ঢাকা, রবিবার, অক্টোবর ২২, ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম 

প্রধানমন্ত্রী : সরকারি-বেসরকারি সম্মিলিত উদ্যোগে দেশে নিরাপদ সড়ক সম্ভব : প্রধানমন্ত্রী * রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের ওপর আরো চাপ দিন : প্রধানমন্ত্রী   |    অর্থনীতি : পেপল সার্ভিসে রেমিটেন্স প্রবাহ বৃদ্ধি পাবে   |    জাতীয় সংবাদ : নতুন করে আসা রোহিঙ্গাদের সহায়তা দেয়া হচ্ছে : ইউএনএইচসিআর * প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিবের বাসস অফিস পরিদর্শন * আগামীকাল আসছেন সুষমা স্বরাজ * স্থল নিম্নচাপটি ক্রমান্বয়ে দুর্বল হয়ে যেতে পারে * বাংলাদেশের বন্ধু মুক্তিযোদ্ধা ম্যারিনো রিগন আর নেই   |    জাতীয় সংবাদ : আদর্শবান মানুষদের রাজনীতিতে আসা উচিত : শিল্পমন্ত্রী * ৩শ ৬০ টি বধ্যভূমির তালিকা তৈরি করা হয়েছে : মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী * রোহিঙ্গাদের জঙ্গিবাদী কাজে ব্যবহার করতে একটি মহল তৎপর হয়ে উঠেছে : কামরুল ইসলাম   |   শিক্ষা : ঢাবি ১ম বর্ষ স্নাতক সম্মান শ্রেণীর খ ইউনিটের ভর্তিচ্ছুদের সাক্ষাৎকারের তারিখ পরিবর্তন   |   রাষ্ট্রপতি : স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রাষ্ট্রপতির লন্ডন যাত্রা * সড়ক দুর্ঘটনা রোধে বিকল্প যানবাহনের টেকসই পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে হবে : রাষ্ট্রপতি * স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রাষ্ট্রপতির লন্ডনে পৌঁছেছেন   |   আবহাওয়া : আগামীকাল সকাল পর্যন্ত বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকতে পারে   |   খেলাধুলার সংবাদ : শেষ ম্যাচে জয় চায় বাংলাদেশ * ছেলেবেলার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে হাসান আলীর *আগুয়েরোকে ডাকা হলেও আবরো বাদ হিগুয়েইন * ২০১৮ সালে ফুটবল ক্যারিয়ার শুরু করতে চান বোল্ট * কোহলি-ধোনির বিপক্ষে বোলিং করলেন অর্জুন   |    জাতীয় সংবাদ : ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা : ২৩ অক্টোবর থেকে যুক্তিতর্ক * সারাদেশে ৮৪ হাজার ভূমিহীন পরিবারকে খাসজমি দেয়া হয়েছে : ভূমিমন্ত্রী * জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্যরা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবে : ওবায়দুল কাদের   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : মালয়েশিয়ায় ভূমিধসে ১৪ জনের মৃত্যুর আশংকা * সোমালিয়ায় গাড়ি বোমা হামলা : মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৫৮ *আফগানিস্তানে মসজিদে আত্মঘাতী হামলার নিন্দা জাতিসংঘ মহাসচিবের * মিসরে সড়ক দুর্ঘটনায় ১৬ জন নিহত   |   

