ঢাকা, মঙ্গলবার, জানুয়ারী ১৬, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

জাতীয় সংবাদ : ঝড়-বৃষ্টির মৌসুমে স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা ঝুঁকিতে ৫ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা শিশু : ইউনিসেফ   |   জাতীয় সংসদ : শিগগিরই তিস্তা নদীর পানি বন্টন চুক্তি সম্পাদন : পানি সম্পদ মন্ত্রী * বিচারাধীন মামলা দ্রুত নিষ্পত্তিতে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে : আইনমন্ত্রী * সরকারি শূন্য পদ দ্রুত পূরণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে : জন প্রশাসন মন্ত্রী   |   প্রধানমন্ত্রী : একনেকে ১৪ প্রকল্প অনুমোদন : তিন হাজার বিদ্যালয়ে একাডেমিক ভবন নির্মাণ করা হবে * আবুল খায়েরের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক   |   বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি : ঢাকা শহরের ছাদ ব্যবহার করে ১ হাজার মেগাওয়াট সৌরবিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব : নসরুল হামিদ   |    অর্থনীতি : নওগাঁয় রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের ৬ মাসে ৯২ কোটি ৩০ লাখ টাকার ঋণ বিতরণ    |    জাতীয় সংবাদ : ২ বছরের মধ্যে রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তন সম্পন্নে রূপরেখা চূড়ান্ত * ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলা : আরো দুই আসামীর পক্ষে যুক্তিতর্ক পেশ * পীরগঞ্জের শীতার্তদের জন্য কম্বল হস্তান্তর করেছেন স্পিকার * জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভা আগামীকাল   |   খেলাধুলার সংবাদ : পুলিশ বর্ষসেরা খেলোয়াড় দ্বীন ইসলাম, লতা পারভীন ও আকলিমা *মাঠে খারাপ আচরণের জন্য কোহলিকে জরিমানা   |   শিক্ষা : বাংলাদেশের জন্মের পেছনে ঢাবির অবদান রয়েছে : ঢাবি উপাচার্য   |    বিভাগীয় সংবাদ : জয়পুরহাটে বোরো ধানের চারা রক্ষা করতে পলিথিনে ঢেকে রাখার পরামর্শ * নীলফামারীতে কৃষক নেমেছে বোরো আবাদের মাঠে : লক্ষ্যমাত্রা ৮৪ হাজার হেক্টর জমি   |   আবহাওয়া : আগামীকাল থেকে দক্ষিণাঞ্চলের শৈতপ্রবাহ কেটে যেতে পারে   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ট্রানজিট বিষয়ে সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষর * আফগানিস্তানে আইএসের ২১ যোদ্ধা নিহত * জাপানের জলসীমায় ভেসে আসা নৌকা থেকে ৮ জনের লাশ উদ্ধার * লিবিয়ার পশ্চিম উপকূল থেকে অবৈধ ৩৬০ শরণার্থী উদ্ধার   |   

পবিত্র কুরআন শপথ করে অস্ত্র গ্রহণ করেন বরিশালের মুক্তিযোদ্ধারা

॥শুভব্রত দত্ত॥
বরিশাল, ৪ ডিসেম্বর ২০১৪ (বাসস) : ১৯৭১র মহান মুক্তিযুদ্ধে পবিত্র কুরআন শপথ করে অস্ত্র গ্রহণ করেন বরিশালের মুক্তিযোদ্ধারা। জীবন বাজি রেখে পাকহানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে মরণপন লড়াই করেন তারা।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের পর থেকে বরিশালে সাধারণ মানুষকে আন্দোলনের মধ্যে রাখার জন্য সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে প্রতিটি পাড়ায়, মহল্লায় অনুষ্ঠিত হতো সভা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
স্বাধীনতায় উজ্জীবিত করা সেসব গণসংগীতে উদ্বেলিত হতো মানুষ। সেসব গানের মধ্যে গণসংগীত শিল্পি আবু আল সাঈদ নান্টুর জয় স্বাধীন বাংলা গানটি সব সভার অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠে।
জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শেখ কুতুব উদ্দিন বলেন, ২৫শে মার্চ রাতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শেষ গানটি ছিল জয় স্বাধীন বাংলা। গানটি শুরু হওয়ার সাথে সাথে সভায় মাইকে ঘোষণা করা হয় ঢাকা ক্রাক ডাউনের কথা। এতে চারিদিকে শোরগোল পরে যায় । দিকনির্দেশনা পেতে ব্যস্ত হয়ে উঠেন অনেকে। ততক্ষণে নগরীর বগুরা রোড কৃষি অফিস চত্বরের (বর্তমান) ওই সমাবেশে উপস্থিত হন তৎকালীন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক । তার বাসায় আবার বৈঠক বসে । সেখানে আসেন এমপিএ আমির হোসেন আমু (বর্তমান শিল্প মন্ত্রী), এডভোকেট হাসান ইমাম চৌধুরী, এডভোকেট হেমায়েত উদ্দিন আহমেদসহ আওয়ামী লীগের প্রায় সব নেতা ।
পুলিশ লাইন থেকে অস্ত্র সংগ্রহের সিদ্ধান্ত হয় ওই বৈঠকে। গভীর রাতে বৈঠক শেষে সবাইকে মুক্তিযুদ্ধের সূচনা কেন্দ্র সদর গার্লস স্কুল মাঠে আসার নির্দেশ দিলেন মঞ্জু ভাই। এরপর ২৫ মার্চ রাত ৩ টার দিকে পুলিশ লাইন অস্ত্রাগারে যান নুরুল ইসলাম মঞ্জু, আমির হোসেন আমু, আব্দুল বারেক, মহিউদ্দিন আহমেদ,জালাল সরদারসহ আরও অনেকে। পুলিশের সহায়তায় একটি রুমে রক্ষিত ৭৫টি রাইফেল এবং ২৫ প্যাকেট গুলি আনেন তারা।
শহর ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি এনায়েত হোসেন চৌধুরী জানান, ২৫শে মার্চ ভোরে পেশকার বাড়ীর পুকুরে ওযু করে পবিত্র কুরআন শপথ করে ওই অস্ত্র গ্রহণ করেন মুক্তিযোদ্ধারা ।
তিনি আরো জানান, সেদিন শপথ বাক্য পাঠ করানোর আগে কোন প্রস্তুতি ছিল না। শপথ বাক্যের মূল বিষয় ছিল- দেশকে শত্রু মুক্ত, একটি স্বাধীন দেশ গড়বো, এ অস্ত্র হাতে নিয়ে কোন অসৎ কাজ করবো না, বাংলাদশকে পাকিস্তানী হায়নাদের হাত থেকে মুক্ত করবো।