ঢাকা, মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারী ২০, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

প্রধানমন্ত্রী : ২১ বিশিষ্ট নাগরিককে প্রধানমন্ত্রীর একুশে পদক প্রদান   |   আবহাওয়া : রাত এবং দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : বিজয় সরকারের ১১৬তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে তিনদিনব্যাপী উৎসব শুরু   |    বিভাগীয় সংবাদ : জয়পুরহাটে স্কাউটিং বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন কোর্স অনুষ্ঠিত *চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য সম্মাননা পদক পাচ্ছেন ইবি শিক্ষক ড. রবিউল * জয়পুরহাটে অমর একুশে উদযাপনে কর্মসূচি গ্রহণ *সিলেট নগরীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় গ্রীন ভ্যালিসহ নতুন পরিকল্পনা   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ফিলিপাইনে ডায়রিয়ায় ১০ জনের মৃত্যু   |   

ক্যারিয়ার সেরা বোলিং রাজ্জাকের

ঢাকা, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ (বাসস) : দীর্ঘ চারবছর জাতীয় দলের বাইরে ছিলেন ৩৫ বছর বয়সী স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক। ঘরোয়া ক্রিকেটে বল হাতে সফল হলেও, রাজ্জাকের ক্যারিয়ারের শেষই ধরে নিয়েছিলেন সবাই। চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টেও দলে থাকলেও একাদশে ছিলেন না। সেই রাজ্জাকই চমক জাগিয়ে ফিরলেন টেস্ট দলে, যে ফরমেটে তার বড় কোনো সাফল্য নেই বললেই চলে। তবে বয়সে ভাটার টান ধরলেও বাঁহাতি এ স্পিনার যে ফুরিয়ে যাননি দেখিয়ে দিলেন পারফর্ম করেই, প্রত্যাবর্তনের ম্যাচেই ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করলেন তিনি।
এক সময় ওয়ানডেতে একটা সময় দলে অপরিহার্য ছিলেন। তবে টেস্টে কখনই নিজেকে সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি রাজ্জাক। ২০০৬ সালে টেস্ট অভিষেক হলেও ২০১৪ সাল পর্যন্ত আট বছরে মাত্র ১২টি টেস্ট খেলার সুযোগ পান রাজ্জাক। পারফরম্যান্সটাও ভালো ছিল না। ১২ টেস্টে মাত্র ২৩টি উইকেট নেন তিনি, যার মধ্যে একবারও ছিল না পাঁচ উইকেট।
রাজ্জাকের ক্যারিয়ার সেরা বোলিং ছিল ২০০৮ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চট্টগ্রামে। সে টেস্টে ৯৩ রানে তিনটি উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। ক্যারিয়ারে আরও দুইবার তিন উইকেট আছে রাজ্জাকের। তবে এর বেশি উইকেট নিতে পারেননি। এবার ঢাকা টেস্টে প্রায় চার বছর পর সুযোগ পেয়েই ঝলক দেখালেন বাঁহাতি এ স্পিনার।
শ্রীলঙ্কার ইনিংসে টপঅর্ডারের পাঁচ ব্যাটসম্যানের চারজনই শিকার রাজ্জাকের। শেষ পর্যন্ত এই টেস্টের প্রথম ইনিংসে তার বোলিং ফিগার ১৬-২-৬৩-৪। টেস্ট ক্যারিয়ারে এটিই এখন রাজ্জাকের ক্যারিয়ারসেরা বোলিং।
চার বছর পর রাজ্জাক একাদশে ফিরলেও প্রায় সাড়ে চার বছর পর আবারও টেস্ট উইকেট পেলেন তিনি। সর্বশেষ তিনি টেস্ট উইকেট পেয়েছিলেন ২০১৩ সালের ২৩ অক্টোবর, ঢাকায় মিরপুরের মাঠেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। এরপর যদিও আর একটি মাত্র টেস্ট খেলতে পেরেছিলেন রাজ্জাক। ২০১৪ সালের ৪ থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। ওই টেস্টে মাত্র চার ওভার বোলিং করার সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। উইকেটের দেখা পাননি। রান দিয়েছিলেন ছয়টি। ফিগারটা দাঁড়াচ্ছে ৪-১-৬-০। এরপর থেকেই সাদা পোশাকে আর দেখা যায়নি বাংলাদেশের অন্যতম সেরা স্পিনারকে। প্রথম ইনিংসের সফলতায় দ্বিতীয় ইনিংসেও রাজ্জাক আবারো সাফল্যের প্রত্যাশায়।