ঢাকা, মঙ্গলবার, জানুয়ারী ১৬, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

আবহাওয়া : আগামীকাল থেকে দক্ষিণাঞ্চলের শৈতপ্রবাহ কেটে যেতে পারে   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : জাপানের জলসীমায় ভেসে আসা নৌকা থেকে ৮ জনের লাশ উদ্ধার * লিবিয়ার পশ্চিম উপকূল থেকে অবৈধ ৩৬০ শরণার্থী উদ্ধার   |   

প্রথম জয়ের লক্ষ্য নিয়ে দ. আফ্রিকা যাচ্ছে উড়তে থাকা ভারত

নয়া দিল্লি, ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৭(বাসস/এএফপি) : রেকর্ড টানা দশম টেস্ট সিরিজ জয়ের লক্ষ্য নিয়ে কঠিন দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাচ্ছে বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন উড়তে থাকা ভারতীয় ক্রিকেট দল। তবে দক্ষিণ আফিকার মাটিতে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করতে হলে খারাপ সফরকারী দলের তকমা থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে ভারতকে।
নিজ মাঠে এক মৌসুমে নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিযার মত শক্তিশালী তিন দলকে হারিয়ে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে উঠেছে ভারত। তবে বিদেশের মাটিতে উপমহাদেশের দলটির রেকর্ড মোটেই ভাল নয়। শক্তিশালী দল হিসেবে কেবলমসাত্র নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বিদেশের মাটিতে সর্বশেষ তারা সিরিজ জয় করেছে ২০০৮-০৯ মৌসুমে। নিউজিল্যান্ড সফরে তিন টেস্ট সিরিজে ১-০ ব্যবধানে জয়ী হয়েছিল ভারত।
কোহলির অবর্তমানে সম্প্রতি সিমিত ওভারের ক্রিকেট ভারতীয় দলের নেতৃত্ব দেয়া রোহিত শর্মা বলেন, আমরা দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের অপেক্ষায় আছি। এ সফরটি ভিন্নধর্মী একটি চ্যালেঞ্জ হবে।
তবে আমি আমাদের ঘরোয়া মৌসুমের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাই, কোন দলকে হারনোটাই সহজ নয়। বিভিন্ন সময়ে আমরা চ্যালেঞ্জর মুখোমুখি হয়েছি এবং ফিরে এসেছি।
বিদেশের মাটিতে গত দুই বছরে কেবলমাত্র দুর্বল ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও শ্রীলংকার বিপক্ষে সাফল্য পাওয়া ও নিজ মাঠে ভারতের দুরন্ত নৈপুণ্যের কারণে ক্রিকেট বোদ্ধাদের অনেকের মতেই দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বিরাট কোহলির দলকে কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে। বর্তমানে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ের দ্বিতীয় স্থানে থাকা প্রোটিয়ারা নিজ মাঠে কখনোই ভারতের কাছে হারেনি।
দুই মাসব্যাপী দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ভারতয়ি দল তিন টেস্ট, ছয় ওয়ানডে এবং তিনটি টি-২০ ম্যাচ খেলবে। কেপ টাউনে ৫ জানুয়ারি প্রথম টেস্ট শুরু হবে।
ভারতের সাবেক অধিনায়ক বিষেন সিং বেদি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ২০১৭ সালটা ভারত দারুন কাটিয়েছে। এশিয়ার বাইরেও কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে তাদের এ ফর্মটা ধরে রাখতে হবে। কখনোই আপনি কেবলমাত্র অতীতকে নিয়ে বসে থাকতে পারবেন না।
সাবেক এ স্পিনার আরো বলেন, আপনি সেরা দল সেটা বিশ্বকে নয়, আপনাকেই প্রমাণ করতে হবে। শীর্ষ স্থানে যাওয়াটা মোটেই সহজ নয়, তবে সেটা ধরে রাখাটা অনেক বেশি কঠিন।