ঝিনাইগাতী উপজেলার ঘাঘড়া গ্রাম এখন আগরবাতির কাঠি পল্লী হিসেবে পরিচিত

॥ সঞ্জীব চন্দ বিল্টু ॥
শেরপুর, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ (বাসস) : সীমান্তবর্তী জেলা শেরপুর শহর থেকে ১২ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে ঝিনাইগাতি উপজেলার হাতিবান্ধা ইউনিয়ন। এ ইউনিয়নেরই একটি গ্রাম ঘাগড়া। আর ঘাগড়ার কোনা পাড়াটিই এখন আগরবাতির কাঠি পল্লী হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। ৫ বছর আগেও যে গ্রামের অধিকাংশ মানুষ বসবাস করত নিত্য অভাবের সাথে, এখন তারা সে অভাব ঘোচাতে সক্ষম হয়েছে।
অর্থনৈতিক ভাবে গ্রামটিও চিত্র পাল্টে গেছে । এর মূলে যে ব্যক্তি কাজ করেছেন তার নাম ইউসুফ আলী (৫০)। তিনি একজন সফল উদ্যোগী। পাঁচ বছর আগে তিনি এলাকা থেকে খাড়াজোরা গাছের ছাল সংগ্রহ করে ঢাকায় নিয়ে গিয়ে বিক্রি করে সংসার চালাতেন।এখন তারও ভাগ্য পাল্টে গেছে।
ইউসুফ আলী একদিন ঢাকায় দেখতে পান শত শত শ্রমিক আগরবাতির কাঠি তোলার কাজ করছে। কাঠি তোলার মালিকের সাথে তিনি কথা বললেন এবং সিদ্ধান্ত নিলেন নিজ এলাকায় এ কাজটি শুরু করবেন। ঢাকা থেকে শ্রমিক এনে নিজ বাড়িতে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করলেন বাঁশের শলা তোলার কাজ। প্রায় দেড়মাস ঢাকার শ্রমিকের কাছ থেকে শিক্ষা নেয়, কাজ করতে আগ্রহী গ্রামের অনেক বেকার ও স্কুল পড়য়া ছেলেমেয়ে।
ঢাকার শ্রমিক চলে যাবার পর গ্রামের বেকার ও দরিদ্র মানষেরা আর্র্থিক সমস্যা থেকে পরিত্রান পায়। ধীরে ধীরে গ্রামের প্রায় ৫ শতাধিক নারী-শিশু এমনকি স্কুলপড়ুয়া দরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীরাও এসে যোগ দেয় এ কাজে। মাত্র ৫ বছরেই পাল্টে যায় গ্রামের চিত্র। পাশাপাশি ঘাঘরা কোনা পাড়া গ্রামের নাম পরিচিতি হয়ে উঠে কাঠি পল্লী হিসেবে।
কাঠি শ্রমিক সোনিয়া খাতুন (৪৫) জানায়, স্বামী মারা গেছে অনেক আগে। অভাবের এ সংসারে সন্তানও রয়েছে। তাই পেটের তাগিদে বেছে নেয় কাঠি তোলার কাজ। প্রতিদিন সে ১২-১৫ কেজি কাঠি তুলতে পারে। কেজি প্রতি ১০ টাকা করে পায়। এতে যা টাকা পায় সে তাতে তার ছাট সংসার যায়।
বাঁশকাটা শ্রমিক শফিকুল (২৮) জানায়, প্রতিদিন ২০ থেকে ২২ মণ বাঁশ কাটতে পারি। টুকরো টুকরো করে সে বাঁশ কাটে। এতে প্রতিমণ ২০ টাকা পায় সে । দিনে ২০০ থেকে ২৫০ টাকা রোজগার করতে পারে। এ দিয়ে তার সংসার চলছে।
ইউসূফ আলী জানান, প্রথমে আমি একা এ ব্যবসা শুরু করলেও বর্তমানে আমার দেখাদেখি এ গ্রামের আরও ৫ থেকে ৬ জন এ ব্যবসায় নেমেছেন। প্রতিমাসে ২ বার ঢাকার মীর হাজারীবাগ, যাত্রাবাড়ি ও রায়েরবাগ বাজারসমূহে এ শলা বিক্রি করে থাকি। বাঁশ কেনা থেকে শুরু করে বাঁশ কাটা ও শলা তোলাসহ যাবতীয় ব্যয় বাবদ প্রতিকেজি শলায় আমার ব্যয় হয় প্রায় ২৫ টাকা। আর ঢাকায় নিয়ে তা বিক্রি করি ৩৩ থেকে ৩৫ টাকা কেজি দরে।এভাবে প্রতিমাসে ২০০ থেকে ২৫০ মণ পর্যন্ত আগর বাতির বাঁশের শলা বা কাঠি বিক্রি করে পারি। এ ব্যবসায় শুধু আমিই স্বাবলম্বী হইনি। এলাকার শতশত মানুষের রুটি রোজগারের ব্যবস্থা হয়েছে।
ঝিনাইগাতী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বাদশা জানান, ঘাঘরার শ্রমিকেরা আগরবাতির কাঠি তৈরি করে জীবিকা অর্জনে ভূমিকা রাখছে। তারা যদি সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা চায় তাদের জন্য উপজেলা পরিষদ সহায়তা করবে।