ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

রাষ্ট্রপতি : বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে : রাষ্ট্রপতি   |    বিভাগীয় সংবাদ : দিনাজপুরে নাশকতার মামলায় ৪ জেএমবি সদস্যের জামিন আবেদন নামঞ্জুর   |   জাতীয় সংসদ : বঙ্গবন্ধু সেতুতে ডুয়েলগেজ রেললাইনসহ পৃথক রেল সেতু নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী * আগামী বাজেটে বেসরকারি বিদ্যালয়ের এমপিও অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্ত নিবে : প্রধানমন্ত্রী *সকল জেলায় হাইটেক পার্ক স্থাপন করা হবে : প্রধানমন্ত্রী   |   জাতীয় সংসদ : সরকার প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষার প্রতি অত্যন্ত যত্নশীল : প্রধানমন্ত্রী * ২০০৯ সাল থেকে অদ্যাবধি রেলওয়ের বিভিন্ন পদে ১০ হাজার ৩৯১ জনকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে : রেলপথ মন্ত্রী * কিছু রাজনীতিবিদ নির্বাচন এলে বক্রপথে ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন দেখে : প্রধানমন্ত্রী   |   শিক্ষা : শর্ত পূরণ না করা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে : শিক্ষামন্ত্রী   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : প্রাচ্যনাটের অ্যাকটিং স্কুলের নতুন নাটক নৈশভোজ মঞ্চস্থ হলো   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ট্রাম্পের স্বাস্থ্যগত জটিলতা নেই : চিকিৎসক   |   প্রধানমন্ত্রী : উন্নত দেশগুলোকে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর আহবান প্রধানমন্ত্রীর   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কমবে   |   খেলাধুলার সংবাদ : মিরপুর স্টেডিয়ামের শততম ওয়ানডে ম্যাচে শ্রীলংকাকে ২৯১ রানের টার্গেট দিলো জিম্বাবুয়ে *আমাদের পেস বোলাররাই সেরা : রুবেল   |    জাতীয় সংবাদ : ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন বন্ধে সরকারের কোন হাত নেই : ওবায়দুল কাদের *ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচন স্থগিত * নবম ওয়েজ বোর্ডে সাংবাদিকদের স্বার্থ গুরুত্ব পাবে: তারানা হালিম * আপিল শুনানির কার্যতালিকায় যুদ্ধাপরাধী আজহার-কায়সার-সুবহানের মামলা   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ফিলিস্তিনের জন্য জাতিসংঘ সংস্থা থেকে বরাদ্দকৃত অর্থ প্রত্যাহার যুক্তরাষ্ট্রের * মিয়ানমারে রাখাইন বৌদ্ধদের ওপর পুলিশের হামলা ॥ নিহত ৭ * পেরুর সাবেক প্রেসিডেন্টের হাসপাতাল ত্যাগ * মেক্সিকোয় গণকবর থেকে ৩২টি লাশ উদ্ধার    |   

নানা অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে বিজয়ের মাসের প্রথম দিন উদযাপিত

