ঢাকা, বুধবার, এপ্রিল ২৫, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে ৬ মে থেকে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু * ২০১৮ সালের হজযাত্রীদের প্রাক-নিবন্ধনের চূড়ান্ত ক্রম প্রকাশ * যুদ্ধাপরাধ মামলায় এনএসআইয়ের সাবেক ডিজি গ্রেফতার   |   প্রধানমন্ত্রী : চট্টগ্রামবন্দর দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে : প্রধানমন্ত্রী * বেলাল চৌধুরীর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক * গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ এওয়ার্ড পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী   |   রাষ্ট্রপতি : দ্বিতীয় মেয়াদে শপথ নিলেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ * ভূ-রাজনৈতিক বিবেচনায় চট্টগ্রাম বন্দরের গুরুত্ব আজ বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি : রাষ্ট্রপতি * কবি বেলাল চৌধুরীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক   |    জাতীয় সংবাদ : আগামী জাতীয় নির্বাচনে বহিঃবিশ্বের হস্তক্ষেপ আশা করে না আওয়ামী লীগ : ওবায়দুল কাদের * রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ২৬১.৮৮ কোটি টাকা দেয়া হয়েছে * ১৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে এএসইউ প্ল্যান্টের উদ্বাধন    |   খেলাধুলার সংবাদ : চেলসিকে হারিয়ে ইউয়েফা ইয়ুথ লীগের শিরোপা জিতলো বার্সেলোনা * তিন বছরের জন্য রোমার জার্সির পৃষ্ঠপোষক হলো কাতার এয়ারওয়েজ * আরেকটি ট্রেবল জয়ের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হেইঙ্কেস   |    জাতীয় সংবাদ : বাংলাদেশের সাবলিল উন্নয়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতার আহ্বান অর্থমন্ত্রীর * বিশিষ্ট কবি বেলাল চৌধুরী আর নেই * বাংলাদেশের পর্যটন খাতে বিনিয়োগে বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী আহ্বান   |   আবহাওয়া : সারাদেশের আবহাওয়া প্রধানত শুস্ক থাকতে পারে    |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : মেক্সিকোতে নিখোঁজ ৩ ছাত্র বেঁচে নেই * চীনে অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ১৮ জনের মৃত্যু *কাবুলে সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের * টরেন্টোতে পথচারীদের ওপর গাড়ি তুলে দেয়ার ঘটনায় নিহত ১০   |   

মুক্তিযুদ্ধে নরসিংদীর বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা

॥ মোহাম্মদ আবু তাহের ॥
নরসিংদী, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৪ (বাসস) : ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে রাজধানী ঢাকা থেকে ৫৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত নরসিংদীর ছিল গৌরবান্বিত বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে এ জেলার মুক্তি পাগল অনেক লোক মুক্তিযুদ্ধে যোগদান করেছেন।
২৫ মার্চ কালো রাতের পর মোসলেউদ্দিন ভূঞার নেতৃত্বে নরসিংদীতে সংগ্রাম পরিষদ গঠন করা হয়। মাতৃভূমি রক্ষার্থে পাকিস্তানি দখলদার বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করতে ছাত্রসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার লোকজন মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণ করেন।
এসময় পুলিশ, আনসার ও ইপিআরের তিন শতাধিক সৈন্য লঞ্চযোগে নরসিংদীতে এসে পৌঁছায়। একই সময়ে ট্রেনযোগে অস্ত্র ও গোলাবারুদও পৌঁছে যায়।
