ঢাকা, সোমবার, জুন ২৬, ২০১৭

সংবাদ শিরোনাম 

খেলাধুলার সংবাদ : ঈদ উদযাপনের জন্য সাতক্ষীরায় মুস্তাফিজ * কুম্বলে নিজেই সরে গিয়েছে : গাঙ্গুলী   |   প্রধানমন্ত্রী : প্রধানমন্ত্রী কাল গণভবনে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন * ঈদ শান্তি, সহমর্মিতা ও ভ্রাতৃত্ববোধের অনুপম শিক্ষা দেয় : প্রধানমন্ত্রী   |   রাষ্ট্রপতি : ইসলাম সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ সমর্থন করে না : রাষ্ট্রপতি   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : সৌদি আরবকে দুটো দ্বীপ দেয়া নিয়ে উত্তাল মিসর * ব্রিটেনে ঈদের নামাজিদের ওপর গাড়ি, আহত ৬   |    জাতীয় সংবাদ : কাল পবিত্র ঈদুল ফিতর * মক্কায় সন্ত্রাসী হামলা চেষ্টায় ঢাকার নিন্দা * প্রধানমন্ত্রী মায়ের মতো দেশের মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন : ভূমিমন্ত্রী * জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় ঈদের জামাত হবে   |    বিভাগীয় সংবাদ : নীলফামারীতে ৪ লাখ পরিবারের মাঝে ভিজিএফ বিতরণ *চাঁদপুরে ৪০ গ্রামে উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল ফিতর *শরীয়তপুরের ৩০ গ্রামে আজ ঈদুল ফিতর উদ্যাপিত হচ্ছে*   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : পাকিস্তানে তেলবাহী ট্যাংকারে অগ্নিকান্ডে ১২৩ জনের মৃত্যু * কলম্বিয়ায় খনিতে বিস্ফোরণে ৮ জনের মৃত্যু, নিখোঁজ ৫ * জাপানের মধ্যাঞ্চলে ৫.২ মাত্রার ভূমিকম্প * মেক্সিকোয় সহিংসতায় ৩ পুলিশসহ নিহত ৯ * ইন্দোনেশিয়ায় আইএস জঙ্গি হামলায় পুলিশ কর্মকর্তা নিহত *    |   

সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের কাছে প্রেরণার উৎস : রাষ্ট্রপতি

ঢাকা, ১৯ জুন ২০১৭ (বাসস) : রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, বেগম সুফিয়া কামালের আদর্শ ও অমর সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের কাছে প্রেরণার চিরন্তন উৎস হয়ে থাকবে।
তিনি বলেন, কবি সুফিয়া কামাল রচিত সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মকে গভীর দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করে। কবির জীবন ও আদর্শ এবং তাঁর অমর সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার চিরন্তন উৎস হয়ে থাকবে। আগামীকাল বেগম সুফিয়া কামালের ১০৬তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে দেয়া এ বাণীতে রাষ্ট্রপতি এ কথা বলেন।
আবদুল হামিদ বলেন, কবি সুফিয়া কামাল ছিলেন বাংলাদেশের নারী সমাজের এক উজ্জ্বল ও অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব। তিনি নারী সমাজকে কুসংস্কার আর অবরোধের বেড়াজাল থেকে মুক্ত করতে আমৃত্যু সংগ্রাম করে গেছেন। তিনি ছিলেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।
বাণীতে তিনি বলেন, দেশের সকল প্রগতিশীল আন্দোলন সংগ্রামে সুফিয়া কামাল সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন। নারীদের সংগঠিত করে মানবতা, অসাম্প্রদায়িকতা, দেশাত্মবোধ ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ সমুন্নত রাখতে তিনি ছিলেন সর্বদা সচেষ্ট। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নারী-পুরুষের সমতাপূর্ণ একটি মানবিক সমাজ ও রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা ছিল সুফিয়া কামালের জীবনব্যাপী সংগ্রামের প্রধান লক্ষ্য।
রাষ্ট্রপতি বলেন, সুফিয়া কামালের জন্ম ১৯১১ সালের ২০ জুন বরিশালের শায়েস্তাবাদের এক অভিজাত পরিবারে। তৎকালে বাঙালি মুসলমান নারীদের লেখাপড়ার সুযোগ একেবারে সীমিত থাকলেও তিনি নিজ চেষ্টায় লেখাপড়া শেখেন এবং ছোটবেলা থেকেই কবিতাচর্চা শুরু করেন। সুললিত ভাষায় ও ব্যঞ্জনাময় ছন্দে তাঁর কবিতায় ফুটে উঠত সাধারণ মানুষের সুখ-দুঃখ ও সমাজের সার্বিক চিত্র।
তিনি বলেন, নারী জাগরণের পথিকৃৎ বেগম রোকেয়ার সাথে সুফিয়া কামালের সাক্ষাৎ ঘটে ১৯১৮ সালে কলকাতায়। বেগম রোকেয়া ছিলেন তাঁর অনুপ্রেরণার উৎস। কবির প্রথম কবিতা বাসন্তী প্রকাশিত হয় সওগাত পত্রিকায় ১৯২৬ সালে। প্রথম কাব্যগ্রন্থ সাঁঝের মায়া ১৯৩৮ সালে প্রকাশিত হলে রবীন্দ্রনাথ এ কাব্য পড়ে ভূয়সী প্রশংসা করেন। এ কাব্যের ভূমিকা লিখেন কাজী নজরুল ইসলাম। সুদীর্ঘকাল ধরে তিনি সাহিত্যচর্চা, সমাজসেবা ও নারী কল্যাণমূলক নানা কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন।
বাণীতে রাষ্ট্রপতি নারী জাগরণের অন্যতম পথিকৃৎ কবি সুফিয়া কামালের ১০৬ তম জন্মবার্ষিকীতে আমি তাঁর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান এবং তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।