ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : মরতুজা আহমদ নতুন প্রধান তথ্য কমিশনার * মুন সিনেমা হলের মালিককে ৯৯ কোটি টাকা দেয়ার নির্দেশ   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : ঝিনাইদহে ১৫ দিনব্যাপী যাত্রা উৎসব শুরু   |    বিভাগীয় সংবাদ : বরগুনায় দুদকর আয়োজনে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ *জয়পুরহাটে প্রবীণদের কম্বল, বয়স্ক ভাতা, উপকরণ প্রদান *হবিগঞ্জে ১১ জন আসামি গ্রেফতার * ভোলায় ৫টি বদ্ধভূমির সংস্কার ও উন্নয়ন করা হচ্ছে   |   খেলাধুলার সংবাদ : পিএসজির আট গোলের বিশাল জয়ে নেইমারের চার গোল *কোপা ডেল রে : মেসির পেনাল্টি মিসে বার্সেলোনার হার   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কেটে যেতে পারে   |    জাতীয় সংবাদ : বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব আগামীকাল থেকে শুরু * নির্বাচন বন্ধের জন্য বিএনপিকে অভিযুক্ত করা উচিত * জ্ঞান ও প্রযুক্তি রপ্তানিতেও সক্ষমতা অর্জন করতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী * শিশু আলপনা হত্যা মামলায় ২ আসামির ফাঁসির রায় বহাল   |   প্রধানমন্ত্রী : রংপুর সিটি কর্পোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ * প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে ২০ প্রতিষ্ঠানের অনুদান প্রদান * ওপেক বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক সম্প্রসারণে আগ্রহী   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : কাজাখস্তানে বাস দুর্ঘটনায় ৫২ জন নিহত * নির্ধারিত সময়ে কম্বোডিয়ার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে : কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী * কান্দাহারে অনলাইনে শিক্ষা নিচ্ছে আফগান তরুণীরা   |   

৯ ডিসেম্বর চাঁদপুর ও দাউদকান্দি দখলদার মুক্ত হয়

ঢাকা, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৫ (বাসস) : ১৯৭১ সালের ৯ ডিসেম্বর ঢাকায় অবিরাম বৃষ্টি হচ্ছিল, ভারতীয় সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ জেনারেল এস এ এম মানেকশ অল ইন্ডিয়া রেডিও এবং লিফলেটের মাধ্যমে বাংলাদেশ দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীর প্রতি আধাঘন্টা পর পর আত্মসমর্পণের অনুরোধ জানান।
প্রাথমিকভাবে পাকিস্তানি বাহিনীও পরিনামের চিন্তায় একবার যুদ্ধবিরতির কথা ভেবেছিল।
ঢাকাস্থ আমেরিকান কনস্যুলেটের মাধ্যমে বার্তাটি দেয়া হয়।
একই দিনে মিত্র বাহিনী চাঁদপুর ও দাউদকান্দিকে দখলদার মুক্ত করে। এই অবস্থায় ঢাকা আক্রমণের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হয়।
এর অগে ৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত হয়। পাকিস্তানিরা কোনো যুদ্ধ না করেই পিছু হটে কুমিল্লা ক্যান্টমেন্টে চলে গেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত হয়।
মিত্র বাহিনী ঝড়ের মধ্যে ক্যান্টমেন্টের দিকে না গিয়ে ঢাকা আক্রমণের সিদ্ধান্তে আরো বেশী করে এগিয়ে যায়।
এদিকে দ্যা নিউ ইয়র্ক টাইমস্ যশোরের একটি সংবাদ পরিবেশন করেছে, তাতে লিখেছে- যশোরে বাঙালীরা নাচ ও গান করছে।
