বাসস প্রধানমন্ত্রী-৩ (তৃতীয় ও শেষ কিস্তি) : আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয়ে প্রধানমন্ত্রীর আশাবাদ

376

বাসস প্রধানমন্ত্রী-৩ (তৃতীয় ও শেষ কিস্তি)
শেখ হাসিনা-নির্বাচন
আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয়ে প্রধানমন্ত্রীর আশাবাদ

নতুন জোট গঠনকারী ড. কামাল হোসেনের তীব্র সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাৎ, ১০-ট্রাক অস্ত্র মামলা এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় দোষীদের নিয়ে জোট গঠন করেছেন। যারা দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার এবং তাত্ত্বিক মন্তব্য করেন তারা দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে জোট করেছেন।
প্রধানমন্ত্রী আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠানে সরকারের পদত্যাগ ও নিরপেক্ষ সরকার গঠনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দাবি প্রত্যাখ্যান করে বলেন, দেশের সর্বোচ্চ আদালত রায় দিয়েছে কোন অনির্বাচিত সরকার ক্ষমতায় আসতে পারবে না।
তিনি প্রশ্ন করেন, এরপরও কিছু বড় বড় আইনজীবী কিভাবে এ ধরনের একটি সরকারের দাবি করেন? এ ধরনের দাবির মাধ্যমে তারা কার স্বার্থ পূরণ করতে চান?
প্রধানমন্ত্রী ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেসিনের (ইভিএম) বিরোধিতাকারীদেরও সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, ইভিএম আন্তর্জাতিকভাবে ব্যবহার হচ্ছে এবং এতে কেউ কারচুপি করতে পারে না। কারণ, প্রত্যেকেরই বায়োমেট্রিক পিঙ্গার প্রিন্টসহ স্মার্ট কার্ড থাকে।
তিনি প্রশ্ন করেন, তাহলে কেন তারা ইভিএম-এর ব্যাপারে আপত্তি তুলছেন? তারা কি নির্বাচন চান, না অন্য কিছু ভাবছেন? শেখ হাসিনা বলেন, দেশকে অস্থিতিশীল করতে তারা অযৌক্তিক দাবি তুলছেন। তিনি বলেন, তারা দেশে অস্বাভাবিক পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চান।
সরকার সমাবেশের অনুমতি দিচ্ছে না বলে জোটের পক্ষ থেকে যে অভিযোগ করা হচ্ছে তা প্রত্যাখ্যান করে তিনি বলেন, সিলেটে তাদেরকে জনসভা করার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, তিনি ইতোমধ্যে সকলকে নির্দেশ দিয়েছেন তাদেরকে সমাবেশ করার অনুমতি দিতে। কেননা, দেশে গণতন্ত্র বিদ্যমান রয়েছে। তারা যা বলতে চান বক্তৃতায় তাই বলবেন, এ ব্যাপারে কেউ তাদের বাধা দেবে না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেগম খালেদা জিয়া এতিমের অর্থ আত্মসাতের কারণে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কারাগারে গেছেন, রাজনৈতিক কারণে নয়।
তিনি বলেন, বিএনপি সরকার তাঁর বিরুদ্ধে একডজন মামলা দায়ের করে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার আরো ৫/৬টি মামলা করে। ‘একটি মামলাও প্রত্যাহার করা হয়নি এবং প্রত্যেকটিরই তদন্ত করা হয়েছে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, পদ্মাসেতু নির্মাণে বিশ্ব ব্যাংক তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ আনে। কিন্তু তারা দুর্নীতি প্রমাণ করতে পারেনি।
বাসস/এসএইচ/অনু-এবিএইচ/২২৪০/মমআ/-এবিএইচ