ঢাকা, সোমবার, জানুয়ারী ২২, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

শিক্ষা : ঢাবি সিনেটে ২৫জন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ   |   জাতীয় সংসদ : কৃষি কাজে ভূ-গর্ভস্থ পানি ব্যবস্থাপনা বিল-২০১৮ সংসদে পাস * সরকার ১৭৮টি নদী খনন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে : শাজাহান খান * প্রত্যেক বিভাগীয় শহরে বিশেষায়িত হৃদরোগ হাসপাতাল স্থাপন করা হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী   |    জাতীয় সংবাদ : সরকারের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে হবে : তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা * ঢাকা ইউএইকে আরো বাংলাদেশী শ্রমিক নিয়োগের আহ্বান জানাবে * বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে এডিবি বৃহৎ অংশীদার : খন্দকার মোশাররফ * আগামীকাল সরস্বতী পূজা   |    অর্থনীতি : দাম বেড়েছে ১৬৮টির, কমেছে ১১৩টির এবং অপরিবর্তিত ৫৪ কোম্পানির শেয়ার * রাশিয়ায় তৈরি পোশাক রপ্তানিতে ডিউটি ও কোটা ফ্রি সুবিধা চাইলেন বাণিজ্যমন্ত্রী   |   প্রধানমন্ত্রী : জ্ঞানার্জনে ব্রতী হয়ে দেশ গঠনে আত্মনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর * এস এম আতিউর রহমানের ইন্তেকালে প্রধানমন্ত্রীর শোক * ভূমির মালিকানা পার্বত্য চট্টগ্রামবাসীরই থাকবে : প্রধানমন্ত্রী    |    বিভাগীয় সংবাদ : সরস্বতী পূজা উপলক্ষে জেলার বিভিন্ন স্থানে বসেছে প্রতিমার হাট * মাগুরায় অস্বচ্ছল ও অসুস্থ ব্যক্তির মাঝে অনুদানের চেক বিতরণ * রংপুরকে আধুনিক সিটি কর্পোরেশন হিসেবে গড়ে তুলতে চাই : নবনির্বাচিত মেয়র   |   রাষ্ট্রপতি : শিক্ষাবিদ নুরুল হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক * সম্প্রীতির ঐতিহ্যকে সুদৃঢ় করতে নিজ-নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখতে হবে : রাষ্ট্রপতি * বঙ্গভবন থেকে রাষ্ট্রপতির আখেরি মোনাজাতে অংশগ্রহণ    |    জাতীয় সংবাদ : নির্বাচন নিয়ে বিএনপি কী রূপরেখা দেয় সেটার অপেক্ষায় আছি : ওবায়দুল কাদের * সহায়ক সরকারের প্রস্তাব বিএনপির চক্রান্তের রাজনীতির অংশ : তথ্যমন্ত্রী * আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা সমাপ্ত   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : আফগানিস্তানে অতর্কিত হামলায় সরকারপন্থী ১৮ মিলিশিয়া নিহত *যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল সরকারের অর্থায়নে সোমবার ভোট *প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের এক বছর ॥ হাজারো নারীর বিক্ষোভ   |   খেলাধুলার সংবাদ : জিম্বাবুয়েকে ৫ উইকেটে হারালো শ্রীলংকা * জিম্বাবুয়েকে ৫ উইকেটে হারালো শ্রীলংকা *আইপিএলে এলিট তালিকায় সাকিব *অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে রাফায়েল নাদাল   |   

নেত্রকোনায় ৭ শহীদ মুক্তিযোদ্ধার গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা স্মরণীয় হয়ে থাকবে