ওই প্রতিবেদনে বলা হয়- মিত্র বাহিনীকে স্বাগত জানাতে বাঙালীরা যশোরে নাচ ও গান করছে।
এতে আরো বলা হয়েছে, লোকজন জয়বাংলা, (বঙ্গবন্ধু) শেখ মুজিব, (বঙ্গবন্ধু) শেখ মুজিব শ্লোগানে মুখরিত।
বিবরণে বলা হয়- পাকিস্তানি বাহিনীর ধ্বংস করে দেয়া নদীর ওপরের সেতুগুলোকে অস্থায়ীভাবে নির্মাণ করে দিতে হাজার হাজার মানুষ মিত্র বাহিনীর সাহায্যে এগিয়ে এসেছে।
প্রতিবেদক বলেছেন তিনি অবাক হয়েছেন, সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের তত্বাবধানে হাজার হাজার গ্রামবাসী স্বেচ্চাশ্রমের মাধ্যমে মাত্র চার ঘন্টার মধ্যেই নদীর ওপরে একটি সেতু অস্থায়ীভাবে নির্মাণ করে দিয়েছে তা দেখে।
অপরদিকে, পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান পাকিস্তানে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত জোসেফ ফারল্যান্ডকে জানান, পাকিস্তানি সেনারা আত্মসমর্পণ করার জন্য প্রস্তুত কিন্তু তারা একটি যুদ্ধবিরতির পক্ষে।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক সহকারী হেনরি কিসিঞ্জার মার্কিন প্রেসিডেন্টকে জানান, ভারতীয়রা (মিত্র বাহিনী পড়তে হবে) ঢাকা থেকে ২২ মাইল দূরে অবস্থান করছে। (তিনি সম্ভবত ৮ ডিসেম্বর মুক্ত হওয়া নরসিংদীকে বোঝাতে চেয়েছেন)।
হেনরি কিসিঞ্জার তার যন্ত্রণার কথা মার্কিন প্রেসিডেন্টকে জানিয়ে বলেন, ভারতীয় সেনাবাহিনীর তত্বাবধানে আত্মসমর্পন করলেই পাকিস্তানি সৈন্য, সংখ্যালঘু (বিহারী) ও কূটনৈতিক কোরের জন্য সহনশীল হবে।
কিসিঞ্জার বলেন, যদি মুক্তি বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পন করে তাহলে রক্তের বন্যা বয়ে যাবে।
জাতিসংঘের মহাসচিব ইউ থান্ট, বিমান বন্দর মেরামত এবং কূটনৈতিক কর্মকর্তাদের ঢাকা ত্যাগের জন্য ২৪ ঘন্টার যুদ্ধ বিরতির আহ্বান জানিয়েছিলেন ।
এদিকে, নব নিযুক্ত পাকিস্তানের উপ-প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী জুলফিকার আলী ভূট্টো এবং ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শরণ সিং নিউ ইর্য়কে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বৈঠকে যোগদান করেন।
ইয়াহিয়া খান পাকিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতকে জানান, একজন বাঙালী নুরুল আমিনকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে, তার ডেপুটি করা হয়েছে ভূট্টোকে কিন্তু তিনি নিউ ইর্য়ক যাত্রা করায় শপথ গ্রহণ হয়নি।
ইয়াহিয়া খান যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত জোসেফ ফারল্যান্ডকে আরো জানান, পাকিস্তানের রাজনীতিবিদরা একটি নতুন ঐকমত্য গড়ে তুলতে (বঙ্গবন্ধু) শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে কথা বলতে প্রস্তুত।
অপর দিকে, পাকিস্তানি বাহিনীকে সহযোগিতার জন্য থাইল্যান্ডের টনকিন সাগর থেকে বঙ্গোপসাগরে সপ্তম নৌ-বহর পাঠানোর অনুরোধ করা হয়।
আরব সাগরে বৃট্রিশ নৌ-বাহিনী একটি জাহাজ পাঠায়।
কিসিঞ্জার, এছাড়াও দেশের সর্বত্র ভারতীয়দের এগিয়ে যাওয়ার সত্য প্রতিবেদন পাঠায়।
কিসিঞ্জার নিক্সনকে জানান, আমি অবাক হয়েছি, চীন কোনো চ্যালেঞ্জ গ্রহণ না করায়, তারা কোনো তৎপরতাতো চালায়নি, এমনকি কোনো হুমকিও দেয়নি।