এলজিআরডি মন্ত্রীর সঙ্গে সিরডাপের মহাপরিচালকের সৌজন্য সাক্ষাৎ

74

ঢাকা, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ (বাসস) : স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, সিরডাপ গ্রামীণ উন্নয়ন ও দারিদ্র বিমোচনে এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলসমূহে যে কাজ করছে তা প্রশংসাযোগ্য। তিনি বলেন, পল্লী উন্নয়নে বাংলাদেশের যে সকল প্রতিষ্ঠান কাজ করছে তার সঙ্গে যোগসূত্র স্থাপন করে কাজ করলে সিরডাপের কার্যাবলী আরো ফলপ্রসু হবে।
মন্ত্রী আজ সচিবালয়স্থ তার অফিস কক্ষে দ্য সেন্টার অন ইনটিগ্রেটেড রুরাল ডেভলপমেন্ট ফর এশিয়া এন্ড দ্য প্যাসিফিক (সিরডাপ)’র মহাপরিচালক টাভিটা জি.বোজেওয়াকা তাজিনা ভুলুর সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাৎকালে এ কথা বলেন।
এসময় পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আবুল হাসনাত মো. জিয়াউল হক এবং অতিরিক্ত সচিব নাসরীন আক্তার চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।
তাজুল ইসলাম বলেন, সিরডাপকে জাতিসংঘ খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) সহ জাতিসংঘের অন্যান্য সংস্থা ও দাতা সংস্থাসমূহ সবসময় সাহায্য সহযোগিতা করে আসছে।
তিনি বলেন, জাতিসংঘ ঘোষিত সহ¯্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এমডিজি)’র ধারাবাহিকতায় টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনেও এ অঞ্চলের সহযোগী দেশসমূহ একসঙ্গে কাজ করবে।
মন্ত্রী বলেন, পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে এ অঞ্চলের দেশসমূহ দারিদ্র বিমোচনে জোরালো ভূমিকা রাখতে পারে। দারিদ্র বিমোচনে বাংলাদেশের গৃহীত ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের আলোকে এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশসমূহও মডেল প্রকল্প গ্রহণ করতে পারে।
তিনি বলেন, সিরডাপকে আরো কার্যকর করতে সদস্য দেশসমূহের পরামর্শ আঞ্চলিক সহযোগিতার ক্ষেত্রকে আরো প্রসারিত করবে।
সাক্ষাৎকালে সিরডাপ মহাপরিচালক মন্ত্রীকে তাদের কার্যাবলী অবহিত করেন ও জুলাই মাসে ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য সিরডাপের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণের আমন্ত্রণ জানান।
মন্ত্রী মনোযোগ সহকারে সিরডাপের কার্যাবলী সম্পর্কে অবহিত হন ও বাংলাদেশের দারিদ্র্য বিমোচনে তাদের অধিকতর ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।

image_printPrint