ঢাকা, মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

রাষ্ট্রপতি : সরকারি টাকা ব্যয়ে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে : রাষ্ট্রপতি * রাষ্ট্রপতি হামিদ দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপ্রধানের শপথ নেবেন কাল   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : পরমাণু পরীক্ষা বন্ধে উত্তর কোরীয় নেতার প্রতিশ্রতির প্রশংসা দক্ষিণ কোরীয় নেতার * গাজায় ইসরাইলি সৈন্যের গুলিতে আহত ফিলিস্তিনীর মৃত্যু * লিবিয়ার বেনগাজিতে সংঘর্ষে ২ জন নিহত * ভারতের মধ্যাঞ্চলে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৫   |    জাতীয় সংবাদ : তারেক য্ক্তুরাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তার পাসপোর্ট হস্তান্তর করেছেন : শাহরিয়ার * শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় মোদির ভূয়সীঁ প্রশংসা * কপিরাইট আইন সম্পর্কে সচেতনতা জরুরি : সংস্কৃতি মন্ত্রী   |   খেলাধুলার সংবাদ : পিএফএ বর্ষসেরা খেলোয়াড় মনোনীত হলেন সালাহ * সাউদাম্পটনকে হারিয়ে এফএ কাপের ফাইনালে চেলসি *নেইমারের পিএসজি ত্যাগ করা উচিত : রিভালদো   |    জাতীয় সংবাদ : রাজধানীর পল্টনে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ১ *১৯ ক্যাটাগরির কর্মী প্রেরণ করা হবে সংযুক্ত আরব আমিরাতে * বিএসসি বহরে নতুন জাহাজ বাংলার জয়যাত্রা আসছে জুলাইতে * পাহাড়ের ঢালে বসবাসকারী সকলকে অবিলম্বে সরিয়ে নিতে হবে : মায়া চৌধুরী   |   আবহাওয়া : দেশের কোথাও কোথাও বিজলী চমকানোসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে   |   প্রধানমন্ত্রী : দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী   |    বিভাগীয় সংবাদ : রাঙ্গামাটিতে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় সাইনবোর্ড স্থাপন * বিভিন্ন স্থানে জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ পালন   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : লিবিয়ায় ১১ শরণার্থীর লাশ উদ্ধার * প্যারাগুয়ের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রক্ষণশীলদের জয় *সীমান্ত সংক্রান্ত বার্তা প্রচার বন্ধ দ.কোরিয়ার * প্রিন্স উইলিয়ামের স্ত্রী কেট হাসপাতালে * উত্তর কোরিয়ায় বাস দুর্ঘটনা : কমপক্ষে ৩২ চীনা নাগরিক নিহত   |   

