ঢাকা, শুক্রুবার, জানুয়ারী ১৯, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি : এখন থেকে দেশেই উৎপাদন হবে কম্পিউটার   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : আফগানিস্তানে সরকারি বাহিনীর অভিযানে ৮ জঙ্গি নিহত * ক্যালিফোর্নিয়ায় ১৩ শিশুকে আটকে রাখা দম্পতিকে আদালতে তোলা হচ্ছে * মুক্ত হওয়ার এক মাস পর ইরাকে আইএসের হুমকি * অস্ট্রেলিয়ার উলুরুর কাছে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত : আহত ৪   |    জাতীয় সংবাদ : বেসরকারি মেডিকেল কলেজের নীতিমালাকে আইনে রূপান্তরিত করার প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করার নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর * মেধাসম্পদের অনলাইন নিবন্ধন সেবা চালু * জ্ঞানভিত্তিক সমাজ ও দেশপ্রেমিক মানুষ গড়ার তাগিদ দিলেন শিক্ষামন্ত্রী   |   জাতীয় সংসদ : ডিসেম্বর নাগাদ পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হবে : সেতু মন্ত্রী * ছয় মাসে ১২২.৬৪ একর রেলভূমি দখলমুক্ত করা হয়েছে : রেলপথ মন্ত্রী * দেশে সাক্ষরতার হার শতকরা ৭১ ভাগ : পরিকল্পনামন্ত্রী   |   প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রীকে সেনাবাহিনীর এসডব্লিউও কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন দুটি প্রকল্প সম্পর্কে অবহিতকরণ   |    জাতীয় সংবাদ : মরতুজা আহমদ নতুন প্রধান তথ্য কমিশনার * মুন সিনেমা হলের মালিককে ৯৯ কোটি টাকা দেয়ার নির্দেশ * রিট করেছে বিএনপি, দোষ পড়েছে আওয়ামী লীগের : ওবায়দুল কাদের * প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত হয়েছে : তোফায়েল আহমেদ   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : ঝিনাইদহে ১৫ দিনব্যাপী যাত্রা উৎসব শুরু   |    বিভাগীয় সংবাদ : বরগুনায় দুদকর আয়োজনে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ *জয়পুরহাটে প্রবীণদের কম্বল, বয়স্ক ভাতা, উপকরণ প্রদান *হবিগঞ্জে ১১ জন আসামি গ্রেফতার * ভোলায় ৫টি বদ্ধভূমির সংস্কার ও উন্নয়ন করা হচ্ছে   |   খেলাধুলার সংবাদ : পিএসজির আট গোলের বিশাল জয়ে নেইমারের চার গোল *কোপা ডেল রে : মেসির পেনাল্টি মিসে বার্সেলোনার হার * হাথুরুসিংহের পরিকল্পনা ভুলে গেছে বাংলাদেশ : মাশরাফি * শ্রীলংকার বিপক্ষেও জয়ের লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ * বর্ষসেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হলেন কোহলি   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কেটে যেতে পারে   |    জাতীয় সংবাদ : বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব আগামীকাল থেকে শুরু * নির্বাচন বন্ধের জন্য বিএনপিকে অভিযুক্ত করা উচিত * জ্ঞান ও প্রযুক্তি রপ্তানিতেও সক্ষমতা অর্জন করতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী * শিশু আলপনা হত্যা মামলায় ২ আসামির ফাঁসির রায় বহাল   |   প্রধানমন্ত্রী : রংপুর সিটি কর্পোরেশনের নবনির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলরদের শপথ গ্রহণ * প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে ২০ প্রতিষ্ঠানের অনুদান প্রদান * ওপেক বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক সম্প্রসারণে আগ্রহী   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : কাজাখস্তানে বাস দুর্ঘটনায় ৫২ জন নিহত * নির্ধারিত সময়ে কম্বোডিয়ার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে : কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী * কান্দাহারে অনলাইনে শিক্ষা নিচ্ছে আফগান তরুণীরা * ট্রাম্পের এক বছরে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া সম্পর্কোন্নয়নে ব্যর্থ   |   

যশোর ক্যান্টনমেন্ট পতনের পর পাক বাহিনী ফরিদপুর সদর দফতরের পিছু হটতে শুরু করে

ফরিদপুর, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৪ (বাসস) : যশোর ক্যান্টনমেন্ট পতনের পর পাক হানাদার বাহিনী কামারখালী-মাগুরা সীমান্তবর্তী মধুমতি নদী পার হয়ে ফরিদপুর সদর দফতরের পিছু হটতে শুরু করে।
পাক হানাদার বাহিনী বিভিন্ন দিক থেকে তাদের শক্তি বৃদ্ধি করতে থাকে। কিন্তু সাহসী মুক্তিবাহিনী কামারখালী-ফরিদপুর সড়কের বিভিন্ন স্থানে তাদের ওপর হামলা চালায়। এতে আক্রমণকারীরা হতাহত হয় ও তাদের রসদের ক্ষতি হয়।
৯ ডিসেম্বর বীর মুক্তিবাহিনীর কমান্ডার কাজী সালাউদ্দিন নাসিমের নেতৃত্বে প্রায় ৪০ জন মুক্তিযোদ্ধা করিমপুর ব্রিজে পিছু হটা পাক বাহিনীর ভ্যানে আক্রমণ করে। এতে পাক বাহিনীর ব্যাপক ক্ষতি হয়। কিন্তু কিছুক্ষণ পর একটি কনভয় ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। মুক্তিবাহিনী কৌশলগত কারণে পিছু হটে এবং ধোপাডাঙ্গা-চাঁদপুর গ্রামে অবস্থান নেয়।
পাক বাহিনী মুক্তিযোদ্ধাদের অনুসরণ করে তাদের অবস্থান ঘেরাও করে। এ সময় মুক্তিবাহিনী ও ভারি অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পাক বাহিনীর সঙ্গে অসম সংক্ষিপ্ত যুদ্ধ হয়। মুক্তিবাহিনী আক্রমণকারীদের কয়েক ঘণ্টা প্রতিহত করে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তারা টিকতে পারেনি।
করিমপুর যুদ্ধে এই দলের নেতা কাজী সালাউদ্দিন, মেসবাহউদ্দিন নওফেল, আবদুল ওহাব, শামসুদ্দিন মোল্লা, মঈনউদ্দিন, আবদুল হামিদ ও মুজিবুর রহমান শহীদ হন। তারা সকলেই কলেজ ছাত্র ছিলেন।
পাক বাহিনী আহত সালাউদ্দিন ও নওফেলের আশ্রয় নেয়া বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়। অপর প্রখ্যাত মুক্তিবাহিনী নেতা হেমায়েত উদ্দিন এই যুদ্ধে সালাউদ্দিনকে সহায়তা করেছিলেন। তিনিও বৃদ্ধা আঙ্গুলে গুরুতর আঘাত পেয়েছিলেন। এই যুদ্ধে মোমিন ও তবিবুর রহমান আহত হয়েছিলেন।
করিমপুর যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীর সদস্য ইদ্রিস মোল্লা, ডা. রুনু, আবু বকর সিদ্দিক, আশিনুর রহমান ফরিদ ও কাজী ফরিদউদ্দিন বেঁচে গিয়েছিলেন।
ক্রীড়া সংগঠক আশিনুর রহমান ফরিদ বাসসকে জানান, যুদ্ধের শেষ পর্যায়ে এটি ছিল মুক্তিবাহিনীর জন্য বড় ধরনের ক্ষতি।
করিমপুর যুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণকারী ফরিদ জানান, শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদেরকে ১৬ ডিসেম্বরের পরে শহরের আলীপুর গোরস্থানে দাফন করা হয়।