ঢাকা, শুক্রুবার, জানুয়ারী ১৯, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি : এখন থেকে দেশেই উৎপাদন হবে কম্পিউটার   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : আফগানিস্তানে সরকারি বাহিনীর অভিযানে ৮ জঙ্গি নিহত * ক্যালিফোর্নিয়ায় ১৩ শিশুকে আটকে রাখা দম্পতিকে আদালতে তোলা হচ্ছে * মুক্ত হওয়ার এক মাস পর ইরাকে আইএসের হুমকি * অস্ট্রেলিয়ার উলুরুর কাছে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত : আহত ৪   |    জাতীয় সংবাদ : বেসরকারি মেডিকেল কলেজের নীতিমালাকে আইনে রূপান্তরিত করার প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করার নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর * মেধাসম্পদের অনলাইন নিবন্ধন সেবা চালু * জ্ঞানভিত্তিক সমাজ ও দেশপ্রেমিক মানুষ গড়ার তাগিদ দিলেন শিক্ষামন্ত্রী   |   জাতীয় সংসদ : ডিসেম্বর নাগাদ পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হবে : সেতু মন্ত্রী * ছয় মাসে ১২২.৬৪ একর রেলভূমি দখলমুক্ত করা হয়েছে : রেলপথ মন্ত্রী * দেশে সাক্ষরতার হার শতকরা ৭১ ভাগ : পরিকল্পনামন্ত্রী   |   প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রীকে সেনাবাহিনীর এসডব্লিউও কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন দুটি প্রকল্প সম্পর্কে অবহিতকরণ   |    জাতীয় সংবাদ : মরতুজা আহমদ নতুন প্রধান তথ্য কমিশনার * মুন সিনেমা হলের মালিককে ৯৯ কোটি টাকা দেয়ার নির্দেশ * রিট করেছে বিএনপি, দোষ পড়েছে আওয়ামী লীগের : ওবায়দুল কাদের * প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছে : তোফায়েল আহমেদ   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : ঝিনাইদহে ১৫ দিনব্যাপী যাত্রা উৎসব শুরু   |    বিভাগীয় সংবাদ : বরগুনায় দুদকর আয়োজনে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ *জয়পুরহাটে প্রবীণদের কম্বল, বয়স্ক ভাতা, উপকরণ প্রদান *হবিগঞ্জে ১১ জন আসামি গ্রেফতার * ভোলায় ৫টি বদ্ধভূমির সংস্কার ও উন্নয়ন করা হচ্ছে   |   খেলাধুলার সংবাদ : পিএসজির আট গোলের বিশাল জয়ে নেইমারের চার গোল *কোপা ডেল রে : মেসির পেনাল্টি মিসে বার্সেলোনার হার * হাথুরুসিংহের পরিকল্পনা ভুলে গেছে বাংলাদেশ : মাশরাফি * শ্রীলংকার বিপক্ষেও জয়ের লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ * বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হলেন কোহলি   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কেটে যেতে পারে   |    জাতীয় সংবাদ : বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব আগামীকাল থেকে শুরু * নির্বাচন বন্ধের জন্য বিএনপিকে অভিযুক্ত করা উচিত * জ্ঞান ও প্রযুক্তি রপ্তানিতেও সক্ষমতা অর্জন করতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী * শিশু আলপনা হত্যা মামলায় ২ আসামির ফাঁসির রায় বহাল   |   প্রধানমন্ত্রী : রংপুর সিটি কর্পোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ * প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে ২০ প্রতিষ্ঠানের অনুদান প্রদান * ওপেক বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক সম্প্রসারণে আগ্রহী   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : কাজাখস্তানে বাস দুর্ঘটনায় ৫২ জন নিহত * নির্ধারিত সময়ে কম্বোডিয়ার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে : কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী * কান্দাহারে অনলাইনে শিক্ষা নিচ্ছে আফগান তরুণীরা * ট্রাম্পের এক বছরে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া সম্পর্কোন্নয়নে ব্যর্থ   |   

মুক্তিযুদ্ধে বাঙালির বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে পাকবাহিনীর সারাদেশে ধর্ষণ বহুলাংশে বেড়ে যায়

ঢাকা, ১১ ডিসেম্বর ২০১৪ (বাসস) : একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের ডিসেম্বরে জাতি যখন বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে তখনই রাজাকার-আলবদরদের সহোযোগিতায় দেশে পাকহানাদাররা বেশি নারী নির্যাতন,ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে।
জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একাত্তরের নির্যাতিতা নারীদের বীরাঙ্গনা উপাধি দিয়ে সমাজে মর্যাদার সঙ্গে পূনর্বাসনের প্রচেষ্টা নিলেও অনেক ভাগ্যহতা তিমীরেই থেকে গেছেন। যাদের অনেককেই হয়তো আর কোনদিন খুঁজে পাওয়া বা চিন্থিত করা সম্ভব হবে না।
মহান মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন বই,পত্রিকা,গবেষণা ধর্মী প্রবন্ধ,মানবাধিকার কর্মীদের বিবরণে এ তথ্য উঠে এসেছে।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ দলিল পত্রর ৮ম খন্ডে(পৃ:৪২-৪৪) পাক সামরিক জান্তার ধর্ষণ সম্পর্কে বলা হয়েছে- ১৯৭১ সালের সালের ডিসেম্বরে মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় মিত্রবাহিনী বাংলাদেশ মুক্ত করার পূর্ব পর্যন্ত পাঞ্জাবি সেনারা নিরীহ বাঙ্গালি মহিলা, যুবতী ও বালিকাদের ওপর নির্মম পাশবিক অত্যাচার ও বীভৎস ধর্ষণ অব্যাহত রাখে। ডিসেম্বরের প্রথম দিকে মিত্রবাহিনী ঢাকায় বোমাবর্ষনের সাথে সাথে পাঞ্জবি সেনারা ধরে নিয়ে যাওয়া অনেক মেয়েকে নির্মমভাবে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে। ...এই নিরীহ মহিলা ও বালিকাদের তাজা রক্ত জমাট হয়েছিল..।
মুক্তিযোদ্ধা লেখক রবীন্দ্রনাথ ত্রিবেদীর মতে, মহান মুক্তিযুদ্ধে ১৪ লাখ নারী বিভিন্নভাবে নির্যাতিত,নিগৃহিত,ধর্ষণ এবং স্বামী,পুত্র, কন্যা হারিয়ে নি:স্ব হয়েছেন। আর দেশব্যাপী বিজয়ের মাস ডিসেম্বরেই সবচেয়ে বেশি নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।
বাংলাদেশকে ভারতের স্বীকৃতি প্রদানের ৪৩ তম বার্ষিকী উপলক্ষে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি প্রকাশিত সাময়িকীতে ভারতের বাংলাদেশ স্বীকৃতি মুক্তিযুদ্ধের অশ্রু-রক্ত-স্বেদভরা দিনগুলি-শীর্ষক প্রবন্ধে রবীন্দ্রনাথ ত্রিবেদী এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, পালিয়ে যাওয়ার সময় পাকবাহিনী অসংখ্য যুবতী মেয়েদের লাঞ্ছিত করে, শত শত মেয়েকে বাংকার ও আশ্রয়স্থলে বন্দী করে পাশবিক নির্যাতন চালায়। পাকবাহিনীর সেই তান্ডব বিশ্ব ইতিহাসের নির্লজ্জতম নজির।
১৯৭১ সালে ত্রিপুরা সরকারী হাসপাতালের চীফ সার্জন হিসেবে দায়িত্ব পালনকারী এবং বর্তমানে কলকাতা নিবাসী ৮১ বছর বয়সের চিকিৎসক ডা.রথীন দত্তের একটি সাক্ষাৎকার ক্রিবেদী তার প্রবন্ধে উদ্বৃত করেন।
ডা.রথীন দত্ত বলেন, সীমান্ত পার হয়ে অনেক বিবাহিত, অবিবাহিত ধর্ষণ ও পাশবিক নির্যাতনে স্বীকার বাংলাদেশী নারীরা ত্রিপুরায় আসতো। তাদের জননেন্দ্রিয় ছিন্নভিন্ন পাওয়া যেত,তারা মারাত্মক জখম থাকতো। তাদের খাতায় নাম না তুলে গোপনে চিকিৎসা দেয়া হতো, অনেককে অপারেশন করা হতো। তিনি নিজেই ২ হাজার ২৫০টি এ ধরনের অপারেশন করেছেন, সমগ্র হাসপাতালে প্রায় ১০ হাজার অপারেশন হয়। তবে,এসব নারীদের কেউ কেউ এখনও তাকে কাকা,মামা,দাদু সম্বোধন করে চিঠি লেখে,তাদের কেউ ঠাকুরমাও হয়েছে বলে তিনি জানান।
ব্রিটিশ চিকিৎসক ম্যালকম পটস এবং অষ্ট্রেলিয়ান গবেষক ডা.জিওফ্রে ডেভিসের (সেময় ইন্টারন্যাশনাল প্লানড প্যারেন্টহুড ফেডারেশন-আইপিপিএফর কর্মরত ) বক্তব্য তুলে ধরে ত্রিবেদী জানান,একাত্তরে বাংলাদেশের কেবল তিন জেলাতেই ১২ হাজার নারী ধর্ষণের স্বীকার হন। ধর্ষনের স্বীকার দুলাখ অন্ত:স্বত্তা নারীর মধ্যে এক লাখ ৭০ হাজারের গর্ভপাত ঘটানো হয়েছে।
এম আর আখতার মুকুল তার আমি বিজয় দেখেছি গ্রন্থে লিখেছেন-২৫ মার্চের পর পাকবাহিনী ও রাজাকার গংদের যে গণহত্যা আর ধর্ষণ তা ডিসেম্বরে পৈশাচিকতার সব সীমা অতিক্রম করে। যুদ্ধের বিভিন্ন ফ্রন্টে নাকাল পাকবাহিনী মুক্তিবাহিনীর কাছে না করে এজন্যই ভারতীয় বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পনে আগ্রহী ছিল।
একাত্তরের নভেম্বর সংখ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের নিউজ উইক পত্রিকায় একটি আর্টিকেলে প্রতিবেদক লেখেন,... লন্ডনের ডেইলি টেলিগ্রাফের সংবাদদাতা ক্লেয়ার ইলিংওয়াথের সঙ্গে মুক্তাঞ্চলের একটি ছোট্টগ্রামে হাজির হলাম।..সর্বত্রই ধ্বংস্তুপের চিন্থ বিদ্যমান।...চৌদ্দ বছরের এক গৃহবধুর কোলে তার কয়েকদিনের এক শিশুর মৃতদেহ।.. বারোজন পাকিস্তানী সৈন্যের পাশবিক..। কাছেই আর একটা গ্রামে নারীর সন্ধানে এসে পাকিস্তানী সৈন্যরা গ্রামটা ধ্বংস করলো। স্থানীয় জনতা প্রতিশোধ নিতে তখন ব্যাকুল বলে তিনি উল্লেখ করেন।