ঢাকা, বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ১৮, ২০১৮

সংবাদ শিরোনাম 

রাষ্ট্রপতি : বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে : রাষ্ট্রপতি   |    বিভাগীয় সংবাদ : দিনাজপুরে নাশকতার মামলায় ৪ জেএমবি সদস্যের জামিন আবেদন নামঞ্জুর   |   জাতীয় সংসদ : বঙ্গবন্ধু সেতুতে ডুয়েলগেজ রেললাইনসহ পৃথক রেল সেতু নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী * আগামী বাজেটে বেসরকারি বিদ্যালয়ের এমপিও অন্তর্ভুক্তির বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্ত নিবে : প্রধানমন্ত্রী *সকল জেলায় হাইটেক পার্ক স্থাপন করা হবে : প্রধানমন্ত্রী   |   জাতীয় সংসদ : সরকার প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষার প্রতি অত্যন্ত যত্নশীল : প্রধানমন্ত্রী * ২০০৯ সাল থেকে অদ্যাবধি রেলওয়ের বিভিন্ন পদে ১০ হাজার ৩৯১ জনকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে : রেলপথ মন্ত্রী * কিছু রাজনীতিবিদ নির্বাচন এলে বক্রপথে ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন দেখে : প্রধানমন্ত্রী   |   শিক্ষা : শর্ত পূরণ না করা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে : শিক্ষামন্ত্রী   |   বিনোদন ও শিল্পকলা : প্রাচ্যনাটের অ্যাকটিং স্কুলের নতুন নাটক নৈশভোজ মঞ্চস্থ হলো   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ট্রাম্পের স্বাস্থ্যগত জটিলতা নেই : চিকিৎসক   |   প্রধানমন্ত্রী : উন্নত দেশগুলোকে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর আহবান প্রধানমন্ত্রীর   |   আবহাওয়া : দেশের কিছু স্থানে শৈত্যপ্রবাহ কমবে   |   খেলাধুলার সংবাদ : মিরপুর স্টেডিয়ামের শততম ওয়ানডে ম্যাচে শ্রীলংকাকে ২৯১ রানের টার্গেট দিলো জিম্বাবুয়ে *আমাদের পেস বোলাররাই সেরা : রুবেল   |    জাতীয় সংবাদ : ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন বন্ধে সরকারের কোন হাত নেই : ওবায়দুল কাদের *ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচন স্থগিত * নবম ওয়েজ বোর্ডে সাংবাদিকদের স্বার্থ গুরুত্ব পাবে: তারানা হালিম * আপিল শুনানির কার্যতালিকায় যুদ্ধাপরাধী আজহার-কায়সার-সুবহানের মামলা   |    আন্তর্জাতিক সংবাদ : ফিলিস্তিনের জন্য জাতিসংঘ সংস্থা থেকে বরাদ্দকৃত অর্থ প্রত্যাহার যুক্তরাষ্ট্রের * মিয়ানমারে রাখাইন বৌদ্ধদের ওপর পুলিশের হামলা ॥ নিহত ৭ * পেরুর সাবেক প্রেসিডেন্টের হাসপাতাল ত্যাগ * মেক্সিকোয় গণকবর থেকে ৩২টি লাশ উদ্ধার    |   