নেত্রকোনা, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৪ (বাসস) : দিনটি ছিল ১৯৭১ সালের ২৬ জুলাই। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এ দিনটি স্মরণীয় হয়ে আছে। ৭ জন মুক্তিযোদ্ধা এ দিনে পাকিস্তানের দখলদারদের বিরুদ্ধে লড়াই করে শহীদ হন। এলাকাবাসী শ্রদ্ধার সাথে প্রতি বছর তাদেরকে স্মরণ করে।
নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা উপজেলার নৌ-সীমান্ত এলাকার নাজিরপুর বাজার। এখানে পাকিস্তানের সৈন্যদের সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধ করে শহীদ হন সাত বীর মুক্তিযোদ্ধা। শহীদ মুক্তিযোদ্ধারা হলেন দ্বিজেন্দ্র, ভবতোষ, নূরুজ্জামান, ইয়ার মাহমুদ, ফজলুল হক, ড. আব্দুল আজিজ এবং মোহাম্মদ জামালউদ্দিন। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এবং নেত্রকোনা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সূত্রে এ খবর জানা গেছে।
নেত্রকোনার সকলস্তরের জনগণ প্রতি বছর দিবসটি ঐতিহাসিক নাজিরপুর দিবস হিসেবে পালন করে। এ দিনে মহান মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।
নাজমুল হক তারার নেতৃত্বে একদল মুক্তিযোদ্ধা মাতৃভূমিকে মুক্ত করতে এবং আধুনিক অস্ত্র নিয়ে পাকিস্তানি সৈন্যদের সঙ্গে মুখোমুখি যুদ্ধ করতে মানসিক প্রস্তুতি নিয়েছিল। এদিন সকাল প্রায় সাড়ে ১১টায় মুক্তিযোদ্ধারা দেখতে পায়, কয়েকটি বড় নৌকায় করে পাকিস্তানি সৈন্যরা বাজারের দিকে আসছে। মুক্তিযোদ্ধারা হালকা মেশিনগান নিয়ে পাকিস্তানি সৈন্যদের উপর আকস্মিকভাবে হামলা চালায়। এ সময় নৌকায় কয়েকজন পাকিস্তানি সৈন্য নিহত হয়। অপ্রস্তুত পাকিস্তানি সৈন্যরা মুক্তিযোদ্ধাদের উপর পাল্টা হামলা চালায়। তারা নৌকা থেকে নেমে নাজিরপুর বাজার ঘিরে ফেলে এবং এলোপাথারি গুলি ছুড়তে থাকে। পাকিস্তানি সৈন্যরা এক পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধাদেরকে ঘিরে ফেলে। এ অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধারা জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে গুলি ছুড়তে থাকে। এই ভয়াবহ মুখোমুখি সংঘর্ষের সময় সাত মুক্তিযোদ্ধা গুলিবিদ্ধ হয়ে শহীদ হন।
এ সময় তাদের কমান্ডার তারা গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। এই সম্মুখ যুদ্ধে ৯ জন পাকিস্তানি সৈন্য নিহত এবং ৭ জন রাজাকার মারাত্মক আহত হয়। বাকি পাকিস্তানি সৈন্যরা রাজাকার ও আল-বদরদের সহায়তায় পালিয়ে যায়। পরে পাকিস্তান বিমান বাহিনী দুটি হেলিকপ্টারের সহায়তায় তাদের মৃতদেহ সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।
এই যুদ্ধে জয়ী বাকি মুক্তিযোদ্ধারা নাজিরপুর বাজারে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়ায়। পরে শহীদ সাত মুক্তিযোদ্ধার মৃতদেহ জাতীয় পতাকা দিয়ে মুড়িয়ে জেলার ফুলবাড়িয়ায় নিয়ে যেয়ে দাফন করা হয়।
স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক বাসসকে জানান, নাজিরপুর বাজারে মুক্তিযোদ্ধাদের হামলায় পাকিস্তানি সৈন্যদের হতাহতের ঘটনায় তাদের মনোবল ভেঙ্গে যায়।
মুক্তিযোদ্ধাদের এই সফল অভিযান মুক্তিযুদ্ধের সময় অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধাদের উৎসাহিত করেছিল। ঐতিহাসিক নাজিরপুর যুদ্ধের স্মৃতি স্মরণ করে তিনি বলেন, সাত শহীদ মুক্তিযোদ্ধার গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা তার এবং নেত্রকোনার জনগণের হৃদয়ে চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে।