ঢাকা, শনিবার, ফেব্রুয়ারী ২৪, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

শিক্ষা : ২০২১ সালের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীকে স্বাস্থ্যবীমা প্রকল্পের আওতায় আনা হবে : উপাচার্য   |    জাতীয় সংবাদ : বিএনপি অপরাধীদের দলে ভিড়িয়ে সমাজে হালাল করার রাজনীতি করে : ইনু * শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে দেশের উন্নয়ন হয় : তোফায়েল * তথ্য প্রযুক্তি খাতে নারীর অংশগ্রহণ বাড়াতে সরকারের বিশেষ প্রকল্প   |   আবহাওয়া : রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দুএক জায়গায় বৃষ্টি হতে পারে    |   খেলাধুলার সংবাদ : দশ বছর পরে জিম্বাবুয়ে দলে ডাক পেলেন জুওয়াও *দুবাইয়ে খেলছেন না ফেদেরার   |    বিভাগীয় সংবাদ : কেরানীগঞ্জে ট্রাক-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহত   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : মোগাদিশুতে বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৮ *উ.কোরিয়ার বিরুদ্ধে এ যাবতকালের সবচেয়ে কঠিন অবরোধ আরোপের ঘোষণা ট্রাম্পের *মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রাজধানীতে ৩টি বোমা বিস্ফোরণ   |   

