ঢাকা, রবিবার, জানুয়ারী ২১, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : পাঠদানের পাশাপাশি সরকারের সাফল্যের কথাও শিক্ষার্থীদের কাছে তুলে ধরার আহবান রেলপথ মন্ত্রীর * পদ্মাসেতু এখন দৃশ্যমান বাস্তবতা : ওবায়দুল কাদের * সুযোগ তৈরি করে দিলে তরুণ প্রজন্ম সক্ষমতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে : স্পিকার   |   রাষ্ট্রপতি : রফতানি প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বাড়াতে উৎপাদনের গুণগতমান নিশ্চিত করুন : রাষ্ট্রপতি   |    অর্থনীতি : প্রত্যেক জেলায় ত্রাণ গুদাম নির্মাণ করা হবে   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : ষোড়শ ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের পর্দা নামলো * আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হলো কোরীয় ছবি জার্নি ইনটু দ্যা ড্রিম    |   শিক্ষা : উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিশ্বমানে উন্নীত করতে সরকার কাজ করছে : নাহিদ   |    বিভাগীয় সংবাদ : মেহেরপুরে ৯ রাতব্যাপী যাত্রা উৎসব শুরু * নড়াইলে ৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ হচ্ছে পানি শোধনাগার * শতভাগ বিদ্যুতায়নের পথে নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর ৬টি উপজেলা   |    জাতীয় সংবাদ : শুদ্ধভাবে বাংলা ভাষার চর্চা করুন : ইনু * রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় আরো সহায়তা প্রয়োজন : বিশ্বব্যাংক * বিএনপির কোন নীতি আদর্শ নেই : তোফায়েল *বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের আখেরী মোনাজাত আগামীকাল    |   খেলাধুলার সংবাদ : মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে আগামীকাল মুখোমুখি জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলংকা *যুব বিশ্বকাপ : কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত *বিএসপিএ নির্বাচনে মামুন সভাপতি-আনন্দ সাধারণ সম্পাদক   |   আবহাওয়া : নড়াইলে ৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ হচ্ছে পানি শোধনাগার   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : অচলাবস্থার মুখে যুক্তরাষ্ট্র সরকার * ফিলিপাইনে গাড়ি দুর্ঘটনায় নিহত ৭ * তুরস্কে বাস দুর্ঘটনায় নিহত ১১, আহত ৪৬ *নাইজারে বোকো হারামের হামলায় ৭ সৈন্য নিহত * সিউলে মোটেলে আগুন ধরিয়ে দেয়ায় ৫ জনের মৃত্যু   |   

গাইবান্ধা শত্রুমুক্ত হয় ৭ ডিসেম্বর

গাইবান্ধা, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৫ (বাসস) : ১৯৭১ সালের ৭ ডিসেম্বর বীর মুক্তিযোদ্ধারা দখলদার পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে গাইবান্ধা জেলা শহরকে শত্রুমুক্ত করে। হানাদার বাহিনী একাত্তরের ১৭ এপ্রিল গাইবান্ধা দখলে নেয়।
বীর মুক্তিযোদ্ধা কোম্পানী কমান্ডার মাহবুব এলাহী রঞ্জুর (বীর প্রতীক)র নেতৃত্বে ৩শ ৫০ জন মুক্তিযোদ্ধাদের একটি দল কালামোনারচর ভায়া বালাশিঘাট এলাকা দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে বিজয়ীর বেশে শহরে প্রবেশ করেছিল।
এর আগে মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধের নয় মাস ১১ নম্বর সাবসেক্টরে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও তাদের সহযোগীদের বিরুদ্ধে জেলার নান্দীনা, মাদারগঞ্জ, রতনপুর, স্লুইস গেট, ভাঙ্গামোর, মহিমগঞ্জ, ত্রিমহিনি, গবিন্দী বাঁধ ও কালাসোনার চর এলাকায় যুদ্ধ করে।
মাহবুব এলাহী (বীর প্রতীক) বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা ও ভারতীয় মিত্র বাহিনীর যৌথভাবে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে। পাক বাহিনী এ সময় পালিয়ে গিয়ে রংপুর ও বগুড়া সেনানিবাসে আশ্রয় নেয়।
আজ দিবসটি উপলক্ষ্যে গাইবান্ধা হানাদার মুক্ত দিবস উদ্যাপন কমিটি ও অন্যান্য সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন মুক্তি শোভাযাত্রা নামে এক বর্ণঢ্য র‌্যালি, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক আলোচনা, আবৃত্তি, নাটকসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক আয়োজন করে বলে জানান জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার গৌতম চন্দ্র মদক।