ঢাকা, শনিবার, জানুয়ারী ২০, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

প্রধানমন্ত্রী : আসাদের আত্মত্যাগে স্বাধীনতা আন্দোলন আরো গতিশীল হয় : প্রধানমন্ত্রী * মাইকেল মধুসূদন দত্ত বাংলা সাহিত্যের আকাশে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র : প্রধানমন্ত্রী * সাস্থ্যবান প্রজন্ম গড়তে প্রাণিসম্পদ খাতের গুরুত্ব অপরিসীম : শেখ হাসিনা   |   রাষ্ট্রপতি : শহীদ আসাদের সর্বোচ্চ অবদান তরুণ প্রজন্মকে অনুপ্রেরণা যোগাবে : রাষ্ট্রপতি * প্রাণিস্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতের মাধ্যমে ২০৩০ সালে এসডিজি বাস্তবায়ন সম্ভব হবে : রাষ্ট্রপতি * মধুসূদন দত্ত বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী ছিলেন : রাষ্ট্রপতি   |    জাতীয় সংবাদ : শহীদ আসাদ দিবস কাল * বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় ধাপেও পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে : আসাদুজ্জামান খাঁন * এমপিও ভূক্তির জন্য শিক্ষকদের আন্দোলনের প্রয়োজন নেই : আইনমন্ত্রী   |    বিভাগীয় সংবাদ : যশোরের সাগরদাঁড়িতে আগামীকাল শুরু হচ্ছে সপ্তাহব্যাপী মধুমেলা * মাগুরায় ১০ কিলোমিটার মহাসড়কে চার লেনের কাজ এগিয়ে চলছে   |   শিক্ষা : ঢাবি সিনেটে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনে ঢাকা কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ আগামীকাল   |    জাতীয় সংবাদ : বিশ্ব ইজতেমার ২য় পর্ব শুরু, লাখো মুসুল্লির জুমার নামাজ আদায় * নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিএনপি জনপ্রিয়তা যাচাই করতে পারে : হানিফ * তারুণ প্রজন্মকেই আধুনিক সমাজ বিনির্মাণে এগিয়ে আসতে হবে : শিরীন শারমিন * আইভীকে দেখতে হাসপাতালে ওবায়দুল কাদের   |   বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি : ড্রোন প্রযুক্তি ব্যবহারে উড়োজাহাজ তৈরি করেছে গোপালগঞ্জের কিশোর আরমানুল ইসলাম   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : দ.কোরিয়ায় অগ্রবর্তী বাদকদল পাঠাবে উ.কোরিয়া * আফগানিস্তানে সরকারি বাহিনীর অভিযানে ৮ জঙ্গি নিহত * ইরানের পারমাণু চুক্তির শর্ত কঠিন করাই মার্কিন আইনপ্রণেতাদের লক্ষ্য   |   আবহাওয়া : আবহাওয়া শুষ্ক এবং রাত ও দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে   |   খেলাধুলার সংবাদ : রেকর্ড ব্যবধানে শ্রীলংকাকে হারিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ *তামিমের ১১, সাকিবের ১০ ও সাব্বিরের ১ হাজার রান *৩শ ম্যাচের মাইলফলক স্পর্শ করলেন মুশফিকুর রহিম   |   

