ঢাকা, শুক্রুবার, জানুয়ারী ১৯, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি : এখন থেকে দেশেই উৎপাদন হবে কম্পিউটার   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : আফগানিস্তানে সরকারি বাহিনীর অভিযানে ৮ জঙ্গি নিহত * ক্যালিফোর্নিয়ায় ১৩ শিশুকে আটকে রাখা দম্পতিকে আদালতে তোলা হচ্ছে * মুক্ত হওয়ার এক মাস পর ইরাকে আইএসের হুমকি * অস্ট্রেলিয়ার উলুরুর কাছে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত : আহত ৪   |    জাতীয় সংবাদ : বেসরকারি মেডিকেল কলেজের নীতিমালাকে আইনে রূপান্তরিত করার প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করার নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর * মেধাসম্পদের অনলাইন নিবন্ধন সেবা চালু * জ্ঞানভিত্তিক সমাজ ও দেশপ্রেমিক মানুষ গড়ার তাগিদ দিলেন শিক্ষামন্ত্রী   |   জাতীয় সংসদ : ডিসেম্বর নাগাদ পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হবে : সেতু মন্ত্রী * ছয় মাসে ১২২.৬৪ একর রেলভূমি দখলমুক্ত করা হয়েছে : রেলপথ মন্ত্রী * দেশে সাক্ষরতার হার শতকরা ৭১ ভাগ : পরিকল্পনামন্ত্রী   |   প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রীকে সেনাবাহিনীর এসডব্লিউও কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন দুটি প্রকল্প সম্পর্কে অবহিতকরণ   |    জাতীয় সংবাদ : মরতুজা আহমদ নতুন প্রধান তথ্য কমিশনার * মুন সিনেমা হলের মালিককে ৯৯ কোটি টাকা দেয়ার নির্দেশ * রিট করেছে বিএনপি, দোষ পড়েছে আওয়ামী লীগের : ওবায়দুল কাদের * প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছে : তোফায়েল আহমেদ   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : ঝিনাইদহে ১৫ দিনব্যাপী যাত্রা উৎসব শুরু   |    বিভাগীয় সংবাদ : বরগুনায় দুদকর আয়োজনে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ *জয়পুরহাটে প্রবীণদের কম্বল, বয়স্ক ভাতা, উপকরণ প্রদান *হবিগঞ্জে ১১ জন আসামি গ্রেফতার * ভোলায় ৫টি বদ্ধভূমির সংস্কার ও উন্নয়ন করা হচ্ছে   |   খেলাধুলার সংবাদ : পিএসজির আট গোলের বিশাল জয়ে নেইমারের চার গোল *কোপা ডেল রে : মেসির পেনাল্টি মিসে বার্সেলোনার হার * হাথুরুসিংহের পরিকল্পনা ভুলে গেছে বাংলাদেশ : মাশরাফি * শ্রীলংকার বিপক্ষেও জয়ের লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ * বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হলেন কোহলি   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কেটে যেতে পারে   |    জাতীয় সংবাদ : বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব আগামীকাল থেকে শুরু * নির্বাচন বন্ধের জন্য বিএনপিকে অভিযুক্ত করা উচিত * জ্ঞান ও প্রযুক্তি রপ্তানিতেও সক্ষমতা অর্জন করতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী * শিশু আলপনা হত্যা মামলায় ২ আসামির ফাঁসির রায় বহাল   |   প্রধানমন্ত্রী : রংপুর সিটি কর্পোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ * প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে ২০ প্রতিষ্ঠানের অনুদান প্রদান * ওপেক বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক সম্প্রসারণে আগ্রহী   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : কাজাখস্তানে বাস দুর্ঘটনায় ৫২ জন নিহত * নির্ধারিত সময়ে কম্বোডিয়ার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে : কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী * কান্দাহারে অনলাইনে শিক্ষা নিচ্ছে আফগান তরুণীরা * ট্রাম্পের এক বছরে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া সম্পর্কোন্নয়নে ব্যর্থ   |   

কৃষি প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে পড়ছে কৃষকরা

