ঢাকা, বুধবার, জানুয়ারী ১৭, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

প্রধানমন্ত্রী : উন্নত দেশগুলোকে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর আহবান প্রধানমন্ত্রীর   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কমবে   |   খেলাধুলার সংবাদ : জুনে ব্যাঙ্গালুরুতে ইতিহাসের প্রথম টেস্ট খেলবে আফগানিস্তান * মিরপুর স্টেডিয়ামের শততম ওয়ানডে ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিং-এ শ্রীলংকা   |    জাতীয় সংবাদ : ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচন স্থগিত * নবম ওয়েজ বোর্ডে সাংবাদিকদের স্বার্থ গুরুত্ব পাবে: তারানা হালিম * আপিল শুনানির কার্যতালিকায় যুদ্ধাপরাধী আজহার-কায়সার-সুবহানের মামলা   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ফিলিস্তিনের জন্য জাতিসংঘ সংস্থা থেকে বরাদ্দকৃত অর্থ প্রত্যাহার যুক্তরাষ্ট্রের * মিয়ানমারে রাখাইন বৌদ্ধদের ওপর পুলিশের হামলা ॥ নিহত ৭ * পেরুর সাবেক প্রেসিডেন্টের হাসপাতাল ত্যাগ * মেক্সিকোয় গণকবর থেকে ৩২টি লাশ উদ্ধার    |   

মেলবোর্নের পিচ নিয়ে অখুশী স্মিথ ও রুট

মেলবোর্ন, ৩০ ডিসেম্বর ২০১৭ (বাসস/এএফপি) : ব্যাটসম্যানদের রাজত্বের মধ্য দিয়েই শেষ হলো অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের বক্সিং-ডে টেস্ট। অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ও অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথের জোড়া সেঞ্চুরির সাথে ইংল্যান্ডের সাবেক দলপতি অ্যালিষ্টার কুকের ডাবল-সেঞ্চুরির দাপটে ড্রতে শেষ অ্যাশেজের চতুর্থ টেস্ট। কিন্তু বোলাররা কোন সুযোগ না পাওয়ায় মেলবোর্নের পিচ নিয়ে অখুশী দুই অধিনায়ক অস্ট্রেলিয়ার স্মিথ ও ইংল্যান্ডের জো রুট।
২০ বছরের রেকর্ডে এই নিয়ে দ্বিতীয়বার বক্সিং-ডে টেস্ট ড্র হলো। এতেই ক্ষুব্ধ স্মিথ ও রুট। টেস্টের পুরো পাঁচদিন ২৪ উইকেটের পতন হয়। রান উঠে ১০৮১। পুরো টেস্টে দাপট দেখিয়েছে ব্যাটসম্যানরা। বোলাররা ছিল অসহায়। এ ফ্লাট পিচে খেলা শুরু করে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ড। আশা করা হয়েছিলো দিন গড়ানোর সাথে পিচের চেহারায় পরিবর্তন আসবে। কিন্তু তাদের আশায় গুড়েবালি।
প্রথম দিন যেমনটা ছিলো, শেষদিনও তেমনই পিচের অবস্থায় দেখেছেন স্মিথ ও রুট। তাই স্বাচ্ছেন্দ্যই অধিনাকোচিত ইনিংস খেলে ইংল্যান্ডকে জয় বঞ্চিত করেন স্মিথ। দলের হার এড়ালে পিচ নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন স্মিথ, পাঁচদিনেও পিচের কোন পরিবর্তন হয়নি। আমার মনে হয় আমরা যদি আগামী কয়েকদিনও এখানে খেলতে থাকি, তারপরও পিচে কোন পরিবর্তন আসবে না। পেসাররা এই পিচ থেকে সুইং ও বৈচিত্র্যময় বোলিং-এ চেষ্টা করেছে। স্পিনাররাও চেষ্টা করেছে সুবিধা নিতে। কিন্তু কোন পরিকল্পনাই কাজে দেয়নি। এমন পিচে বোলারদের সাফল্য পাওয়া অনেক কঠিন। এমন পিচ টেস্ট খেলার জন্য মোটেও উপযোগী নয়।
স্মিথের মত একই সুরে কথা বললেন ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জো রুটও। তার মতে, এটি বক্সিং-ডে টেস্ট খেলার জন্য নয়। এমন পিচে কোন ফলাফল আশা করা বা ফলাফলের জন্য লড়াই করা বোকামি। আমার মনে হয়, একজন খেলোয়াড় হিসেবে সামনে যা আসবে তাই করা উচিত। আমরাও তাই করেছি। কিন্তু আমাদের কাঙ্খিত সাফল্যের দেখা পায়নি। অবশ্যই ভালো পারফরমেন্সের পর আপনি ফলাফল দেখতে চাইবেন। কিন্তু আমরা তা করতে পারিনি। এজন্য পিচই দায়ী। আমরা আমাদের সামর্থ্যের সবটুকু উজার করে দিয়েছি। কিন্তু পিচ খেলার অনুপযোগি থাকলে ফলাফল পাওয়া কঠিন।
স্মিথ-রুটের মত পিচ নিয়ে ক্ষুব্ধ ছিলেন ইংল্যান্ডের সাবেক অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুকও। ইংলিশদের একমাত্র ইনিংসে ২৪৪ রান করে ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হওয়া কুক বলেন, আমার মনে হয়, গ্রাউন্ডসম্যানরা পিচের উপর রোলিং করতে অনেক বেশি পছন্দ করেন। যদি ফ্লাট পিচ দেখে খেলা শুরু করা হয়, তবে তৃতীয়-চতুর্থ ও শেষ দিনে পিচ থেকে সুবিধার প্রত্যাশ করা যায়। কিন্তু এবার তার ছিটেফোটাও দেখা যায়নি।
এই বছর ভারতের বিপক্ষে রাজকোটের পর টেস্ট ফরম্যাটে প্রথম ড্রর স্বাদ নিলো ইংল্যান্ড।