ঢাকা, বুধবার, এপ্রিল ২৫, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে ৬ মে থেকে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু * ২০১৮ সালের হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধনের চূড়ান্ত ক্রম প্রকাশ * যুদ্ধাপরাধ মামলায় এনএসআইয়ের সাবেক ডিজি গ্রেফতার   |   প্রধানমন্ত্রী : চট্টগ্রামবন্দর দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে : প্রধানমন্ত্রী * বেলাল চৌধুরীর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক * গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ এওয়ার্ড পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী   |   রাষ্ট্রপতি : দ্বিতীয় মেয়াদে শপথ নিলেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ * ভূ-রাজনৈতিক বিবেচনায় চট্টগ্রাম বন্দরের গুরুত্ব আজ বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি : রাষ্ট্রপতি * কবি বেলাল চৌধুরীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক   |    জাতীয় সংবাদ : আগামী জাতীয় নির্বাচনে বহিঃবিশ্বের হস্তক্ষেপ আশা করে না আওয়ামী লীগ : ওবায়দুল কাদের * রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ২৬১.৮৮ কোটি টাকা দেয়া হয়েছে * ১৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে এএসইউ প্ল্যান্টের উদ্বাধন    |   খেলাধুলার সংবাদ : চেলসিকে হারিয়ে ইউয়েফা ইয়ুথ লীগের শিরোপা জিতলো বার্সেলোনা * তিন বছরের জন্য রোমার জার্সির পৃষ্ঠপোষক হলো কাতার এয়ারওয়েজ * আরেকটি ট্রেবল জয়ের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হেইঙ্কেস   |    জাতীয় সংবাদ : বাংলাদেশের সাবলিল উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতার আহ্বান অর্থমন্ত্রীর * বিশিষ্ট কবি বেলাল চৌধুরী আর নেই * বাংলাদেশের পর্যটন খাতে বিনিয়োগে বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী আহ্বান   |   আবহাওয়া : সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুস্ক থাকতে পারে    |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : মেক্সিকোতে নিখোঁজ ৩ ছাত্র বেঁচে নেই * চীনে অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ১৮ জনের মৃত্যু *কাবুলে সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের * টরেন্টোতে পথচারীদের ওপর গাড়ি তুলে দেয়ার ঘটনায় নিহত ১০   |   

সশস্ত্রযুদ্ধের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধারা পাকবাহিনীর দখল থেকে মুক্ত করে চুয়াডাঙ্গা : আগামীকাল চুয়াডাঙ্গা মুক্ত দিবস

চুয়াডাঙ্গা, ডিসেম্বর, ৬ (বাসস) : চুয়াডাঙ্গা মুক্ত দিবস আগামীকাল ৭ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এই দিনে দীর্ঘ নয় মাস দখলদার পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের সশস্ত্র যুদ্ধে পাকবাহিনী পিছু হটতে বাধ্য হয় এবং চুয়াডাঙ্গা দখলমুক্ত হয়।
চুয়াডাঙ্গার উত্তরদিকে আলমডাঙ্গা, দক্ষিণে ভারতের পশ্চিম বাংলা রাজ্যের নদীয়া জেলা পূর্বদিকে ঝিনেদা জেলা ও পশ্চিমদিকে মেহেরপুর জেলা।
৬ ডিসেম্বর ১৯৭১, দিনভর মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে দখলদার বাহিনীর যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে দখলদার বাহিনী আপ্রাণ যুদ্ধ করেও পরাজিত হয়। সারাদিন যুদ্ধ করেও দখলদার বাহিনী পিছু হটতে বাধ্য হয়। দখলদার বাহিনীর ওপর মূল আঘাত আসতে থাকে দামুড়হুদায় অবস্থিত মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে।
এদিকে মেহেরপুর থেকেও দখলদার বাহিনী পিছু হটতে হটতে চুয়াডাঙ্গায় এসে পৌঁছায়। দখলদার বাহিনী অবস্থা বেগতিক আঁচ করে চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের মধ্যে সংযোগকারী চুয়াডাঙ্গা বড় বাজার সংলগ্ন মাথাভাঙ্গা নদীর উপরে নির্মিত ব্রিজের পূর্বদিকে ডিনামাইট দিয়ে ভেঙ্গে দেয়। কিন্তু এতেও কোন ফল হয় না তাদের। দখলদার বাহিনী চুয়াডাঙ্গাতে কোণঠাঁসা হয়ে পড়লে তারা বেশকিছু স্থাপনা যেমন-টেলিফোন এক্সচেঞ্জ, পেট্রোলপাম্প ও বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। রাতের অন্ধকারে তৎকালীন মহকুমার আলমডাঙ্গা থানা সদরের মধ্যে ও আশপাশ দিয়ে কুষ্টিয়ার দিকে চলে যায়। ফলে ৭ ডিসেম্বর নির্বিঘে মুক্তিযোদ্ধারা চুয়াডাঙ্গায় প্রবেশ করে ও চুয়াডাঙ্গার দখল নেন।
চুয়াডাঙ্গা ছিল মুক্তিযুদ্ধের সময় ৮নং সেক্টরের অধীন। সেক্টর কমা-ার ছিলেন-তৎকালীন ইপিআর এর চুয়াডাঙ্গা ব্যটালিয়ন হেডকোয়ার্টারের প্রধান মেজর আবু ওসমান চৌধুরী। উপ-অধিনায়ক ছিলেন ক্যাপ্টেন আজম চৌধুরী। যুদ্ধকালীন সময়ে চুয়াডাঙ্গাতে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়েছিল এ সেক্টরের জন্য।
প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন তখনকার স্থানীয় সাংসদ ডাঃ আসহাব-উল হক জোয়ার্দ্দার, আর উপদেষ্টা দুজন হলেন তৎকালীন সাংসদ ও আওয়ামী লীগের ব্যারিস্টার বাদল রশীদ ও এ্যাডভোকেট ইউনুছ আলি।
চুয়াডাঙ্গা ৭ ডিসেম্বর হানাদার মুক্ত হলেও সেক্টর কমা-ার, উপ-সেক্টর কমা-ার বা উপদেষ্টারা কেউই ওই সময় চুয়াডাঙ্গায় ফিরতে পারেননি।