কেঁচো সারে উত্তরে নারীর ভাগ্যবদল

821

বাসস ইউনিসেফ ফিচার-১
কেঁচো সারে উত্তরে নারীর ভাগ্যবদল
॥ মাহবুব আলম ॥
ঢাকা, ২৭ মে, ২০১৮ (বাসস) : বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। সৃষ্টির শুরু থেকেই দেশের কৃষকদের লক্ষ্য ছিল কিভাবে উৎপাদন বৃদ্ধি করা যায়। তবে সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে কৃষি ক্ষেত্র অনেকটাই দখল করেছে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি। দেশে ঘটেছে কৃষি বিপ্লব। তথাপি বিলুপ্ত হয়নি প্রাকৃতিক পদ্ধতি। আবার কখনো কখনো প্রকৃতির সঙ্গে বিজ্ঞানের মিশেলে কৃষি পদ্ধতি হয়েছে আরো সমৃদ্ধ। যেমন কেঁচো সার একটি যথার্থ উদাহরণ। বর্তমানে বৈজ্ঞানিক উপায়ে উৎপাদন করা হচ্ছে কেঁচো সার। আধুনিক যুগে যা ছড়িয়ে পড়েছে গ্রাম বাংলায়। বৈজ্ঞানিক উপায়ে কেঁচো সার উৎপাদন করে অনেকেই স্বাবলম্বী হয়ে উঠছেন। একজনের সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেকেই এমন পেশায় নিজেকে শামিল করছেন। এতে পরিবারগুলোর মধ্যে ফিরছে স্বচ্ছলতা। তাদেরই একজন মিনতি রাণী সরকার; বয়স ত্রিশের কোটায়। যিনি কেঁচো সার উৎপাদন করে এনেছেন পরিবারের আর্থিক স্বচ্ছলতা। দিনাজপুর জেলার বিরলে কেঁচো সার উৎপাদনের ধুম পড়েছে। আর এর অনেকটাই করছেন নারীরা। ঘরে ঘরে কেঁচো সার তৈরি করে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি তারা সংসারে এনেছেন স্বচ্ছলতাও। কেবলমাত্র মিনতি রাণীই নন। এলাকার অনেকেই এখন নিজেদেরকে কেঁচো সার তৈরিতে নিয়োগ করেছেন।
সম্প্রতি দিনাজপুরের ওই অঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এমনটাই জানা গেছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, প্রথমে উপজেলার দক্ষিণ রামচন্দ্রপুর গ্রামের পাঁচ নারী কেঁচো সার তৈরিতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের কাছ থেকে পরামর্শ ও প্রশিক্ষণ নেন। এর মধ্যে গ্রামের বিলপাড়ার পুতুল চন্দ্র দেবশর্মার স্ত্রী লিপা রাণী একজন।
লিপা রাণী জানান, প্রথমে মহিলা বিষয়ক অধিদফতর থেকে ঋণ নিয়ে তারা কেঁচো সার তৈরির কাজ শুরু করেন। সাত মাস আগে ছয়টি রিং, কেঁচোসহ যাবতীয় উপকরণের জন্য খরচ হয়েছে ১৫ হাজার টাকা। কিন্তু এরই মধ্যে পর্যায়ক্রমে তারা ৩০ হাজার টাকার কেঁচো সার বিক্রি করেছেন।
প্রথম ৬টি রিং দিয়ে শুরু করলেও এখন ২২টি রিংয়ে কেঁচো সার তৈরির কাজ চলছে।
খোঁজ নিয়ে আরও জানা যায়, স্বাবলম্বী হতে বিরল উপজেলার দক্ষিণ রামচন্দ্রপুর গ্রামের বিলপাড়ার ঘরে ঘরে নারীরা কেঁচো উৎপাদন করছেন। তবে তাদের প্রত্যাশা, সরকারিভাবে এ কাজে বিনাসুদে ঋণ পেলে আরও বড় আকারের খামার তৈরিসহ সারের উৎপাদন বৃদ্ধি করা সম্ভব।
এভাবে হতে পারে শত শত নারীর ভাগ্যোন্নয়ন। বিরল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আশরাফুল আলম এই প্রতিবেদককে জানান, বিরলের নারীদের ভাগ্যোন্নয়ন ও কৃষি ক্ষেত্রে উন্নয়নের জন্য কাজ চলছে। এক্ষেত্রে তাদের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতেও কাজ করছি আমরা।
এদিকে লিপা কিংবা মিনতি নয়, তাদের দেখাদেখি এ কাজে এগিয়ে এসেছেন দক্ষিণ রামচন্দ্রপুর গ্রামসহ আশপাশের এলাকায় শতাধিক নারী-পুরুষ। এ কার্যক্রম ছড়িয়ে পড়েছে জেলার বাইরেও।
পার্শ্ববর্তী বিজোড়া ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামেও তৈরি হচ্ছে কেঁচো সার। স্থানীয় আবদুল আলীম বলেন, যারা আগে কেঁচো সার তৈরি করেছেন তাদের থেকে আমরা সহযোগিতা নিয়েছি। পারস্পরিক সহযোগিতার কারণে এলাকায় কেঁচো সার তৈরি ছড়িয়ে পড়ছে।
এ বিষয়ে বিজোড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসলাম কাদির বলেন, কেঁচো সার তৈরির মাধ্যমে গ্রামাঞ্চলের নারীরা অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছে। এতে শুধু নারীরাই অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হবে না, কৃষিতে কমে যাবে রাসায়নিক সারের চাহিদাও।
এদিকে পরিবেশবান্ধব জৈব কম্পোস্ট সার ও সবজি উৎপাদনে এলাকার নারীদের নিয়ে কাজ করছেন রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দের চুহড় গ্রামের মর্জিনা খাতুন।
তিনি জানান, গত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন ধরনের কম্পোস্ট সার, কেঁচো সার তৈরি করে ধান, ভুট্টা, লাউ, মিষ্টিকুমড়া, আলু, শিম, শশা উৎপাদনে ব্যবহার করেছেন। এতে তার সাফল্যও এসেছে। গত একবছরে তার সাড়ে ৩ লাখ টাকা আয় হয়েছে।
মিঠাপুকুর উপজেলার উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, মর্জিনা বেগম এ এলাকার মডেল চাষী হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন। আমরা তার মতো অন্যদেরও নানা ধরনের সহযোগিতা করছি।
বাসস/ইউনিসেফ ফিচার/মাআ/স্বব/২২২০/আহো/-ওজি

image_printPrint