ঢাকা, মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে ৬ মে থেকে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু * ২০১৮ সালের হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধনের চূড়ান্ত ক্রম প্রকাশ * যুদ্ধাপরাধ মামলায় এনএসআইয়ের সাবেক ডিজি গ্রেফতার   |   প্রধানমন্ত্রী : চট্টগ্রামবন্দর দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে : প্রধানমন্ত্রী * বেলাল চৌধুরীর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক * গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ এওয়ার্ড পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী   |   রাষ্ট্রপতি : দ্বিতীয় মেয়াদে শপথ নিলেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ * ভূ-রাজনৈতিক বিবেচনায় চট্টগ্রাম বন্দরের গুরুত্ব আজ বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি : রাষ্ট্রপতি * কবি বেলাল চৌধুরীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক   |    জাতীয় সংবাদ : আগামী জাতীয় নির্বাচনে বহিঃবিশ্বের হস্তক্ষেপ আশা করে না আওয়ামী লীগ : ওবায়দুল কাদের * রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ২৬১.৮৮ কোটি টাকা দেয়া হয়েছে * ১৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে এএসইউ প্ল্যান্টের উদ্বাধন    |   খেলাধুলার সংবাদ : চেলসিকে হারিয়ে ইউয়েফা ইয়ুথ লীগের শিরোপা জিতলো বার্সেলোনা * তিন বছরের জন্য রোমার জার্সির পৃষ্ঠপোষক হলো কাতার এয়ারওয়েজ * আরেকটি ট্রেবল জয়ের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হেইঙ্কেস   |    জাতীয় সংবাদ : বাংলাদেশের সাবলিল উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতার আহ্বান অর্থমন্ত্রীর * বিশিষ্ট কবি বেলাল চৌধুরী আর নেই * বাংলাদেশের পর্যটন খাতে বিনিয়োগে বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী আহ্বান   |   আবহাওয়া : সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুস্ক থাকতে পারে    |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : মেক্সিকোতে নিখোঁজ ৩ ছাত্র বেঁচে নেই * চীনে অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ১৮ জনের মৃত্যু *কাবুলে সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের * টরেন্টোতে পথচারীদের ওপর গাড়ি তুলে দেয়ার ঘটনায় নিহত ১০   |   

পঁচিশে মার্চ পাক সেনাদের প্রথম আক্রমণের খবর পাঠান কনস্টেবল শাহজাহান মিয়া

!! মাহফুজা জেসমিন !!
ঢাকা, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৫ (বাসস) : ১৯৭১ সালের পঁচিশে মার্চ মধ্যরাতে পাক সেনারা প্রথম রাজারবাগ পুলিশ লাইনে আক্রমণ করে। সুসজ্জিত পাক যুদ্ধবহরের সাথে শুরু হয় রাজারবাগ পুলিশ লাইনের পুলিশ সদস্যদের ৩০৩ রাইফেলের প্রতিরোধ যুদ্ধ। মুহূর্তে রণক্ষেত্রে পরিণত হওয়া পুলিশ ব্যারাকের ওয়ারলেস অপারেটর শাহজাহান মিয়া সারাদেশে ওয়ারলেস বার্তায় জানিয়ে দেন আক্রমণের খবর।
