বাসস দেশ-১৯ : ভারতের ঠাকুর অ্যাওয়ার্ডে’র জন্য মনোনীত ছায়ানট

বাসস দেশ-১৯
ছায়ানট-অ্যাওয়ার্ড
ভারতের ঠাকুর অ্যাওয়ার্ডে’র জন্য মনোনীত ছায়ানট
॥ আমিনুল ইসলাম মির্জা ॥
নয়াদিল্লী, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ (বাসস) : বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানটকে ভারত ‘ঠাকুর অ্যাওর্য়াড’ পাচ্ছে। বাঙ্গালী সংস্কৃতিতে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে ভারত সরকার সেদেশের রাষ্ট্রীয় সম্মানসূচক পদক ‘ঠাকুর অ্যাওর্য়াড’ প্রদানের জন্য বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানটকে মনোনিত করেছে। এখানে আজ এক সরকারি বিবৃতিতে এ খবর জানানো হয়।
এতে বলা হয়, নয়াদিল্লীর প্রবাসী ভারতীয় কেন্দ্রে রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোভিন্দ আগামী সোমবার আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাংস্কৃতিক সম্প্রীতির মূল্যবোধ বিকাশে বিশেষ অবদান রাখায় ২০১৫ সালের জন্য ছায়ানটের কাছে এই অ্যাওর্য়াড আনুষ্ঠানিক ভাবে হস্তান্তর করবেন।
বাঙ্গালী সংস্কৃতি লালন ও বিকাশে ১৯৬১ সালে ছায়ানট প্রতিষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশে প্রতি বছর পহেলা বৈশাখ উদযাপনে ছায়ানট বর্ষবরনে বিশাল অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে।
একই অনুষ্ঠানে ভারতের জনপ্রিয় প্রকাশক, নৃত্যপরিচালক এবং ক্লাসিকেল নৃত্যুগুরু অশিতিপর রাজকুমার সিংহ জিৎ সিং এবং ভারতের শতবর্ষী ভাস্কর রাম সুতারকেও তাদের নিজ নিজ অঙ্গনে বিশষ অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে পৃথক দু’টি অ্যাওয়ার্ড দেয়া হবে। ভারতের মানবতায় রবীন্দ্রনাথের বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে ভারত ২০১২ সালে সাংস্কৃতিক সম্প্রীতির জন্য ঠাকুর অ্যাওর্য়াড চালু করে।
সংস্কৃতিতে বিশেষ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসাবে প্রতি বছর ব্যক্তি, এসোসিয়েশন, প্রতিষ্ঠান অথবা সংগঠনকে সম্মানসূচক এই অ্যাওর্য়াড দেয়া হয়। অ্যাওর্য়াড বিজয়ীরা পুরস্কার হিসাবে এক কোটি ভারতীয় রুপি, একটি মানপত্র এবং একটি ফলক পাবেন।
ভারতের প্রখ্যাত সিতারবাদক রবি শংকর এবং সঙ্গিত রচয়িতা জুবিন মেহেতা প্রথম ২০১২ ও ২০১৩ সালের জন্য এই অ্যাওয়ার্ড লাভ করে।
বাসস/এআইএম/অনু-অমি/১৯১২/আরজি