নীলফামারীতে বাণিজ্যিকভাবে মাল্টা চাষ হচ্ছে

নীলফামরী, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ (বাসস) : জেলায় বইতে শুরু করেছে রসালো সুস্বাদু ফল মাল্টা চাষের সুবাতাস। অনেকেই তৈরি করেছেন বাণিজ্যক বাগান। পাশাপাশি জেলা কৃষি বিভাগ ১০০টি মিনি বাগান (২০ শতক জমির) তৈরির জন্য বারি-১ জাতের ৬০টি করে চারা প্রদান করেছেন ১০০ জন কৃষককে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ বলছে এ জেলায় সমতল ভূমিতে মাল্টা চায়ের ব্যাপক সম্ভাবনা থাকায় এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
জেলার ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নের কাঁঠালতলী গ্রামে সৌদিআরব প্রবাসী এস এম আব্দুল্লাহ ৬০ বিঘা জমিতে মাল্টাসহ বিভিন্ন ফলের বাণিজ্যিক চাষ শুরু করেছেন। ওই বাগানের সার্বিক দায়িত্বে থাকা রঞ্জু মিয়া (৫০) বলেন, অন্যান্য ফলের পাশাপাশি সাত বছর আগে রোপণ করা হয়েছিল বিভিন্ন জাতের ৫০টি মাল্টার চারা। দুই বছর বয়সে গাছে ফল আসতে শুরু করে। এখন প্রতিটি গাছ ফল দিচ্ছে দুই মণের উর্দ্ধে। প্রতিমণ মাল্টা বিক্রি হচ্ছে চার হাজার টাকা দরে।
তিনি বলেন,মাল্টার ফল দেখে অনেকে আগ্রহী হচ্ছেন মাল্টা চাষে। আমরা ওই গাছ থেকে এখন চারা তৈরি করে বিক্রি করছি। গত দুই বছরে বিক্রি করেছি ছয় হাজার চারা। পাশাপাশি বাগানে আরো রোপণ করা হয়েছে সাড়ে ছয়শ গাছ। সেখান থেকে অন্তত একশ গাছ ফল দিচ্ছে।
বাগানের ম্যানেজার ওমর ফারুক (৩২) বলেন,বারি-১সহ পাকিস্তানী, নাগপুরী, দার্জিলিং, মরক্কো, ইরাণী জাজের মাল্টার গাছ আছে। ফলের পাশাপাশি ওই গাছ থেকে চারা তৈরি করে বিক্রি করা হচ্ছে। চারা তৈরিতে এক বছর সময় এবং চারা রোপণের পর গাছে ফল আসতে দুই বছর সময় লাগে।
তিনি বলেন,এলাকায় মাল্টার ফলন দেখে অনেকে বাণিজ্যিক চাষের উদ্যোগ নিয়েছেন। এলাকার পাশ্ববর্তী পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার টোকরাভাসা গ্রামের মাফফুজ রেজা একশ চারা কিনে বাগান করেছেন। এলাকার মানুষ ছাড়াও অনেকে দূর দূরান্ত থেকে এসে চারা কিনে বাসাবাড়িতে রোপণ করছেন। গত দুই বছরে ছয় হাজার চারা বিক্রির পর নার্সারীতে আরো পর্যাপ্ত চারা আছে।
ওমর ফারুক জানান, বাগানে আছে মাল্টার সাতশ গাছ। পাশাপাশি রয়েছে আম, লিচু, চালতা, কাঁঠাল, আমড়াসহ বিভিন্ন ফলের গাছ। এবছর প্রায় ১০০ গাছে ফল ধরেছে। আগামী বছরের মধ্যে কমবেশী সকল গাছে ফল আসবে। এসময়ে গড়ে প্রতিটি গাছ থেকে এক মণের উর্দ্ধে মাল্টা পাওয়া যাবে। পরবর্তী বছর থেকে ওই ফল দ্বিগুণ হবে।
ওই বাগান পরিদর্শণ করে নীলফামারী ব্র্যাকের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক হাবিবুর রহমান বলেন,আমরা আয় ও কর্মসংস্থানের জন্য শিল্পের দিকে ঝুকে পড়ছি। কিন্তু পরিবেশ বান্ধব কৃষি খামার গড়েও আয় এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা যায় সেটি তারই একটি উদাহরণ।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্র জানায়, জেলাটি শীত প্রধান হওয়ায় ছয় উপজেলার উঁচু বেলেদোআশ মাটিতে মাল্টা চাষের ব্যাপক সম্ভাবনা আছে। এমন সম্ভানায় অনেকেই বাণিজ্যিকভাবে চাষ শুরু করেছেন। এর মধ্যে ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নের কাঁঠালতলী গ্রামের পঞ্চনীল নার্সারী এবং মিশ্র ফলের বাগানের মালিক এসমএম আব্দুল্লাহ বাণিজ্যক চাষ করছেন। মাতৃগুণের কারণে ফলের গুণাগুণের কোন পরিবর্তন হয় না। সমান দূরত্বে প্রতি দুই শতক জমিতে ছয়টি গাছ লাগানো যায়। এটি একটি লাভজনক বাগান।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক আবুল কাশেম আযাদ বলেন, জেলায় মাল্টা চাষের সম্ভাবনা দেখে বারি-১ জাতের মাল্টার ১০০টি মিনি বাগান করার জন্য রাজস্ব খাত থেকে প্রতি চাষিকে ৬০টি করে চারা প্রদান করা হয়েছে এবছর। তাঁরা ২০ শতক করে জমিতে ওই ৬০ চারা রোপণ করবেন। কৃষি বিভাগ তাদেরকে প্রয়োজনীয় কারিগরি সহযোগিতা প্রদান করছে। ইতিমধ্যে যাঁরা চাষ শুরু করেছেন তাদেরকেও কারিগরি পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।