ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

রাষ্ট্রপতি : বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে : রাষ্ট্রপতি   |    বিভাগীয় সংবাদ : দিনাজপুরে নাশকতার মামলায় ৪ জেএমবি সদস্যের জামিন আবেদন নামঞ্জুর   |   জাতীয় সংসদ : বঙ্গবন্ধু সেতুতে ডুয়েলগেজ রেললাইনসহ পৃথক রেল সেতু নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী * আগামী বাজেটে বেসরকারি বিদ্যালয়ের এমপিও অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্ত নিবে : প্রধানমন্ত্রী *সকল জেলায় হাইটেক পার্ক স্থাপন করা হবে : প্রধানমন্ত্রী   |   জাতীয় সংসদ : সরকার প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষার প্রতি অত্যন্ত যত্নশীল : প্রধানমন্ত্রী * ২০০৯ সাল থেকে অদ্যাবধি রেলওয়ের বিভিন্ন পদে ১০ হাজার ৩৯১ জনকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে : রেলপথ মন্ত্রী * কিছু রাজনীতিবিদ নির্বাচন এলে বক্রপথে ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন দেখে : প্রধানমন্ত্রী   |   শিক্ষা : শর্ত পূরণ না করা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে : শিক্ষামন্ত্রী   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : প্রাচ্যনাটের অ্যাকটিং স্কুলের নতুন নাটক নৈশভোজ মঞ্চস্থ হলো   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ট্রাম্পের স্বাস্থ্যগত জটিলতা নেই : চিকিৎসক   |   প্রধানমন্ত্রী : উন্নত দেশগুলোকে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর আহবান প্রধানমন্ত্রীর   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কমবে   |   খেলাধুলার সংবাদ : মিরপুর স্টেডিয়ামের শততম ওয়ানডে ম্যাচে শ্রীলংকাকে ২৯১ রানের টার্গেট দিলো জিম্বাবুয়ে *আমাদের পেস বোলাররাই সেরা : রুবেল   |    জাতীয় সংবাদ : ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন বন্ধে সরকারের কোন হাত নেই : ওবায়দুল কাদের *ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচন স্থগিত * নবম ওয়েজ বোর্ডে সাংবাদিকদের স্বার্থ গুরুত্ব পাবে: তারানা হালিম * আপিল শুনানির কার্যতালিকায় যুদ্ধাপরাধী আজহার-কায়সার-সুবহানের মামলা   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ফিলিস্তিনের জন্য জাতিসংঘ সংস্থা থেকে বরাদ্দকৃত অর্থ প্রত্যাহার যুক্তরাষ্ট্রের * মিয়ানমারে রাখাইন বৌদ্ধদের ওপর পুলিশের হামলা ॥ নিহত ৭ * পেরুর সাবেক প্রেসিডেন্টের হাসপাতাল ত্যাগ * মেক্সিকোয় গণকবর থেকে ৩২টি লাশ উদ্ধার    |   

মাদক নিয়ন্ত্রণে জাতীয় সংলাপ প্রয়োজন : মোস্তাফিজুর রহমান

ঢাকা, ২ জানুয়ারি, ২০১৮ (বাসস): মাদক দ্রব্য নির্মূলে জাতীয় ঐক্যমতের উপর গুরুত্ব আরোপ করে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেছেন, মাদক নিয়ন্ত্রণে জাতীয় সংলাপ প্রয়োজন।
তিনি দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, মাদক নিয়ন্ত্রণ নয়, নির্মূল করতে হবে। এর জন্য জিরো ট্রলারেন্সের নীতিতে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।
মঙ্গলবার রাজধানীর তেজগাঁওয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের ২৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।
মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) জামাল উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি টিপু মুনশি, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব ফরিদ উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী, কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন, জাতীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের সদস্য ডা. অরূপ রতন চৌধুরী , বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ড. ইমদাদুল হক বক্তৃতা করেন।
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী বলেন, সমাজ থেকে মাদকদ্রব্য নির্মূলের জন্য সকলের ঐকমত্যের ভিত্তিতে সিদ্ধান্তে আসা প্রয়োজন। এজন্য দরকার দল-মত নির্বিশেষ জাতীয় সংলাপ। সংলাপের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কাজ করলে ভয়াবহ এ ব্যাধিকে নির্মূল করা সম্ভব হবে।
তিনি বলেন, এতোদিন শুধু ছেলেরা মাদকদ্রব্য সেবন করতো, এখন মেয়েরাও করছে। এটা বন্ধ করতে হলে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।
তিনি বলেন, এ মরণব্যধি মাদক নির্মূলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সদিচ্ছা রয়েছে। বর্তমান সরকার জঙ্গি ও সন্ত্রাস দমনে যেমন সফল হয়েছে, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণেও তেমনি সফল হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
মন্ত্রী বলেন, সমাজ থেকে এ অভিশাপ দূর করতে হলে কার ছেলে- কার মেয়ে মাদকের সঙ্গে জড়িত তা বিবেচনায় নিলে হবে না।
টিপু মুন্সি বলেন, দেশে জনসংখ্যার ৭০ লাখ মাদকাসক্ত। এটা আরও বাড়তে পারে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের যে সীমিত ক্ষমতা তা দিয়ে মাদক নির্মূল সম্ভব নয়। এজন্য সকলের ঐকান্তিক সহযোগিতা প্রয়োজন। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণে আমাদের অধিকতর চ্যালেঞ্জ নিতে হবে।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক (ডিজি) জামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, আগে ফেনসিডিল ভয়ঙ্কর ছিল এখন ইয়াবা। আইন সংশোধন করে ইয়াবা বহনকারীর সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করা হচ্ছে।
তিনি বলেন, মাদক ব্যবসায়ীরা যত শক্তিশালী হোক না কেন আমরা কাউকে ছাড় দেবো না, আশ্রয়ও দেব না। আগামী একবছরে অন্তত ৫০জন গডফাদারকে গ্রেফতার করা হবে।
মহাপরিচালক বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে ইতোমধ্যে আমাদের জনবল কাঠামো বাড়ানো হয়েছে। তাদের হাতে ক্ষুদ্র অস্ত্র দেয়ারও নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সম্পর্কিত সংবাদ