ঢাকা, বুধবার, জানুয়ারী ১৭, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

প্রধানমন্ত্রী : উন্নত দেশগুলোকে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর আহবান প্রধানমন্ত্রীর   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কমবে   |   খেলাধুলার সংবাদ : জুনে ব্যাঙ্গালুরুতে ইতিহাসের প্রথম টেস্ট খেলবে আফগানিস্তান * মিরপুর স্টেডিয়ামের শততম ওয়ানডে ম্যাচে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিং-এ শ্রীলংকা   |    জাতীয় সংবাদ : ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচন স্থগিত * নবম ওয়েজ বোর্ডে সাংবাদিকদের স্বার্থ গুরুত্ব পাবে: তারানা হালিম * আপিল শুনানির কার্যতালিকায় যুদ্ধাপরাধী আজহার-কায়সার-সুবহানের মামলা   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ফিলিস্তিনের জন্য জাতিসংঘ সংস্থা থেকে বরাদ্দকৃত অর্থ প্রত্যাহার যুক্তরাষ্ট্রের * মিয়ানমারে রাখাইন বৌদ্ধদের ওপর পুলিশের হামলা ॥ নিহত ৭ * পেরুর সাবেক প্রেসিডেন্টের হাসপাতাল ত্যাগ * মেক্সিকোয় গণকবর থেকে ৩২টি লাশ উদ্ধার    |   

ভারতে গৃহকর্মীকে ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে ব্যবসায়ী ও তার গৃহকর্মীর মৃত্যুদণ্ড

নয়াদিল্লী, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৭ (বাসস ডেস্ক) : ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লীর উপশহর নয়দা নগরীতে ২৫ বছর বয়সী এক গৃহকর্মীকে ধর্ষণ ও নির্মমভাবে হত্যার দায়ে এক ব্যবসায়ী ও তার অপর এক গৃহকর্মীকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছে একটি বিশেষ আদালত। ২০০৬ সালে নির্মম হত্যাকা-টি ঘটে।
শুক্রবার ইন্ডিয়ান সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগ্যাশন (সিবিআই)র আদালত এ রায় প্রদান করে।
খবর সিনহুয়ার।
ব্যবসায়ী মনিন্দ্র সিংহ পানধার ও তার পুরুষ গৃহকর্মী সুরিন্দ্র কোলির বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার একদিন পর এ রায় দেয়া হল।
নোইদার নিথারি গ্রামে ওই ব্যবসায়ীর নিজ বাড়িতে এ অপরাধ সংঘটিত হয়।
কোলির বিরুদ্ধে এই অপরাধ ছাড়াও আগে আরো আটটি অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে। তাকে মৃত্যুদ- দেয়া হয়েছে। পানধানের বিরুদ্ধে তিনটি মামলায় অভিযোগ করা হয়। এর দুটি প্রমাণিত হওয়ায় তাকেও মৃত্যুদ- প্রদান করা হয়েছে।
মৃত্যুদ-াদেশ প্রদানকালে বিশেষ সিবিআই আদালতের বিচারক পি.কে. তিওয়ারি বলেন, কোলি ও পানধার দু,জনেই ২০০৬ সারৈ গৃহকর্মী অঞ্চলীকে ধর্ষণ ও হত্যার সঙ্গে জড়িত। তারা কঠোর শাস্তি পাওয়ার যোগ্য।
আদালতের পক্ষ থেকে বলা হয়, কোলি ওই গৃহকর্মীকে টেনে হ্যাচড়ে বাড়িতে নিয়ে আসে, তাকে অচেতন করে ধর্ষণ করে এবং তারপর মেয়েটির মাংস খায়। তাই তাকে মৃত্যুদ- দেয়া ছাড়া আইনের কাছে আর কোন বিকল্প নেই। পানধারও একই অপরাধে জড়িত। তাদের দুজনকেই ফাঁসিতে ঝলিয়ে মৃত্যুদন্ড কর্যকর করা হবে।
অঞ্জলী নোইদায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। ২০০৬ সালের অক্টোবরে তিনি নিখোঁজ হয় বলে জানান হয়। ডিসেম্বর মাসে কোলিকে গ্রেফতার করার পর তার হত্যাকা-টির ব্যাপারে পুলিশ জানতে পারে। ওই বছরই পুলিশ মানধারের বাড়ির কাছ থেকে ১৬ জনের খুলি ও হাড় উদ্ধার করে। এদের অধিকাংশই শিশু।