চিলিচকে হারিয়ে রেকর্ড ৮ম উইম্বলডন শিরোপা জিতলেন ফেদেরার

লন্ডন, ১৭ জুলাই (বাসস) : ফেদেরার সর্বশেষ উইম্বলডন শিরোপা জয় করেছিলেন ৫ বছর আগে। দীর্ঘ বিরতির পর রেকর্ড অষ্টমবারের মতো অল ইংল্যান্ড ক্লাব শিরোপা জয়ের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছেন রজার ফেদেরার। এর মাধ্যমে আধুনিক যুগে সবচেয়ে বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে পুরুষ টেনিসের শিরোপা জয়ের সুযোগ সৃস্টি হয়েছে এই সুইস তারকার। এই কথাগুলো এখন ইতিহাস- ক্রোয়েশিয়ান মারিন চিলিচকে ফাইনালে পরাজিত করে সব কথাই বাস্তবে রূপ দিয়েছেন সুইস সেনসেশন।
রোবার অল ইংল্যান্ড ক্লাবে ফাইনালে ইনজুরি আক্রান্ত চিলিচকে ৬-৩, ৬-১, ৬-৪ গেমের সরাসরি সেটে পরাজিত করে ৩৫ বছর বয়সে ক্যারিয়ারের ১৯তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা জয় করেছেন ফেদেরার। এর আগে ১৯৭৬ সালে ৩২ বছর বয়সী যুক্তরাষ্ট্রের আর্থার এ্যাশ উইম্বলডনের শিরোপা জয় করে এতদিন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশী বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে এই রেকর্ড ধরে রেখেছিলেন। এই নিয়ে ১১বার উইম্বলডনের ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলেন সুইস সুপারস্টার। একইসাথে এটা তার ২৯তম মেজর টুর্নামেন্ট ফাইনাল।
সপ্তম বাছাই চিলিচ অবশ্য ইনজুরি সত্বেও শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে গেছেন। দ্বিতীয় সেটে ৩-০ গেমে পিছিয়ে থাকার পরে ইনজুরিতে পড়া চিলিচকে এক পর্যায়ে কাঁদতেও দেখা গেছে। বাম পায়ে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নিয়ে তাকে কোর্টে নামতে হয়েছিল। আবেগী চিলিচ দ্বিতীয় সেটে ফেদেরারের বিপক্ষে কোন লড়াই করতে না পারলেও তৃতীয় সেটে ঠিকই ফিরে এসেছিলেন। কিন্তু প্রচন্ড আত্মবিশ্বাসী ফেদেরার একের পর এক শক্তিশালী ফোরহ্যান্ড, ব্যাকহ্যান্ড শটে শেষ পর্যন্ত পরাস্ত হতে হয় ২৮ বছর বয়সী চিলিচকে। ১৯৭৬ সালে কিংবদন্তী বিওন বর্গের পরে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে পুরো টুর্ণামেন্টে একটি সেটও পরাজিত না হয়ে চ্যাম্পিয়নশীপ নিশ্চিত করেছেন ফেদেরার।
ঠিক এক বছর আগে এই অল ইংল্যান্ড ক্লাবেই সেমিফাইনালে মিলোস রাওনিকের কাছে পাঁচ সেটের লড়াইয়ে পরাজিত হয়ে বিদায় নিতে হয়েছিল ফেদেরারকে। তারপরপরই হাঁটুর ইনজুরির কারনে তিনি মৌসুমের বাকি সময়টা বিশ্রামে চলে গিয়েছিলেন। ম্যাচ শেষে চিলিচের প্রশংসা করতে ভুল করেননি ফেড এক্স। শিরোপা হাতে নিয়ে ফেদেরার বলেছেন, সত্যিকার অর্থেই সে একজন নায়ক। আমার এখনো বিশ্বাস হচ্ছেনা এই শিরোপা আমি জয় করেছি। গত বছরের পরে আরেকটি ফাইনালে আবারো খেলতে পারবো সেটাও জানা ছিল না। বেশ কয়েকটি ফাইনালে আমাকে বেশ কঠিন লড়াইয়ে মুখে পড়তে হয়েছে। নোভাক জকোভিচের কাছে দুইবার পরাজিত হয়েছি। কিন্তু আমি সবসময়ই নিজের ওপর বিশ্বাস রেখেছি। আবারো ফিরে আসার স্বপ্ন সবসময়ই দেখেছি। আজ অষ্টম শিরোপা হাতে দাঁড়িয়ে আছি। এটা সত্যিই অসাধারণ, নিজের ওপর বিশ্বাস রাখলে জীবনে অনেক দুর যাওয়া যায়, আজ তার প্রমাণ আরেকবার পেলাম।
ইনজুরির কারণে দীর্ঘ ছয় মাস টেনিসে অনুপস্থিত থাকার পর জানুয়ারিতে অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জয় করেছেন ফেদেরার। পর পর ইন্ডিয়ান ওয়েলস ও মায়ামি মাস্টার্স জয় করার পরে নবমবারের মত হল গ্রাসকোর্ট শিরোপা দখল করেন। উইম্বলডনের জন্য নিজেকে শতভাগ প্রস্তুত করার তাগিদে পুরো ক্লে কোর্ট মৌসুম বিশ্রামে থেকেছেন।
ফাইনালে পুরো ম্যাচে চিলিচের পাঁচটির বিপরীতে ফেদেরার এস মেরেছেন ৮টি। প্রথম সার্ভিসে ফেদেরার ৭৬ শতাংশ সফল হলেও চিলিচ ছিলেন ৬০ শতাংশ। ডাবল ফল্ট ফেদেরার করেছেন দুটি, আর চিলিচ ৩টি। নেট পয়েন্ট জয়ে অবশ্য চিলিচ এগিয়ে ছিলেন, তার ১২ পয়েন্টের বিপরীতে ফেদেরার জয় করেছেন মাত্র ৬টি। চতুর্থ গেমে চিলিচ প্রথম ব্রেক পয়েন্ট পেলেও তা রক্ষা করেন ফেদেরার। পুরো ম্যাচে এই একটিবারই চিলিচ এগিয়ে যাবার সুযোগ পেয়েছিলেন। পরের গেমে ফেদেরার ব্রেক পয়েন্ট নিয়ে এগিয়ে যান। এরপরই চিলিচের ডাবল ফল্টের সুযোগে ফেদেরার দুটি সার্ভিস ব্রেক করে প্রথম সেটে ৬-৩ গেমে এগিয়ে যান।
দ্বিতীয় সেটে সুইস সুপারস্টার ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়ে পুরো ফাইনালের আবহ পাল্টে দেন। ঐ সময়ই মূলত চিলিচ ইনজুরিতে পড়েন। দ্বিতীয় সেটটি ৬-১ ব্যবধানে পরাজয়ের পর চিলিচ মূলত কিছুটা ভেঙ্গে পড়েন। তৃতীয় সেটে অবশ্য প্রথম থেকেই চিলিচ নিজেকে ম্যাচে ধরে রাখার চেষ্টা করেছেন। তার ফলও পেয়েছেন প্রথম তিনটি গেম জয় করে। চতুর্থ গেমে এসে ব্রেক পয়েন্ট অর্জন করেন ফেদেরার। এরপর ১ ঘন্টা ৪১ মিনিটের লড়াইয়ে ক্যারিয়ারের অষ্টম শিরোপা নিশ্চিত করেন ফেদেরার।