স্বাগতিক হিসেবে অস্ট্রেলিয়া ২০১৬-১৭ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হেরেছে। আগের মৌসুমে সফরকারী প্রোটিয়াদের হারিয়েছে সফরকারী ইংল্যান্ড। টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলো সব সময়ই নিজ মাঠে ভাল করে আসছে।
টেস্ট ক্রিকেটে এক সময় দেশে বাঘ, বিদেশে বিড়াল হিসেবে পরিচিতি পাওয়া ভারতের সামনে সুযোগ আছে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে নতুন ইতিহাস সৃষ্টির।
প্রখ্যাত ক্রীড়া সাংবাদিক আয়াজ মেনন বলেন, অধিকাংশ দলই নিজ মাঠে ভাল করে এবং বিদেশে সমস্যায় পড়ে। সুতরাং সে খোলস থেকে বেড়িয়ে আসতে এটা ভারতের জন্য একটা ভাল সুযোগ।
তিনি আরো বলেন, ভারত সফরে ২০১৫ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা অত্যন্ত শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়েছিল। ভারত হয়তোবা অনেক টেস্ট ম্যাচ জিতেছে। তবে দক্ষিণ আফ্রিকা কিংবা অস্ট্রেলিযার মাটিতে কখনো একটা সিরিজ জিততে পারেনি।
-মৌখিক তর্ক-
দক্ষিণ আফ্রিকার পেস সহায়ক পিচে পেসার মোহাম্মদ সামি, উমেষ যাদব, ইশান্ত শর্মা এবং ভুবনেশ্বর কুমারের কাছ থেকে ভাল কিছু আশা করছে ভারত।
শ্রীলংকার বিপক্ষে কয়েক দিন আগে শেষ হওয়া সিরিজে ভারতের ১-০ ব্যবধানে জয়ী হতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন ফাস্ট বোলাররা। তাদের নৈপুণ্যেই টানা নয় টেস্ট সিরিজ জিতে অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ড স্পর্শ করে ভারত।
ভারনন ফিলান্ডার, কাগিসো রাবাদ এবং ডেল স্টেইনের সমন্বয়ে গঠিত প্রোটিয়া পেস আক্রমণের বিপরীতে টেস্টে অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা উঠতি ফাস্ট বোলার জসপ্রিত বুমরাহ, হার্ডিক পান্ডিয়াকেও দলভুক্ত করেছেন ভারত।
বেদি বলেন, একটা মোমেন্টামে থাকায় ভারতীয় দলের সামনে একটা সুযোগ এসেছে। এখন পেস বিভাগকে জ্বলে উঠতে হবে।
তবে ভাল বোলিং, সেটা স্পিন কিংবা পেস প্রতিপক্ষকে দুইবা আউট করার সুযোগ পাচ্ছে বলে সতর্ক উচ্চারণ করেন তিনি।
সাবেক এ তারকা স্পিনার বলেন, খুব বেশি মৌখিক তর্ক অথবা হুমকি ধমকি দেয়া যাবে না। তোমার প্রথম কাজ হচ্ছে উইকেট শিকার করা।
ফর্মের তুঙ্গে থাকা কোহলির নেতৃত্বাধীন দলটির জন্য কিছুটা দুঃশ্চিন্তার বিষয় সহ-অধিনায়ক আজিঙ্কা রাহানের ফর্মও।
দুই টেস্ট সিরিজে ১-০ ব্যবধানে পরাজিত হওয়া ২০১৩-১৪ মৌসুমে ভারতীয় দলের শেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে রাহানের ব্যাটিং গড় ছিল ৬৫ রানের বেশি। অথচ রাহানে নিজের শেষ ৫ ইনংসে করেছেন মাত্র ১৭ রান। কোচ রবি শাস্ত্রি বলেন, টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের সমন্বিতভাবে জ্বলে ওঠাটা কেবল সময়ের ব্যাপার মাত্র।
সিএনএন নিউজ চ্যানেলকে শাস্ত্রি বলেন, বিষয়টা এমন নয় যে তারা মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছে। এটা কেবলমাত্র মাঠে কিছুটা সময় কাটানো এবং পায়ের কাজটা ঠিকভাবে করা। তবেই ছন্দে ফিরবে।
তিনি বলেন, আমি মনে করছি, লড়াইটা ভারতীয় ব্যাটিং বনাম দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটিং। উভয় দলেরই আছে ভাল বোলিং আক্রমণ। আমার ধারণা, আমাদের বোলাররা খুবই ভাল করবে। তবে নির্ভর করবে আমাদের ব্যাটসম্যানরা কেমন করে তার ওপর।