পঞ্চগড়, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৭ (বাসস) : দেশের ৮০ ভাগ মানুষ কৃষি নির্ভর। অপরিকল্পিত নগরায়ন, শিল্পায়ন এবং বসতবাড়ি করার কারণে প্রতিনিয়তই কমছে কৃষি জমির পরিমাণ। তবে আশার ব্যাপার হল যে, জমি কমলেও আবাদ কমছে না। এর কারণ হল কৃষকরা যুগের সাথে তাল মিলিয়ে তাদের জমি চাষাবাদ করছে। কৃষিতে এসেছে বৈচিত্র। একটি জমিতে আগে যেখানে দুটি ফসল হতো এখন সেখানে হচ্ছে চারটি ফসল। এসব জমিতে বিভিন্ন ফসল আবাদ করে কৃষকরা দেশের চাহিদা মেটাচ্ছে। কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য এখন যাচ্ছে বিদেশেও। ফসলের উৎপাদন খরচ কমাতে মান্ধাতা আমলের নিয়ম বাদ দিয়ে কৃষকরা এখন চলে এসেছে যান্ত্রিক যুগে। বিশেষ করে জমি চাষ ও ফসল মাড়াইয়ে তারা নির্ভর হয়ে পড়েছে যন্ত্রের ওপর। ফসল কাটা আর জমিতে বীজ ও রোপা লাগানোর যন্ত্রের ব্যবহারও শুরু হয়েছে ইতোমধ্যে।
দেশের অর্থনীতি কৃষি নির্ভর হলেও সময়মত নিত্য নতুন কৃষি প্রযুক্তি গ্রহণ না করায় অনেক পিছিয়ে পড়েছে কৃষকরা। উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় বার বার লোকসান গুনে কৃষি থেকে সরে আসতে শুরু করে কৃষকরা। মান্ধাতা আমলের মত গরু দিয়ে চাষাবাদ, শ্রমিক দিয়ে ফসল কাটা-মাড়াই করতে উৎপাদন খরচ অনেক বেড়ে যায়। সেই সাথে রয়েছে শ্রমিকের চরম সংকট। কাজের সময় বেশি পারিশ্রমিক দিয়েও শ্রমিক পাওয়া যায়না। এসব কারণে কৃষিতে অনীহা আসে কৃষকদের। অনেক বড় কৃষক তাদের জমি চুক্তিতে ছেড়ে দেয় ছোট ও প্রান্তিক কৃষকদের কাছে। কিন্তু আশার ব্যাপার হলো, কৃষিতে উন্নত দেশের ব্যবহৃত যন্ত্র দেশের কৃষকরা ব্যবহার শুরু করায় ফসলের উৎপাদন খরচ অনেক কমে যাচ্ছে। তাই কৃষি থেকে সরে আসা কৃষকরা আবারও ফিরে এসেছে কৃষিতে।
বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, এখন আর গরুর হালের লাঙ্গল খুঁজে পাওয়া যায়না। গো-খাদ্য সংকটের কারণে অনেক কৃষকই এখন আর গরু পালন করে না। আর গরুর সংকটের কারণে কৃষকদের নির্ভর করতে হয় যান্ত্রীক হালের ওপর। কয়েক বছর আগে গরুর হালের বিপরীতে কৃষকরা পাওয়ার টিলার দিয়ে জমি চাষ করত। এখন পাওয়ার টিলারও প্রায় উঠে যাচ্ছে। কম সময়ে অনেক জমি চাষের জন্য এখন জনপ্রিয় ট্রাক্টর। মাত্র তিনশ টাকা দিয়ে এক বিঘা জমি চাষ করে নিতে পারছে কৃষকরা। চলতি রোপা আমন মৌসূমে দেখা গেছে, ট্রাক্টর চালকরা দিনে-রাতে জমি চাষ করছে। কৃষকরা জানিয়েছে, এক বিঘা জমিতে রোপা আমনের চারা লাগাতে দুই চাষ দিলেই যথেষ্ট। সেখানে খরচ পড়ে মাত্র ছয়শ টাকা। আর এক বিঘা জমিতে গরুর হাল দিয়ে চাষ দিতে হয়। সাথে জমি সমান করতে দিতে হয় মই। এতে খরচ হয় প্রায় দুই হাজার টাকার মত। অনেক অবস্থাসম্পন্ন কৃষক নিজেরাই ট্রাক্টর কিনেছে। নিজের জমি চাষ করে মৌসূমে তারা অন্যের জমি চাষ করে। বাকি সময়টাতে তারা ট্রাক্টরে ট্রলি লাগিয়ে মালামাল পরিবহণ করে। আবার ফসল মাড়াইয়েও এখন কৃষকদের একমাত্র অবলম্বন যন্ত্র। ধান, গম, ভূট্টাসহ বিভিন্ন ফসল এখন মাড়াই হচ্ছে যন্ত্রের সাহায্যে। এতে করে যেমন খরচ কমছে তেমনি সময়ও লাগছে অনেক কম। এখনও ব্যাপকভাবে না হলেও গত দুই-তিন বছর থেকে যন্ত্রের সাহায্যে ফসল কাটা হচ্ছে। বীজ বপন ও রোপা লাগানোর যন্ত্রও ব্যবহার করছেন কেউ কেউ। আগামী দিনগুলোতে এসব যন্ত্রের ব্যবহার আরও বাড়বে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে কৃষকরা। এসব যন্ত্র ব্যবহারের ফলে ফসলের উৎপাদন খরচ প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। উৎপাদন খরচ কমাতে এসব কৃষি প্রযুক্তি এখন সাদরে গ্রহণ করছে
পঞ্চগড় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক সামছুল হক জানান, আমাদের কৃষি বিভাগ সব সময় কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষকদের উৎসাহিত করে আসছে। উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা কৃষকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এ ব্যাপারে পরামর্শ দিয়ে আসছেন। সরকার কৃষি যন্ত্রপাতি ক্রয়ে কৃষকদের বিশেষ প্রণোদনা দিয়ে আসছে। এ কারণে কৃষিতে যন্ত্রের ব্যবহার বাড়ছে। তিনি আরও বলেন, অন্যান্য জেলার মত পঞ্চগড়ের কৃষকরাও এখন কৃষি প্রযুক্তি নির্ভর হয়ে উঠছে। এসব প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে ফসলের উৎপাদন খরচ অনেক কমে আসছে। জমি চাষ, মাড়াইসহ কৃষিকাজে অধিকাংশ কৃষক এখন যন্ত্রের ওপর নির্ভরশীল। আগামীতে ব্যাপকভাবে ধান কাটা ও বীজ বপন-রোপণের কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রের ব্যবহার শুরু হলে উৎপাদন খরচ আরও অনেক কমে আসবে বলে তিনি জানান।