ক্যাপ্টেন মতিউর রহমানের নেতৃত্বে সেদিন অস্ত্রগুলো গ্রহণ করা হয়। ওই রাতেই প্রায় এক হাজার ছাত্র ও যুবক পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে তুলে নেয়।
তখন ছাত্র ও যুবকরা যুদ্ধের প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে সীমান্তের ওপারে যাওয়া শুরু করে এবং অস্ত্র ও গোলাবারুদ চালানোর প্রশিক্ষণ শেষে দেশে ফিরে আসে।
নরসিংদীর বিভিন্ন স্থানে পাকিস্তানি বাহিনী ৪ ও ৫ এপ্রিল বিমান থেকে বোমা হামলা চালায়। তাদের এই নির্মম হামলায় নারী ও শিশুসহ প্রায় ২শ লোক নিহত হয়। এই হত্যাকা- নরসিংদীর মুক্তিপাগল জনতার চেতনাকে দমাতে পারেনি।
স্থলপথে এসে ১৪ এপ্রিল পাকিস্তানি বাহিনী নরসিংদী দখলের চেষ্টা চালালে মাধবদীর কাছে বাগবাড়ি ও পালবাড়ি এলাকায় প্রথম গেরিলা হামলা চালিয়ে মুক্তিযোদ্ধারা প্রতিরোধ গড়ে তোলে। এ সময় বোমা হামলায় দুজন পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়।
এই প্রতিরোধে যে সব মুক্তিযোদ্ধা বীরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন তারা হলেন মীরাজুদ্দিন, মীর ইমদাদুল হক, ইমামুদ্দিন, আবদুল মান্নান, আবদুল হামিদ, আকতার হোসেন, আবুল হোসেন, শামসুল হুদা বাচ্চু, বজলুর রহমান, গোয়েস আলী মাস্টার, আলী আকবর ও মোতালেব পাঠান।
এর একদিন পর পাকিস্তানি বাহিনী আবার ফিরে এসে তীব্রভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর বোমা হামলা চালায়। তখন মুক্তিযোদ্ধারা ফিরে এসে তাদের ক্যাম্প নরসিংদীর অন্যত্র সরিয়ে নেয়।
পাকিস্তানি বাহিনী তাদের সহযোগী রাজাকারদের সাহায্য নিয়ে অনেক লোককে হত্যা করে। তারা জেলার ছয়টি উপজেলার ১৫টি স্থানে জবাইখানা স্থাপন করে।
নয় মাসের যুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনী নরসিংদী শহর ও এর আশপাশের এলাকা থেকে লোকজনকে ধরে এনে হত্যা করে মেঘনা নদীতে লাশ ভাসিয়ে দিতো।
বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজনকে অপহরণের পর নরসিংদী টেলিফোন এক্সচেঞ্জ, শ্মশান ঘাট ও খাতাহারা সেতুতে এনে প্রতিনিয়ত হত্যা করতো। এই তিনটি স্থান ছিল তাদের হত্যাকা- চালানোর অন্যতম কেন্দ্র।
নরসিংদী পৌরসভা ও টেলিফোন এক্সচেঞ্জে বসে প্রতিটি জবাইখানার সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করতো।
অনেক মুক্তিকামী জনগণকে পাকবাহিনী হত্যা করে শিলমান্দি, তারা পুকুর পাড় এবং জিনারদিতে গণকবর দিয়েছে।
পাকবাহিনী তাদের দোসর দালালদের সহযোগিতায় নরসিংদী সরকারি কলেজের অধ্যাপক সরোজ কুমার অধিকারীকে অপহরণ করে হত্যার করে এবং পরে কবর দেয়।
নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে বেলাবো উপজেলার নীলকুঠির আড়িয়াল খাঁ নদীর পাড়ে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকিস্তানি বাহিনীর এক ভয়াবহ যুদ্ধ সংঘটিত হয়। পাকিস্তানি বাহিনীর নির্বিচারে চালানো গুলিতে সাবদার আবুল বাশার, মমতাজ উদ্দিন, আবদুস সালাম, আবদুল হক, আবদুল বারিসহ ৩৫ জন মারা যান। তাদেরকে আড়িয়াল খাঁ নদীর তীরে সমাহিত করা হয়।
একই দিনে পাকিস্তানি বাহিনী রায়পুরা বাজারেও তা-ব চালায়।
মূলত ১০ ডিসেম্বর রাতেই মুক্তিযোদ্ধারা কয়েকভাগে পাকিস্তানিদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়লে তাদের মূল অবকাঠামো ভেঙ্গে পড়ে।
এক পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানিদের মূল্য ক্যাম্পের চারিদিকে ঘিরে ফেলে আক্রমণ করে। ১২ ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনী আর যুদ্ধ না করেই আত্মসমর্পণ করে। বিজয় দিবসের চারদিন আগে নরসিংদী মুক্তিযোদ্ধাদের দখলে চলে আসে।