নীলফামারীতে সাড়া জাগিয়েছে বইমেলা

নীলফামারী, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৭ (বাসস) : জেলার বড়মাঠে ঢাকার খ্যাতনামা প্রকাশকদের অংশগ্রহণে বইমেলা সাড়া জাগিয়েছে পাঠকদের। তৃণমূল পর্যায়ে প্রথমবারের মতো বড় আকারে ওই বই মেলা পেয়ে অনেকের আগ্রহ বেড়েছে বই কেনার প্রতি। মেলায় এসে অনেকেই কিনছেন, আবার অনেকে ঘুরে ঘুরে বই দেখে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন কেনার।
মেলার সময়সূচি বিকেল তিনটা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত, ছুটির দিনে শুরু সকাল ১০টা থেকে। কিন্তু শুক্র ও শনিবার রাত ১০টা পর্যন্ত দেখা গেছে ওই মেলায় মানুষের সমাগম। তারা দেখছেন বিভিন্ন প্রকাশকের স্টল ঘুরে ঘুরে বই, আবার অনেকে পছন্দের বই কিনছেন।
নীলফামারী জেলা পরিষদের সদস্য ইসরাত জাহান বলেন,অনেক বড় আকারের বইমেলা পেয়েছি হাতের কাছে। গত শুক্র ও শনিবার রাত ১০টা পর্যন্ত সমাগম দেখেছি ওই মেলায়।
মেলায় এসেছিল নীলফামারী ছমির উদ্দিন স্কুল এ- কলেজের ১০ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী বিথি আক্তার, জয়া আক্তার, বন্যা আক্তারসহ একই প্রতিষ্ঠানের ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র সোহেল রহমান। তারা বলেন, আমরা বিভিন্ন উপন্যাস, গল্প, ভ্রমন কাহিনীর বই খুঁজছি। বিভিন্ন স্টল ঘুরে পছন্দের বই নির্বাচন করে রাখছি। এরপর কেনা শুরু করবো।
একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মানবিক বিভাগে এইচএসসি পড়য়া শিক্ষার্থী আরজুমান আরা ও সুলতানা আক্তার বলেন, আমরা হাতের কাছে বই কেনার সুযোগ পেয়েছি, তাই মেলায় বিভিন্ন স্টল ঘুরে পছন্দের বই নির্বাচন করছি।
জেলা শহরের নাজমা সুলতানা বলেন, বই কেনার জন্য আমরা ঢাকার বই মেলায় যেতাম। মেলায় ঢাকার বিভিন্ন প্রকাশনী আসায় খুব সহজে বই কিনতে পারছি।
অন্য প্রকাশের প্রতিনিধি মো. হাবিব বলেন, আমার স্টলে একশ ধরনের বই আছে হুমায়ুন আহমেদ স্যারের। মেলার শুরু থেকে ক্রেতা আসছেন এবং দেখছেন। অনেকেই কিনছেন আবার অনেকে পছন্দ করে রাখছেন।
পার্ল পাবলিকেশন্স এর প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন,আশা করছি মেলায় ব্যাপক বিক্রি হবে। অনেকে বই দেখতে আসছেন স্টলে। হুমায়ুন আহমেদ স্যারের বৃষ্টি, মেঘমান, ঝিঝি পোকা মাছি, অদেখা ভুবনসহ বেশ কিছু বই বিক্রি করেছি। পাশাপাশি জাফর ইকবাল স্যারের আবারো টুনটুনি, আমি তপু নামের বই বিক্রি হয়েছে। ইমদাদুল হক মিলন স্যারের বই অনেকে দেখছেন। পছন্দ করে কেনার জন্য নির্বাচন করে রাখছেন।
জেলার প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানের মালিক লেখক এবং কবি রাজা সহিদুল আসলাম বলেন, আমি আশার আলো দেখছি। শুরু থেকে এ পর্যন্ত আমার প্রকাশনার যে সংখ্যক বই বিক্রি হয়েছে তাতে আমি সন্তুষ্ট। বই কেনার ক্ষেত্রে কিশোর কিশোরীদের আগ্রহ বেশি দেখেছি।
জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খালেদ রহীম জানান, ৮ ডিম্বের থেকে ১৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত মেলাটি চলবে। জাতীয় পর্যায়ের ৫৫টি প্রকাশানা প্রতিষ্ঠানসহ মোট ৬৯টি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করেছে মেলায়। এছাড়া মেলায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নাটক।
জাতীয় গ্রন্থ কেন্দ্রের পরিচালক নজরুল ইসলাম জানান, দেশের প্রতিটি বিভাগের দুটি করে জেলায় মোট ১৬টি বই মেলা অনুষ্ঠিত হবে। সস্কৃতিমন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে জাতীয় গ্রন্থ কেন্দ্রের সহযোগিতায় এসব মেলার আয়োজন করবে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন। নীলফামারী জেলার বই মেলার মধ্য দিয়ে এটির শুরু।
সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন,জাতীয় গ্রন্থ কেন্দ্রের উদ্যোগে নীলফামারীতে প্রথমবারোর মতো বড় আকারে বই মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ঢাকার ৫৫ জন প্রকাশক এ বই মেলায় অংশগ্রহন করছে। যারা ঢাকায় বা বড় শহরে থাকেন তারা নানা ভাবে বই কেনার সুযোগ পান। কিন্তু অন্যত্র এ সুযোগ নেই বলেই চলে। সে সুযোগ করে দেওয়াই আমাদের লক্ষ্য। আমাদের সরকার প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি মানবিক ও মুক্ত চিন্তার সমাজ নির্মাণে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। সে লক্ষ্য অর্জনে এ বই মেলা সহায়ক হবে। আশাকরি নীলফামারীর বই মেলা সাফল্যম-িত হবে।