২.১৯ শতাংশে নেমে এসেছে এবং মাথাপিছু বিদ্যুৎ উৎপাদন ৪৩৩ কেডব্লিউএইচ-এ পৌঁছেছে। দেশে এখন মোট গ্রাহকের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৭৪ লাখ।
তিনি বলেন, সরকার পিপিপির আওতায় প্রথমবারের মতো বৈদ্যুতিক সঞ্চালন প্রকল্প বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন প্রথম আমলের সরকার ১৯৯৭ সালে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিল।
হোসেন বলেন, নবায়নযোগ্য বিদ্যুতের উন্নয়ন, বিদ্যুৎ ক্ষেত্রে দক্ষতা বৃদ্ধি ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে বিদ্যুতের ঘাটতি মোকাবেলায় সরকার সাসটেইনেবল এন্ড রিনিউএবল এনার্জি ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (এসআরইডিএ) প্রতিষ্ঠা করেছে।
সরকারি তথ্য অনুযায়ী, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা গ্রহণকালে দেশে বিদ্যুতের চরম সংকট চলছিল। ওই সময় দেশে বিদ্যুতের চাহিদা গড়ে ৬ হাজার মেগাওয়াট থাকলেও, উৎপাদন ক্ষমতা ছিল ৪ হাজার ৯৪২ মেগাওয়াট।
এতে বলা হয়, ওই সময় গ্রীষ্মকালে আট থেকে ১০ ঘণ্টার লোডশেডিং থাকায় জনগণকে অসহনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। বর্তমানে বিদ্যুতের উৎপাদন ক্ষমতা ১৬ হাজার মেগাওয়াটেরও বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে।

সম্পর্কিত সংবাদ