হবিগঞ্জ, মেহেরপুর ও সাতক্ষীরায় বজ্রপাতে ৬ জন নিহত ও ১০ জন আহত

40
image_printPrint

ঢাকা, ১০ মে, ২০১৮ (বাসস) : হবিগঞ্জ, মেহেরপুর ও সাতক্ষীরায় বজ্রপাতে ৬ জন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছে। বাসস সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর :
হবিগঞ্জ : জেলার বানিয়াচংয়ে বজ্রপাতে স্কুলছাত্রীসহ দুইজনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার দৌলতপুর ও শতমুখা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- উপজেলার সুজাতপুর ইউনিয়নের শতমুখা গ্রামের জাহির মিয়ার মেয়ে ও হানিফখান দিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শেণির ছাত্রী তানিয়া আক্তার (১৫) এবং একই উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের রহিম মিয়ার ছেলে মিজানুর রহমান (১৮)।
বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ মামুন খন্দকার জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে তানিয়া আক্তার তার মায়ের সাথে রান্না ঘরে কাজ করছিলেন। এ সময় কোনোকিছু আনার জন্য বের হলে বজ্রাহত হয়ে মারা যায়। এ ঘটনায় তার বিদ্যালয় ও এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।
অপরদিকে দুপুরে মাঠে ধান কাটতে যান কৃষক মিজানুর রহমান। এ সময় ঝড়-বৃষ্টির সাথে সাথে বজ্রপাত ঘটলে তিনি ঘটনাস্থলেই মারা যান।
ইউএনও আরো জানান, নিহতদের সকল তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের থেকে তাদেরকে ২০ হাজার টাকা করে সরকারি সহায়তা প্রদান করা হবে।
মেহেরপুর : জেলার গাংনী উপজেলার মটমুড়া ইউনিয়নের মোহম্মদপুর গ্রামে বজ্রপাতে হেলু জোয়ার্দার (৫৫) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। বজ্রপাতে ৫ জন আহত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দিকে গাংনী উপজেলার মোহম্মদপুর, কসবা ও মটমুড়া গ্রামে এ বজ্রপাত হয়। আহতরা হলেন- রুপা খাতুন, সিয়াম আলী, মুনা মিয়া, সোহেল হোসেন ও শহিদুল ইসলাম।
মটমুড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সোহেল আহমেদ জানান, নিজ জমিতে কৃষি কাজ করছিলেন হেলু জোয়ার্দার। এসময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান।
সাতক্ষীরা : জেলার সদর উপজেলার কুচপুকুর ও শ্যামনগর উপজেলার কাশিমাড়িতে বজ্রপাতে এক শিশুসহ ৩ জন নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরো ৫ জন। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলো, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কুচপুকুর গ্রামের আমের আলী সরদারের ছেলে সাইদুল্লাহ সরদার (১২), শ্যামনগর উপজেলার কাশিমাড়ি ইউনিয়নের ঘোলা গ্রামের মৃত আব্দুল মাজেদ সরদারের ছেলে আশরাফ সরদার (৩৩) ও একই ইউনিয়নের গাংআটি গ্রামের আব্দুস সাত্তার গাজীর ছেলে আমিনুর রহমান (৩০)।
আহত শ্রমিকরা হলেন, মিজানুর রহমান, শাহিনুর রহমান, মোস্তাফিজুর রহমান, আব্দুর রহিম ও আক্তারুল ইসলাম। আহতদের সকলের বাড়ি কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে।
দুপুরে কুচপুকুর গ্রামের শিশু সাইদুল্লাাহ তাদের বাড়ির ছাদে জমে থাকা বৃষ্টির পানি সরাচ্ছিলো। এ সময় বিকট শব্দে বজ্রপাত ঘটলে সে ঘটনা স্থলেই মারা যায়।
এদিকে, শ্যামনগর উপজেলার কাশিমাড়ি গ্রামের একটি মৎস্য ঘেরে ১০/১৫ জন শ্রমিক একসাথে মৎস্য ঘেরের বেঁড়িবাধ সংস্কার, মাছ শিকারসহ বিভিন্ন কাজ করছিলেন। এ সময় আকস্মিক বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন আশরাফ ও আমিনুর। আহত হন আরো ৫ জন। আহতদের স্থানীয় শ্যামনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।