ঢাকা, রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রাণনাশ সংক্রান্ত খবর ভিত্তিহীন   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : আর্মড ফোর্সেস মেডিক্যাল কলেজে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ও ফটোগ্রাফী প্রদর্শনী শুরু   |   খেলাধুলার সংবাদ : জাতীয় লিগ : চট্টগ্রামের ৪৩২ রানের জবাব দিচ্ছে রাজশাহী *বরিশালের প্রয়োজন ৩৭১ রান; খুলনার ১০ উইকেট *প্রথম টেস্টের আগে সুস্থ হয়ে উঠবেন তামিম-সৌম্য : চন্দ্রমোহন   |   প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্র থেকে জরুরি ফাইলে স্বাক্ষর করছেন   |    জাতীয় সংবাদ : বিভিন্ন নদ-নদীর ৬৯ পয়েন্টে পানি হ্রাস পেয়েছে * এক লাখ রোহিঙ্গার জন্য আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণে সহায়তা দেবে তুরস্ক * প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের আনুষ্ঠানিকতা পরিহার করে সেই অর্থ রোহিঙ্গাদের সহায়তার আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের   |   আবহাওয়া : দেশের কোথাও কোথাও মাঝারী ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : চীনে ভূমিধসে নিহত ৩, নিখোঁজ ৩ * সিরিয়ায় মার্কিন নেতৃত্বাধীন সন্ত্রাস বিরোধী হামলায় ২ হাজার ৬১৭ বেসামরিক লোক নিহত * কাবুলে বোমা হামলা * জার্মানীতে সাধারণ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু * সিরীয় সৈন্যদের আইএসের দখলে থাকা ৪৪টি শহর-গ্রাম পুনর্দখল   |    বিভাগীয় সংবাদ : খুলনা অঞ্চলে কাঁকড়া চাষ জনপ্রিয় হচ্ছে *নাটোরে পাওয়া যাচ্ছে জাপানের জাতীয় ফল পার্সিমন * নওগাঁয় ৭২৬টি মন্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে   |   

এই মুহূর্তে রাজনীতি-ধর্ম-গণতন্ত্র-উন্নয়নের হুমকি জঙ্গি-সন্ত্রাস : তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, ১ এপ্রিল ২০১৭ (বাসস) : জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, জঙ্গিমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে হলে, রাজনীতিতে একবার রাজাকার সমর্থিত সরকার, আরেকবার মুক্তিযোদ্ধার সরকার- এই মিউজিক্যাল চেয়ারের খেলা বন্ধ করতে হবে।
তিনি বলেন, রাজনীতির প্রধান চ্যালেঞ্জ হচ্ছে, বাংলাদেশকে চিরদিনের জন্য জঙ্গিমুক্ত করা, বাংলাদেশ যাতে আর কোনদিন জঙ্গি-রাজাকার সমর্থিত সরকার অথবা সামরিক সরকার আসতে না পারে সে বিষয়টি নিশ্চিত করা।
তথ্যমন্ত্রী আজ ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন সেমিনার হলে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ জাতীয় কমিটির সভায় স্বাগত বক্তৃতা করছিলেন।
হাসানুল হক ইনু বলেন, বাংলাদেশে দুর্নীতি-বৈষম্য-দারিদ্র্য সমস্যা থাকলেও এই মুহূর্তে দেশে রাজনীতি-ধর্ম-গণতন্ত্র-উন্নয়নের জন্য হুমকি ও বিপদ হিসেবে দেখা দিয়েছে জঙ্গি সন্ত্রাস। বর্তমান অবস্থায় জঙ্গি-সন্ত্রাস নির্মূল বা দমনে সরকারের নেতৃত্বে জনগণ ঐক্যবদ্ধ। তাই বাংলাদেশের চলমান পরিস্থিতি হচ্ছে যুদ্ধ পরিস্থিতি। সব কিছুই জঙ্গি দমনের যুদ্ধের চশমা দিয়ে দেখতে হবে। এ যুদ্ধের ভেতরেই সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে নির্বাচন করতে হবে, যুদ্ধাপরাধী ও আগুন সন্ত্রাসীদের বিচার করতে হবে এবং সমৃদ্ধি ও উন্নয়ন ধারা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি দারিদ্র্য-বৈষম্য-দলবাজী-দুর্নীতি অবসানে পদক্ষেপ নিতে হবে।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, জঙ্গি-সন্ত্রাস সম্পূর্ণ ধ্বংস করতে হবে। জঙ্গি সঙ্গীর প্রধান পৃষ্ঠপোষক, আগুন সন্ত্রাসী ও খুনীদের ভয়ংকর সিন্ডিকেটের প্রধান, পাকিস্তানের নব্য দালাল বেগম খালেদা জিয়া এবং বিএনপিকে ক্ষমতা এবং রাজনীতির বাইরে রাখতে হবে এবং যথাসময়ে নির্বাচনও করতে হবে।
তিনি বলেন, রাজাকার-জঙ্গির সঙ্গীদের সাথে রাজনীতি ভাগ-বাটোয়ারার আপোসতত্ত্ব বন্ধ করতে হবে। রাজাকার আর জঙ্গিবাদীরা বাংলাদেশের ক্ষমতার প্রতিদ্বন্দ্বী নয় এবারই তা চূড়ান্তভাবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।
হাসানুল হক ইনু বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা এবং মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিই রাজনীতির মাঠে থাকবে। রাজাকার আর জঙ্গিরা কখনোই যাতে ক্ষমতা আর রাজনীতির প্রতিদ্বন্দ্বী হতে না পারে সে জন্য জঙ্গি-সঙ্গীর প্রধান পৃষ্ঠপোষক, আগুন সন্ত্রাসী খুনীদের ভয়ংকর সিন্ডিকেট প্রধান, পাকিস্তানের নব্য দালাল বেগম খালেদা জিয়াসহ অপরাধীদের ছাড় না দিয়ে বিচার করতে হবে।
তিনি বলেন, খালেদা জিয়া-বিএনপি রাজাকার-জঙ্গি-যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ নিয়ে জঙ্গি বিরোধী জাতীয় ঐক্যের বাইরে সচেতন অবস্থান গ্রহণ করেছেন। খালেদা জিয়ার জঙ্গির পক্ষ নেয়াটা কোন কৌশলগত অবস্থান নয়, বরং তা নীতি-আদর্শিক অবস্থান।
হাসানুল হক ইনু বলেন, ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস অস্বীকার করে প্রমাণ করেছে যে, খালেদা জিয়া পাকিস্তানের নব্য দালাল। জঙ্গিরা আগেই নির্মূল হতো, যদি খালেদা জিয়া এদের পৃষ্ঠপোষকতা না করতো। তাই জঙ্গি নির্মূলে খালেদা জিয়া এবং তার সঙ্গীদের বিচার নিশ্চিত করতে হবে।
জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি, কার্যকরী সভাপতি এড. রবিউল আলম, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আনোয়ার হোসেন, মীর হোসাইন আখতার, ইকবাল হোসেন খান, এড. হাবিবুর রহমান শওকত, নুরুল আখতার, সহ-সভাপতি আব্দুল হাই তালুকদার, ফজলুর রহমান বাবুল, এডভোকেট শাহ জিকরুল আহমেদ, কাজী রিয়াজ, আফরোজা হক রীনা, সফি উদ্দিন মোল্লা, মো. শহীদুল ইসলাম ও মোহর আলী চৌধুরী।

সম্পর্কিত সংবাদ