মুক্তিযুদ্ধে রাজারবাগ পুলিশ লাইনের ভমিকার ওপর নির্মিত ডকুমেন্টারিতে মুক্তিযুদ্ধের প্রথম বার্তা প্রেরণ সম্পর্কে শাহাজান মিয়া বলেন,রাত প্রায় সাড়ে এগারোটা। রাজারবাগ পুলিশ লাইনের সদস্যরা তখন নিজেদের অবস্থান নিয়ে নিয়েছে। পাক সেনাদের অস্ত্রসজ্জিতি একটি গাড়ি এসে পৌঁছায় শান্তিনগর মোড়ে। ডন স্কুলের ওপর থেকে বাঙালী পুলিশ সদস্যের ছুড়ে দেয়া প্রথম বুলেটটি আঘাত করে একজন পাকিস্তানি সৈনিকের গায়ে। সাথে সাথে মাটিতে লুটিয়ে পরে সৈনিকটি।... ওপর থেকে ছুড়ে দেয়া সেই বুলেটটিই ছিলো মুক্তিযুদ্ধের প্রথম বুলেট। তার জবাবে গর্জে ওঠে পাক সেনাদের ট্যাংক। মুহূর্তের মধ্যে রাজারবাগ এক যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হয়। পুলিশ স্টেশনের ওয়ারলেস কক্ষে বসে অপারেটর শাহজাহান তখন উত্তেজনায় কাঁপছেন। তিনি ওয়ারলেসে একটি জরুরী বার্তা পাঠান,
বিজয় দিবসকে সামনে রেখে একাত্তরের পঁচিশে মার্চের সেই ভয়াল অভিজ্ঞতার কাছে স্মৃতিচারণ করেন শাহজাহান মিয়া। তিনি বলেন, প্রথম গুলিটি নিক্ষিপ্ত হয় ডন হাইস্কুলের ওপর থেকে। প্রতিউত্তরে আকাশ বাতাস প্রকম্পিত করে হামলা শুরু হয়। আমাদের রাইফেলের দশটা /পাঁচটা গুলি। আর তাদের হাজার হাজার বুলেট। ঠিক সেই মুহূর্তে আমার মনে হয়েছিলো এখন সারা বাংলাদেশকে জানিয়ে দেয়া উচিত। সেদিন ইংরেজিতে একটি সংক্ষিপ্ত মেসেজ পাঠাই। যার সারার্থ হলো, আমরা আক্রান্ত। আমরা প্রতিরোধ গড়ে তুলেছি। এখন তোমরা প্রতিরোধ গড়ে তোল। নিজেদের রক্ষা করো। সেদিন এই মেসেজটি প্্ূর্ব পাকিস্তানের প্রতিটি জেলায় এবং সাব ডিভিশনে পাঠিয়েছিলাম।
শাহজাহান মিয়া বলেন, রাত আনুমানিক ১০টার সময় আমরা তেজগাঁও শিল্পনগরী এলাকা থেকে একটি ওয়ারলেস মেসেজে প্রথম জানতে পারি পাক সেনারা এদিকেই আসছে। বললো, আর কিছক্ষণের মধ্যেই পাক আর্মি ঢাকা আক্রমণ করবে। এই মেসেজ পাওয়ার পরপরই আমাদের সিপাহি আবদুল আলী পাগলা ঘন্টা বাজালো।
সেই ঘন্টা শুনে যে যেখানে ছিলো ছুটে আসতে থাকে অস্ত্রাগারের দিকে। শতাধিক পুলিশ সদস্য অস্ত্রাগারের সামনে জড়ো হন। প্রতিপক্ষকে প্রতিহত করতে তারা অস্ত্রের জন্য অস্থির হয়ে ওঠে। অস্ত্রাগার তালাবদ্ধ দেখে কয়েকজন চাবির জন্য ছুটে যান রিজার্ভ ইন্সপেক্টর মফিজুদ্দিনের বাসায়। সেখানে গিয়ে দেখেন মফিজুর আগেই পরিবার নিয়ে পালিয়ে গেছে। প্রথমে দায়িত্বরত সেন্ট্রির কাছে থাকা রাইফেল দিয়ে গুলি করে তালা ভাঙার চেষ্টা করেন। শেষ পর্যন্ত শাবল দিয়ে তালা ভেঙে সবাই অস্ত্র আর গুলি নিয়ে একত্র হন ফ্ল্যাগ স্টান্ডের সামনে। এরই মধ্যে ক্যাপ্টেন মর্তুজাসহ বেশ কয়েকজন দাড়িয়ে নিয়ম অনুযায়ী স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করেন। পতাকাকে স্যালুট করে পুলিশ সদস্যরা ছুটে যান। অবস্থান নেন সুবিধাজনক স্থানে।
শাহজাহান মিয়া বলেন, রাত আটটার দিকে আমরা বিভিন্ন সোর্স থেকে খবর পেতে থাকি। প্রথম সংবাদটা পেয়েছিলাম আমি। ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সভাপতি কাজী গোলাম মোস্তফা কামালের ছেলের কাছে। তিনিই প্রথম আমাকে খবর দেন। দ্বিতীয় সংবাদটি বঙ্গবন্ধুর জৈষ্ঠ পুত্র শেখ কামালের কাছে পাই। তিনি সেদিন এসেছিলেন মোটরসাইকেল নিয়ে এই রাজারবাগ। পাকবাহিনীর আক্রমণের খবর দিতে।
পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী যেসব স্থানে প্রথম আক্রমণ চালায় রাজারবাগ পুলিশ লাইন তারই একটি। আর এখান থেকেই বাঙালি পুলিশ সদস্যরা প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলে। কনস্টেবল শাহজাহান মিয়ার বার্তায় এ খবরটি সারাদেশে পৌঁছে গেলে সবাই সচকিত হয়ে ওঠে। মধ্যরাতের আঁধার চিরে জেগে ওঠে স্বাধীনতাকামী বাঙালী। তারা নিজ নিজ অবস্থান থেকে পাকসেনাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। যার অনিবার্য পরিণতি বিজয়।