ঢাকা, শনিবার, এপ্রিল ২১, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : সাইবার অপরাধের বিরুদ্ধে কমনওয়েলথের দৃঢ় অবস্থান   |    জাতীয় সংবাদ : প্রধানমন্ত্রী দেশে ফেরার পরই মহার্ঘ্য ভাতা সম্পর্কিত প্রজ্ঞাপন : ইনু * বিসিএসআইআর মডেল রাস্তা নির্মাণে জাপানের টুইস্টার টেকনোলজি ব্যবহার করবে * জাতিসংঘের ৫৪টি শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের ১ লাখ ৫৬ হাজার ৩২৮ জন শান্তিরক্ষীর অংশ গ্রহণ   |   খেলাধুলার সংবাদ : ইংল্যান্ডের নির্বাচক হিসেবে নিয়োগ পেলেন সাবেক ব্যাটসম্যান স্মিথ *ওয়েস্ট ইন্ডিজ, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দিবা-রাত্রির টেস্ট খেলবে না ভারত * ওয়েঙ্গারের উত্তরসূরী হিসেবে পাঁচজনকে বিবেচনা করা হচ্ছে * ওয়াটসনের সেঞ্চুরিতে জয়ের ধারায় ফিরলো চেন্নাই   |   আবহাওয়া : দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে   |    বিভাগীয় সংবাদ : মেহেরপুরের মোমিনুলের আর্সেনিকমুক্ত প্লান্ট আবিস্কার *পিরোজপুর আধুনিক কারাগারের নির্মাণ কাজ এগিয়ে চলছে    |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : উ. কোরিয়ার প্রতিশ্রুতিতে সন্তুষ্ট নয় জাপান *সিনেট প্যানেলে প্রত্যাখ্যাত হতে পারেন পম্পেও * অশালীন ভিডিও : সৌদি আরবে বন্ধ করে দেয়া হলো নারী শরীরচর্চা কেন্দ্র *পারমাণবিক অস্ত্র নিরস্ত্রীকরণ প্রশ্নে ইতিবাচক পদক্ষেপ উ.কোরিয়ার   |   

নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে ১১ মন্ত্রণালয়ের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

ঢাকা, ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ (বাসস) : নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাথে সরকারের ১১টি মন্ত্রণালয়ের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।
সচিবালয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আজ সকালে এ সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।
এই সমঝোতার উদ্দেশ্য হল- নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সমূহের মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি করা। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সমূহের মধ্যে পার্টনারশিপ বৃদ্ধি করা এবং নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ভূমিকা পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা।
এ স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম এনডিসি। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন একই মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়িত নারী নির্যাতন প্রতিরোধকল্পে মাল্টি সেক্টোরাল প্রোগ্রাম প্রকল্পের পরিচালক ড. আবুল হোসেন।
অনুষ্ঠানে নাছিমা বেগম বলেন, প্রযুক্তির নেতিবাচক ব্যবহার ও কিছু বিকৃত মানসিকতার লোকের কারণে আপাতত মনে হচ্ছে নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা বেড়ে গেছে। এখন সহিংসতার রিপোর্টিং বেশি হচ্ছে এবং প্রযুক্তির নেতিবাচক ব্যবহারের এই সহিংসতার ধরন ও ভয়াবহতা বৃদ্ধি পেয়েছে। সরকার সহিংসতা বন্ধ ও সহিংসতা পরবর্তী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে আন্তরিক রয়েছে।
তিনি সকল মন্ত্রণালয়কে সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ জানান এবং স্ব-স্ব মন্ত্রণালয়কে নারী ও শিশুর জন্য একটি নিরাপদ বাংলাদেশ গড়ার জন্য কাজ করার আহ্বান জানান।
মন্ত্রণালয়গুলো হলো : স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়; আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়; স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়; সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়; তথ্য মন্ত্রণালয়; শিক্ষা মন্ত্রণালয়; ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়; যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়; স্থানীয় সরকার বিভাগ, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়; ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়।

সম্পর্কিত সংবাদ