নড়াইলে ধনিয়ার আবাদ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে

268

নড়াইল, ৯ জানুয়ারি, ২০১৯ (বাসস) : জেলায় দিন দিন ধনিয়ার চাষ বাড়ছে। স্বল্প খরচে লাভ বেশি হওয়ায় কৃষকরা ঝুঁকছেন ধনিয়া চাষে। জেলায় লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে ৫’শ ৩০ হেক্টর বেশি জমিতে ধনিয়ার আবাদ হয়েছে বলে জানাগেছে।
নড়াইলের মাটি বেলে ও দোঁআশ হওয়ায় মশলা জাতীয় ফসলের উৎপাদন ভালো হয়। সেজন্য এ উপজেলায় ধনিয়া, বাদাম, পেয়াঁজ ফসল চাষের জন্য উপযোগী। গত মৌসুমে এলাকার ধনিয়ার চাষ তেমন না হলেও চলতি মৌসুমে ব্যাপক চাষ হয়েছে। ধনিয়া পাতা ও ফসল কৃষকদের কাছে একটি লাভজনক ফসলে পরিণত হওয়ায় অন্যান্য মৌসূমের তুলনায় এ মৌসূমে ধনিয়া চাষাবাদ লক্ষ্যমাত্রা বেড়েছে। নড়াইল সদর উপজেলার মাইজপাড়া, চন্ডিবরপুর, তুলারামপুর, লোহাগড়া উপজেলার রাজুপুর, বাকা, শিংগা, দিঘলিয়া, মল্লিকপুর, চাচই, দেবী, শরশুনা, সত্রহাজারী এলাকায় সবুজ পতা ও সদা বর্ণের ফুলে ফুলে মৌ মাছির ঝাঁক মধু সংগ্রহের জন্য গুন গুন করছে। শীতের সকাল বেলায় ভেজা মাঠে ধনিয়া ফুলের সুবাস বাতাসে ভাসছে। ধনিয়ার ক্ষেত দেখে মনে হয় কেউ যেন সবুজের মাঝে সাদা চাদর প্রকৃতির মাঠে বিছিয়ে রেখেছে। ধনিয়া চাষাবাদ খুব সহজ এবং স্বল্প সময়ে অধিক লাভজনক ফসল। এছাড়া ধনিয়া ক্ষেতে সেচ ও সার খুব কম লাগে। আমাদের দেশে বিভিন্ন তরকারিতে স্বাদ বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন ধরনের মসলা ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ধনিয়া এবং ধনিয়ার পাতা এর মধ্যে অন্যতম।
সদর উপজেলার সিমানন্দপুর গ্রামের রাবেয়া বেগম রাবি বলেন, ধনিয়ারপাতা ও ধনিয়া এটি মশলা জাতীয় তরকারির স্বাদ বাড়াতে ব্যবহার হয়।
লোহাগড়া উপজেলা দেবী গ্রামের দুখু মিয়া বলেন, এবছর ৩০ শতক জমিতে ধনিয়ার চাষ করেছি ভালো ফলন হয়েছে আশা করছি ভালো হবে।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক চিন্ময় রায় বলেন, চলতি মৌসুমে জেলায় ধনিয়া আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ১’শ ৫০ হেক্টর জমিতে সেখানে আবাদ হয়েছে ৬’শ ৮০ হেক্টর জমিতে। ধনিয়া চাষাবাদে খরচ ও রোগ বালাই খুব কম হওয়ায় কৃষকেরা অধিক হারে ধনিয়া চাষে ঝুকেছে। যে কারণে আমাদের লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে ধনিয়ার আবাদ হয়েছে।

image_printPrint