ঢাকা, বুধবার, জানুয়ারী ১৭, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

বিনোদন ও শিল্পকলা : বাচ্চাদের বই পড়ায় আগ্রহী করে তুলতে হবে : সংস্কৃতি মন্ত্রী   |    জাতীয় সংবাদ : আতিকুল ইসলাম ঢাকা উত্তর সিটি কার্পোরেশন উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী * বরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী শাম্মী আক্তার আর নেই   |    জাতীয় সংবাদ : বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় উচ্চ শিক্ষায় নতুন মাত্রা যোগ করেছে : শিক্ষামন্ত্রী * সুন্দরবন অঞ্চল নিরাপদ রাখতে আরো ৪টি র‌্যাব ক্যাম্প স্থাপন করা হবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী * ঝড়-বৃষ্টির মৌসুমে স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা ঝুঁকিতে ৫ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা শিশু : ইউনিসেফ   |   জাতীয় সংসদ : একই পরিবারের চারজন পরিচালক রাখার বিধান করে সংসদে ব্যাংক কোম্পানী সংশোধন বিল পাস * বিচারাধীন মামলা দ্রুত নিষ্পত্তিতে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে : আইনমন্ত্রী * সরকারি শূন্য পদ দ্রুত পূরণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে : জন প্রশাসন মন্ত্রী   |   প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ উন্নয়ন ফোরামের উদ্বোধন করবেন আগামীকাল * একনেকে ১৪ প্রকল্প অনুমোদন : তিন হাজার বিদ্যালয়ে একাডেমিক ভবন নির্মাণ করা হবে * আবুল খায়েরের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক   |   বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি : ঢাকা শহরের ছাদ ব্যবহার করে ১ হাজার মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব : নসরুল হামিদ   |    অর্থনীতি : নওগাঁয় রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের ৬ মাসে ৯২ কোটি ৩০ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ    |    জাতীয় সংবাদ : এই অঞ্চলের স্বাধীনতার নেতাদের হত্যার কারণ খুুঁজে বের করতে হবে : প্রণব মুখোপাধ্যায় * ২ বছরের মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন সম্পন্নে রূপরেখা চূড়ান্ত * ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা : আরো দুই আসামীর পক্ষে যুক্তিতর্ক পেশ    |   খেলাধুলার সংবাদ : পুলিশ বর্ষসেরা খেলোয়াড় দ্বীন ইসলাম, লতা পারভীন ও আকলিমা *মাঠে খারাপ আচরণের জন্য কোহলিকে জরিমানা   |   শিক্ষা : বাংলাদেশের জন্মের পেছনে ঢাবির অবদান রয়েছে : ঢাবি উপাচার্য   |    বিভাগীয় সংবাদ : জয়পুরহাটে বোরো ধানের চারা রক্ষা করতে পলিথিনে ঢেকে রাখার পরামর্শ * নীলফামারীতে কৃষক নেমেছে বোরো আবাদের মাঠে : লক্ষ্যমাত্রা ৮৪ হাজার হেক্টর জমি   |   আবহাওয়া : আগামীকাল থেকে দক্ষিণাঞ্চলের শৈতপ্রবাহ কেটে যেতে পারে   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ট্রানজিট বিষয়ে সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষর * আফগানিস্তানে আইএসের ২১ যোদ্ধা নিহত * জাপানের জলসীমায় ভেসে আসা নৌকা থেকে ৮ জনের লাশ উদ্ধার * লিবিয়ার পশ্চিম উপকূল থেকে অবৈধ ৩৬০ শরণার্থী উদ্ধার   |   

ওয়ারলেস ক্যাম্পে পাক হানাদারদের হত্যাযজ্ঞের স্মৃতি আজও তাড়া করে বেড়ায় কাশিয়ানীবাসীদের

