জয়পুরহাটে বোরো’র চারা রোপণে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা

220

জয়পুরহাট, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ (বাসস) : আলুর বাম্পার ফলনের পরেই খাদ্য উৎপাদনে উদ্বৃত্ত জেলা জয়পুরহাটে বোরো’র চারা রোপণে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা ।
স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, চলতি ২০১৮-২০১৯ রবি ফসল চাষ মৌসুমে ৬৮ হাজার ৫শ ৭১ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। বোরো চাষ সফল করতে জেলার কৃষকরা বোরো বীজ প্রস্তুত করেছেন কৃষি বিভাগের সার্বিক তত্ত্বাবধানে। জেলায় ৬৮ হাজার ৫শ ৭১ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে রয়েছে উচ্চ ফলনশীল (উফশী) জাতের ৫৭ হাজার ৫শ ৬৩ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের রয়েছে ১১ হাজার ৮ হেক্টর জমি। এতে চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ৭৭ হাজার ৯শ ৩৫ মে.টন।
কৃষি বিভাগ জানান, উপজেলা ভিত্তিক বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে রয়েছে সদর উপজেলায় ১৬ হাজার ৬৩০ হেক্টর, পাঁচবিবিতে ১৯ হাজার ৯২০ হেক্টর, আক্কেলপুরে ১০ হাজার ১৩০ হেক্টর, ক্ষেতলালে ১০ হাজার ৬১৬ হেক্টর এবং কালাই উপজেলায় ১১ হাজার ২৭৫ হেক্টর জমিতে। বোরো চাষ সফল করতে উফশী জাতের ২ হাজার ৮৭৮ হেক্টর ও হাইব্রিড জাতের ৪০ হেক্টর জমিতে আদর্শ বীজতলা তৈরি সম্পন্ন হয়েছে।
জেলায় বোরো ধান চাষ সফল করতে স্থানীয় কৃষি বিভাগ সারের চাহিদা নির্ধারণ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে ইউরিয়া ১৮ হাজার ৭শ ২০ মে. টন, টিএসপি ১৪ হাজার ৪শ মে. টন, এমওপি ৯ হাজার ৫শ ৭৬ মে. টন, জিপসাম ৯ হাজার মে. টন ও জিংক সার ৭শ ৯২ মে. টন।
বিএডিসি (বীজ) কৃষকদের মাঝে উন্নত জাতের বীজ সরবরাহের ব্যবস্থা করেছে। স্থানীয় ব্যাংক বিশেষ করে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক বোরো সহ অন্যান্য শীতকালীন ফসল চাষের কৃষকের মাঝে কৃষি ঋণ বিতরণের ব্যাপক উদ্যোগ নিয়েছে বলে সূত্রটি বাসস’কে জানায়।
জেলায় বোরো চাষ সফল করতে কৃষক মাঠ স্কুলের মাধ্যমে কৃষকদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ও উপকরণ সরবরাহ করা হচ্ছে বলে বাসস’কে জানান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সুধেন্দ্র নাথ রায়।

image_printPrint