ঢাকা, রবিবার, ফেব্রুয়ারী ১৮, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

আন্তর্জাতিক সংবাদ : মেক্সিকোয় ভূমিকম্প অঞ্চলে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত : নিহত ১৩   |    বিভাগীয় সংবাদ : লোহাগড়ায় ইউপি চেয়ারম্যান হত্যা ঘটনায় মামলা দায়ের : গ্রেফতার ২ * হবিগঞ্জে হাওরের উন্নয়নে ৫০ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ   |   

ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফরে বাণিজ্য বাড়বে আশা এফবিসিসিআইয়ের

ঢাকা, ৩০ জানুয়ারি, ২০১৮ (বাসস) : ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট ত্রান দাই কুয়াংয়ের আসন্ন বাংলাদেশ সফর দুদেশের মধ্যকার দ্বিপাক্ষীয় বাণিজ্য এবং সম্ভাবনাময় খাতে বিনিয়োগ সম্প্রসারণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করছে বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি ফেডারেশন (এফবিসিসিআই)।
ভিয়েতনামের রাষ্ট্রপতি আগামী ৪ থেকে ৬ মার্চ বাংলাদেশ সফর করবে। এসময় এফবিসিসিআই বাংলাদেশ-ভিয়েতনাম বিজনেস ফোরামের আয়োজন করবে, যেখানে দুদেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো অংশ নেবে। ফোরামে খাতভিত্তিক বিজনেস টু বিজনেস আলোচনার মাধ্যমে সম্ভাবনাময় খাত চিহ্নিত এবং সেসব খাতে বিনিয়োগ ও যৌথ বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টির সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা হবে।
মঙ্গলবার রাজধানীর মতিঝিল ফেডারেশন ভবনে ভিয়েতনামের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড্যাং ডিন কুইয়ের নেতৃত্বে সফরররত সেদেশের বাণিজ্য প্রতিনিধিদলে সাথে এফবিসিসিআই নেতৃবৃন্দের এক সভায় এসব আলোচনা হয়।
এফবিসিসিআই সভাপতি মো. শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, সহ-সভাপতি মো. মুনতাকিম আশরাফ এবং বাংলাদেশে ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত ত্রান ভ্যান খোয়া উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠানে এফবিসিসিআই সভাপতি ভিয়েতনাম প্রতিনিধিদলকে দেশের বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করেন।
তিনি বলেন, গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ধারাবাহিকভাবে ৬ শতাংশ হারে অর্জিত হচ্ছে, যা গত দুবছরে ৭ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। নি মধ্যআয়ের দেশ থেকে আগামী ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হবে।
বাংলাদেশের আকর্ষণীয় বিনিয়োগ সুবিধা যেমন: ট্যাক্স হলিডে, কর্পোরেট করসহ বিভিন্ন সুবিধা গ্রহণ করে তিনি ভিয়েতনাম ব্যবসায়ীদেরকে ইকনোমিক জোনসহ বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগের আহ্বান জানান। মহিউদ্দিন দেশ দুটির মধ্যকার বাণিজ্য ব্যবধান কমাতে যথেষ্ট কাজ করার সুযোগ রয়েছে বলে মত ব্যক্ত করেন।
তিনি তৈরি পোশাক, ঔষধ, কৃষি যন্ত্রপাতি, সিরামিক, হাল্কা প্রকৌশল শিল্প ইত্যাদি খাতে বাংলাদেশ-ভিয়েতনামের যৌথ বিনিয়োগ এবং বাংলাদেশে ভিয়েতনামের প্রযুক্তি হস্তান্তরের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।
ভিয়েতনামের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড্যাং ডিন কুই তার বক্তব্যে বলেন, ভিয়েতনাম ও বাংলাদেশের চমৎকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে আরো জোরদার করা যেতে পারে। তাদের প্রেসিডেন্টের আসন্ন বাংলাদেশ সফর দুদেশের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিদের মধ্যে আরো নিবিড় যোগাযোগ এবং ফলপ্রসু আলোচনার সুযোগ সৃষ্টি করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
সভায় মুক্ত আলোচনায় এফবিসিসিআই পরিচালকবৃন্দ ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফরের মাধ্যমে সেদেশের উদ্যোক্তাদের সাথে তথ্যপ্রযুক্তি, ঔষধ, স্বাস্থ্য, বস্ত্র ও তৈরি পোশাক খাতে একযোগে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেন।
উল্লেখ্য,২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাংলাদেশ ৬৬ দশমিক ৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য ভিয়েতনামে রপ্তানি করে এবং ভিয়েতনাম থেকে ৪১২ দশমিক ২০ মিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি করে। ভিয়েতনামে বাংলাদেশের রপ্তানিযোগ্য পণ্যগুলো হচ্ছে কৃষিজাত পণ্য, পাট ও চামড়াজাত পণ্য, হিমায়িত খাদ্য এবং ঔষধ সামগ্রী। আর ভিয়েতনাম থেকে মূলত খণিজ দ্রব্য, বস্ত্র ও বস্ত্র সামগ্রী, যন্ত্রপাতি ও প্লাস্টিক উপাদান আমদানি করা হয়।