নীলফামারীতে বাণিজ্যিকভাবে মাল্টা চাষ হচ্ছে

নীলফামরী, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ (বাসস) : জেলায় বইতে শুরু করেছে রসালো সুস্বাদু ফল মাল্টা চাষের সুবাতাস। অনেকেই তৈরি করেছেন বাণিজ্যক বাগান। পাশাপাশি জেলা কৃষি বিভাগ ১০০টি মিনি বাগান (২০ শতক জমির) তৈরির জন্য বারি-১ জাতের ৬০টি করে চারা প্রদান করেছেন ১০০ জন কৃষককে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ বলছে এ জেলায় সমতল ভূমিতে মাল্টা চায়ের ব্যাপক সম্ভাবনা থাকায় এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
জেলার ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নের কাঁঠালতলী গ্রামে সৌদিআরব প্রবাসী এস এম আব্দুল্লাহ ৬০ বিঘা জমিতে মাল্টাসহ বিভিন্ন ফলের বাণিজ্যিক চাষ শুরু করেছেন। ওই বাগানের সার্বিক দায়িত্বে থাকা রঞ্জু মিয়া (৫০) বলেন, অন্যান্য ফলের পাশাপাশি সাত বছর আগে রোপণ করা হয়েছিল বিভিন্ন জাতের ৫০টি মাল্টার চারা। দুই বছর বয়সে গাছে ফল আসতে শুরু করে। এখন প্রতিটি গাছ ফল দিচ্ছে দুই মণের উর্দ্ধে। প্রতিমণ মাল্টা বিক্রি হচ্ছে চার হাজার টাকা দরে।
তিনি বলেন,মাল্টার ফল দেখে অনেকে আগ্রহী হচ্ছেন মাল্টা চাষে। আমরা ওই গাছ থেকে এখন চারা তৈরি করে বিক্রি করছি। গত দুই বছরে বিক্রি করেছি ছয় হাজার চারা। পাশাপাশি বাগানে আরো রোপণ করা হয়েছে সাড়ে ছয়শ গাছ। সেখান থেকে অন্তত একশ গাছ ফল দিচ্ছে।
বাগানের ম্যানেজার ওমর ফারুক (৩২) বলেন,বারি-১সহ পাকিস্তানী, নাগপুরী, দার্জিলিং, মরক্কো, ইরাণী জাজের মাল্টার গাছ আছে। ফলের পাশাপাশি ওই গাছ থেকে চারা তৈরি করে বিক্রি করা হচ্ছে। চারা তৈরিতে এক বছর সময় এবং চারা রোপণের পর গাছে ফল আসতে দুই বছর সময় লাগে।
তিনি বলেন,এলাকায় মাল্টার ফলন দেখে অনেকে বাণিজ্যিক চাষের উদ্যোগ নিয়েছেন। এলাকার পাশ্ববর্তী পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার টোকরাভাসা গ্রামের মাফফুজ রেজা একশ চারা কিনে বাগান করেছেন। এলাকার মানুষ ছাড়াও অনেকে দূর দূরান্ত থেকে এসে চারা কিনে বাসাবাড়িতে রোপণ করছেন। গত দুই বছরে ছয় হাজার চারা বিক্রির পর নার্সারীতে আরো পর্যাপ্ত চারা আছে।
ওমর ফারুক জানান, বাগানে আছে মাল্টার সাতশ গাছ। পাশাপাশি রয়েছে আম, লিচু, চালতা, কাঁঠাল, আমড়াসহ বিভিন্ন ফলের গাছ। এবছর প্রায় ১০০ গাছে ফল ধরেছে। আগামী বছরের মধ্যে কমবেশী সকল গাছে ফল আসবে। এসময়ে গড়ে প্রতিটি গাছ থেকে এক মণের উর্দ্ধে মাল্টা পাওয়া যাবে। পরবর্তী বছর থেকে ওই ফল দ্বিগুণ হবে।
ওই বাগান পরিদর্শণ করে নীলফামারী ব্র্যাকের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক হাবিবুর রহমান বলেন,আমরা আয় ও কর্মসংস্থানের জন্য শিল্পের দিকে ঝুকে পড়ছি। কিন্তু পরিবেশ বান্ধব কৃষি খামার গড়েও আয় এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা যায় সেটি তারই একটি উদাহরণ।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্র জানায়, জেলাটি শীত প্রধান হওয়ায় ছয় উপজেলার উঁচু বেলেদোআশ মাটিতে মাল্টা চাষের ব্যাপক সম্ভাবনা আছে। এমন সম্ভানায় অনেকেই বাণিজ্যিকভাবে চাষ শুরু করেছেন। এর মধ্যে ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নের কাঁঠালতলী গ্রামের পঞ্চনীল নার্সারী এবং মিশ্র ফলের বাগানের মালিক এসমএম আব্দুল্লাহ বাণিজ্যক চাষ করছেন। মাতৃগুণের কারণে ফলের গুণাগুণের কোন পরিবর্তন হয় না। সমান দূরত্বে প্রতি দুই শতক জমিতে ছয়টি গাছ লাগানো যায়। এটি একটি লাভজনক বাগান।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক আবুল কাশেম আযাদ বলেন, জেলায় মাল্টা চাষের সম্ভাবনা দেখে বারি-১ জাতের মাল্টার ১০০টি মিনি বাগান করার জন্য রাজস্ব খাত থেকে প্রতি চাষিকে ৬০টি করে চারা প্রদান করা হয়েছে এবছর। তাঁরা ২০ শতক করে জমিতে ওই ৬০ চারা রোপণ করবেন। কৃষি বিভাগ তাদেরকে প্রয়োজনীয় কারিগরি সহযোগিতা প্রদান করছে। ইতিমধ্যে যাঁরা চাষ শুরু করেছেন তাদেরকেও কারিগরি পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।