পরিচ্ছন্ন হবিগঞ্জ গড়ার লক্ষ্যে কোদাল হাতে কাজ করলেন জেলা প্রশাসক

41

হবিগঞ্জ, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ (বাসস): জেলা শহরকে পরিচ্ছন্ন রাখেতে জেলা প্রশাসক নিজ হাতেই নিলেন কোদাল আর ঝাড়ু। তার সাথে যোগ দিলেন প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তারাও। তিনটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের দুই শতাধিক স্বেচ্ছাসেবী এতে অনুপ্রাণিত হয়ে লেগে গেলেন কাজে। মুহূর্তের মধ্যেই ঝকঝকে আর তকে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়। শুক্রবার সকাল বেলার দৃশ্য এটি । আর এর মাধ্যমেই সূচনা হল পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন হবিগঞ্জ করার কার্যক্রম আর এর প্রধান উদ্যোক্তা জেলা প্রশাসক মাহমুদল কবীর মুরাদ।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলায় আমরা সবুজ এবং হবিগঞ্জে বিডি ক্লিন নামে দুটি সংগঠনের আত্মপ্রকাশ করে। এর সাথে জড়িত সমাজের অনেক প্রতিষ্ঠিত লোকজন। তারা সুন্দর পরিবেশ-এর জন্য কাজ করে সবাইকে মুগ্ধ করে। জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ ওই সংগঠনগুলোর কার্যক্রম দেখে অভিভুত হন। পরে নিজেই একটি উদ্যোগ নেন এই সংগঠনগুলোকে কাজে লাগিয়ে পরিবেশকে সুন্দরভাবে গড়ে তোলার জন্য।
শ্রক্রবার ভোরবেলা ‘পরিচ্ছন্ন হবিগঞ্জ’ শ্লোগান নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় এলাকায় শুরু করা হয় পরিচ্ছন্নতা অভিযান। জেলা প্রশাসন আয়োজিত এই কর্মসূচিতে যোগদান করে আমরা সবুজ বাহুবল বিডি ক্লিন এবং রেড ক্রিসেন্ট এর দুই শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক। জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ প্রধান অতিথি হিসাবে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব নুরুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সার্বিক ফজলুল জাহিদ পাভেল ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইসিটি মর্জিনা আক্তারসহ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটবৃন্দ। অতিথিরাও পরিচ্ছন্নতার কাজে অংশ নেন। মাত্র দুই ঘন্টার মাঝে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের বিশাল এলাকা পরিচ্ছন্ন হয়ে যায়।
বাহুবল থেকে দুটি বাসে করে আমরা সবুজ এর সদস্যরা আসেন এই কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার জন্য। তাদের সকলের পরনে ছিল লাল সবুজের টি শার্ট। জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা এই কার্যক্রমে অংশ নিতে তারা ভোরবেলা রওয়ানা হন।
আমরা সবুজ এর সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, জেলা প্রশাসনের আমন্ত্রণে আমরা এখানে এসেছি। এর আগে আমরা বাহুবলে কার্যক্রম শুরু করি। সুন্দর হবিগঞ্জ গড়ে তুলতে আমাদেরকে যে কোন স্থানে আহবান করলে এগিয়ে আসব।
হবিগঞ্জের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর বেলায়েত হোসেন বলেন, জেলা প্রশাসকের ইচ্ছা হবিগঞ্জের পরিবেশকে সুন্দর এবং নির্মলভাবে গড়ে তোলা। এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে পুরাতন খোয়াই নদীকে নিয়ে ঢাকার হাতিরঝিলের মতো একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। শুধু প্রকল্প দিয়ে পরিবেশ সুন্দর হবে না। তাই তিনি বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে সাথে নিয়ে পরিচ্ছন্ন হবিগঞ্জ গড়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন।
হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মাহমুদুল কবীর মুরাদ বলেন, এখন থেকে নিয়মিত এ ধরনের কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে। আরও যে সব স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আছে তাদেরকেও নিয়ে আসা হবে এই কাজে। পাশাপাশি লোকজনকে উদ্ভুদ্ধ করা হবে যাতে নিজেদের আঙ্গিনা পরিস্কার রাখে এবং যত্রতত্র ময়লা ফেলা না হয়। এর মাধ্যমেই আমরা একদিন হবিগঞ্জকে পরিচ্ছন্ন বলতে পারব। যা সারা দেশে নতুন উদাহরণ সৃষ্টি করবে।

image_printPrint