ঢাকা, ১ ডিসেম্বর, ২০১৫ (বাসস) : বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ও নানা অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে ত্রিশ লাখ শহীদ আর দুলাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতার সাক্ষর বিজয়ের মাস আজ শুরু হয়েছে।
বাংলাদেশের সুদীর্ঘ রাজনৈতিক ইতিহাসে শ্রেষ্ঠতম ঘটনা হলো ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ। সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাঙ্গালি জাতির কয়েক হাজার বছরের সামাজিক রাজনৈতিক স্বপ্ন সাধ পূরন হয় এ মাসে।
বাঙালি জাতির সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন মুক্তিযুদ্ধের অবিস্মরণীয় গৌরবদীপ্ত চুড়ান্ত বিজয় এ মাসের ১৬ ডিসেম্বর অর্জিত হয়। স্বাধীন জাতি হিসেবে সমগ্র বিশ্বে আত্মপরিচয় লাভ করে বাঙালিরা। অর্জন করে নিজস্ব ভূ-খন্ড আর সবুজের বুকে লাল সূর্য খচিত নিজস্ব জাতীয় পতাকা । ভাষার ভিত্তিতে যে জাতীয়তাবাদ গড়ে উঠেছিল ,এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে ঘোষিত স্বাধীনতা পূর্ণতা পায় এ দিনে।
বাঙালির হাজার বছরের স্বপ্নপূরণ হবার পাশাপাশি বহু তরতাজা প্রাণ বিসর্জন আর মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে এই অর্জন হওয়ায় বেদনাবিঁধূর এক শোকগাঁথার মাসও এই ডিসেম্বর।
এ মাসেই স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকার-আলবদর আল শামসদের সহযোগিতায় দেশের মেধা, শ্রেষ্ঠ সন্তান-বুদ্ধিজীবী হত্যার নৃশংস হত্যাযজ্ঞে মেতে ওঠে। সমগ্র জাতিকে মেধাহীন করে দেয়ার এধরনের ঘৃণ্য হত্যাযজ্ঞের দ্বিতীয় কোন নজীর বিশ্বে নেই।
বিজয়ের মাসের প্রথমদিন আজ বিভিন্ন সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি পালন করে। এসব কর্মসূচির মধ্যে ছিল বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, বিজয়ের মাসকে স্বাগত জানিয়ে সমাবেশ , মানববন্ধন, বিজয় র‌্যালি ইত্যাদি।
মুক্তযোদ্ধা দিবস বাস্তবায়ন পরিষদ সকাল ১০টায় বিজয়ের মাসের প্রথম প্রহরে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের শিখা চিরন্তনীতে মাসব্যপি কর্মসূচি ঘোষণা করে।এ ছাড়াও বিজয়ের মাসের প্রথম প্রহরে শিখা চিরন্তনীতে পুস্পস্তবক অর্পন এবং দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করে।
বিজয়ের মাসের প্রথম প্রহরে মোমবাতি প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে আওয়ামী যুবলীগের নেতাকর্মীরা। এসময় তারা যুদ্ধাপরাধী মুক্ত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার শপথ নেন।
মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে রাজধানীর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মোমবাতি জ্বালিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তারা।
পরে বিজয়ের মাসে দেশকে যুদ্ধাপরাধী মুক্ত, কলঙ্কমুক্ত এবং সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে দেশবাসীর পাশে থাকার শপথ নেন যুবলীগের নেতাকর্মীরা। নেতাকর্মীদের শপথ বাক্য পাঠ করান দলের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী।
বাংলাদেশ শিশু একাডেমী আজ রাজধানীতে জাতীয় পতাকা নিয়ে এক আনন্দ শোভাযাত্রা বের করে।শোভাযাত্রাটি সকালে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী প্রাঙ্গণ থেকে শুরু হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়।
শোভাযাত্রার উদ্বোধনী পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম।
মেহের আফরোজ চুমকি বলেন, বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা আমাদের বাঁচতে শেখায়, এই পতাকা স্বপ্ন দেখায় এবং পথ চলার সঠিক দিক দেখায়। এই পতাকা চিনিয়ে দেয় বাংলাদেশের নাম।
বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের নেতৃবৃন্দ সকালে এ উপলক্ষে ৩২ ধানমন্ডিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করে। এ ছাড়াও কলাবাগান থেকে ৩২ ধানমন্ডি পর্যন্ত একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাও বের করে সংগঠনটি।
বিজয়ের মাসের প্রথম দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের নেতৃত্বে কলাভবন প্রাঙ্গণের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে একটি বিজয় র‌্যালি বের করা হয়।
বেলুন উড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবারের সদস্যবৃন্দের সমন্বয়ে এই বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। । র‌্যালিটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের স্বাধীনতা চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে সমাবেশ স্থলে উপাচার্য উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন।
র‌্যালিতে প্রো-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. সহিদ আকতার হুসাইন, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীন, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, হলের প্রভোস্ট এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের বিপুল সংখ্যক সদস্য অংশগ্রহণ করেন।
বিজয় র‌্যালি পূর্ব সমাবেশে ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক পাকিস্তানের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন, সার্ক থেকে সদস্যপদ বাতিল করা সহ জাতিসংঘ থেকে সন্ত্রাসী রাষ্ট্র পাকিস্তানকে বহিস্কারের সম্মিলিত উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানান।
বিজয়ের মাস ডিসেম্বরের প্রথম দিন বিজয় র‌্যালি বের করে বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ। সকাল ১০টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দেশাত্মবোধক গানের মধ্যদিয়ে বিজয় র‌্যালির কার্যক্রম শুরু হয়।
বেলা পৌনে ১২টার দিকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জেল হোসেন চৌধুরী মায়ার নেতৃত্বে বিজয় র‌্যালি গুলিস্তান মোড় থেকে শুরু হয়ে বঙ্গবাজার-হাইকোর্ট হয়ে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে দিয়ে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে এসে শেষ হয়।
র‌্যালি শুরুর আগে প্রজন্ম লীগের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে মায়া বলেন, দেশের পতাকা ও মাটি নিয়ে কেউ যেন ষড়যন্ত্র না করতে পারে এ বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের বয়স হয়েছে, এখন তাদের সন্তনদের দায়িত্ব দেশকে শত্রু মুক্ত রাখা।
জাতি এ বছর এমন একটি প্রেক্ষাপটে বিজয় দিবস ও বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করবে যখন একাত্তরের সেই যুদ্ধাপরাধী ও বুদ্ধিজীবী হত্যার সাথে সংশ্লিষ্টদের বিচার কাজ এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত অনেকের বিরুদ্বে ফাঁিসর রায় ঘোষিত হয়েছে। সম্প্রতি ফাঁিসর দ- কার্যকর হয়েছে বুদ্ধিজীবী হত্যার অন্যতম হোতা জামায়েতে ইসলামের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের। একই সাথে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীকেও ফাঁসিতে ঝুলানো হয় । আরো আগে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লা এবং অপর নেতা মো. কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয় ।