গোপালগঞ্জ, ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৬ (বাসস) : ৭১ এর স্বাধীনতাযুদ্ধ কালীন সময়ে হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার, আলবদর, আলশামস ও শান্তি কমিটির নির্মম হত্যাযজ্ঞের স্মৃতি চিহ্নের নীরব সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে ভাটিয়াপাড়ার ওয়ারলেস ক্যাম্পটি। এ ক্যাম্পে মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে নিরীহ বাঙ্গীল ওপর চলে নির্মম অত্যাচার ও নারীদের ওপর চলে পাশবিক নির্যাতন। স্বাধীনতার ৪৫ বছর পরও ওয়ারলেস ক্যাম্পটি এসব স্মৃতি আজও তাড়া করে বেড়ায় কাশিয়ানীবাসীকে ।
কাশিয়ানী উপজেলার কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা আবুল বশার মোল্যা, আজিজুর রহমান, হানিফ মাহমুদের সাথে কথা হলে তারা জানান, ৭১ সালের ২৫শে মার্চের কালো রাত থেকে দেশব্যাপী হানাদার বাহিনী হত্যাযজ্ঞ শুরু হলেও গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে হানাদারবাহিনী আসে ৭ এপ্রিল। এদিন রাজাকার ছলেমান সর্দারের নেতৃত্বে ফরিদপুর থেকে রেল গাড়িতে করে মধুখালী বোয়ালমারী হয়ে কাশিয়ানীর রেলস্টেশনে নামে হানাদার বাহিনী। হানাদার বাহিনীদের স্বাগত জানাতে রাজাকার মজি, খলিল ও খোকা মৌলভীসহ ৩০/৩৫ জন রাজাকার কাশিয়ানী রেলস্টেশনে অপেক্ষা করছিল। পাকবাহিনী আসার সাথে সাথে তাদের স্বাগত জানিয়ে কাশিয়ানী হাইস্কুল ভবনে নিয়ে আসে এবং পরে সেখানেই ক্যাম্প করার সিদ্ধান্ত নেয়।
ওই দিন রাতে মালা গ্রামে প্রবেশ করে তারা বেশ কয়েকটি বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেয়। দুই দিন কাশিয়ানী থাকার পর হানাদার বাহিনী ভাটিয়াপাড়া ওয়ারলেস অফিসে গিয়ে ঘাঁটি তৈরি করে, শেষে স্থানীয় রাজাকার, আলবদরদের নিয়ে মিটিং করে। ভাটিয়াপাড়া মোতালেব মিয়ার বিল্ডিং এ স্থানীয় রাজাকার মজি, খলিল, খোকা মৌলভী তাদের নিরাপদ ঘাঁটি তৈরি করে।
এরপর শুরু করে অপারেশন, প্রথমই তারা মধুমতি নদীর পাড়ে চরভাট পাড়া গ্রামের কাপালী পাড়াতে প্রবেশ করে সমস্ত হিন্দুবাড়ী জ্বালিয়ে দেয় এবং যুবতীদের ধরে নিয়ে ধর্ষণ করে। এসময় তারা অভিমান্য কাপালী নামে একজনকে গুলি করে হত্যা করে। অভিমান্য কাপালীর দুই ছেলে অনিল ও অধির মাঠে জমির কাজ করছিল। বাবার মৃত্যুর কথা শুনে পাগলপ্রায় হয়ে বাড়ির দিকে ছুটে আসার সময়ে পাকিস্তানি সেনাদের একজনকে আক্রমণ করে, তার রাইফেল কেড়ে নিয়ে যায়। যাবার আগে অনিল তার দুটি চোখ উপড়ে ফেলে। ফলে ওই পাক সেনাটি মারা যায়। ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে অনিলের পায়ে একটি গুলি লেগে যায়। অনিল আহত অবস্থায় কোনমতে পালিয়ে যায়।
পরের দিন হানাদার বাহিনীরা ভাটিয়াপাড়া এলাকার সকল রাজাকারদের নির্দেশ দেয় অনিল কাপালীকে জীবিত বা মৃত ক্যাম্পে হাজির করতে হবে। হাজির না করলে এ এলাকার সব গ্রাম জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হবে। এরপর স্থানীয় রাজাকারদের নির্দেশে তৎকালীন ভাটিয়াপাড়া হাই স্কুলের মৌলভী শিক্ষক আঃ রউফ মিয়া লোকজন নিয়ে অনিল কাপালীর বাড়িতে গিয়ে তার মায়ের কাছে অনিলের চিকিৎসার কথা বলে তাকে এনে ভাটিয়াপাড়া ক্যাম্পে হানাদার বাহিনীর হাতে তুলে দেয়। অনিলকে হানাদার বাহিনীরা জবাই করে তার মাংস টুকরো টুকরো করে চরভাটপাড়া খালে ভাসিয়ে দেয়।
এছাড়া এলাকার বিভিন্ন স্থান থেকে হানাদার বাহিনী ও রাজাকাররা নিরীহ লোকজন ও যুবতী নারীদের ধরে এনে সারাদিন নির্যাতন করার পর সন্ধ্যায় ভাটিয়াপাড়া রেলস্টেশনের পাশে লাইন দিয়ে দাঁড় করিয়ে গুলি চালায় এবং হত্যা করে মাটি চাপা দেয়।সেই সাথে অনেকের লাশ খালে ফেলে দেয়। ভাটিয়াপাড়াসহ কাশিয়ানী উপজেলার বিভিন্নস্থানে হত্যাযজ্ঞের অনেক নীরব সাক্ষী রয়েছে যা কাশিয়ানীবাসীকে আজও তাড়া করে বেড়ায়। অনেকে আবার এ স্মৃতি মনে করে ভয়ে শিউরে ওঠে এখনও।