বাসস দেশ-৯ : কবি মাহবুব-উল আলম চৌধুরীর অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে

বাসস দেশ-৯
কবি মাহবুব উল আলম চৌধুরী-অবদান
কবি মাহবুব-উল আলম চৌধুরীর অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে
ঢাকা, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ (বাসস) : ‘কাঁদতে আসিনি ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি’Ñ কবিতা খ্যাত কবি ও ভাষা সংগ্রামী মাহবুব-উল আলম চৌধুরী’র স্মরণসভায় বক্তারা বলেছেন, ঐতিহাসিক ভাষা আন্দোলনে তার অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। সাহিত্য, সংস্কৃতি, বাঙালি জাতীয়তাবাদ ও স্বাধীনতা সংগ্রামের বিভিন্ন আন্দোলনে কবি ছিলেন সোচ্চার।
বাংলা একাডেমি আয়োজিত ‘ভাষা সংগ্রামী কবি মাহবুব-উল আলম চৌধুরী স্মারক বক্তৃতানুষ্ঠানে’ বক্তারা এই অভিমত ব্যক্ত করেন। ঐতিহাসিক ভাষা আন্দোলনের চারজন বীর সেনানীকে স্মরণ অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে গতকাল সন্ধ্যায় এই বক্তৃতানুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলা একাডেমি।
একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ভাষাসৈনিক ও জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম। নির্ধারিত বিষয়ে মূল বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিশ্বদ্যিালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক শিরিন আখতার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলা একাডেমির ভারপ্রাপ্ত মহাপিরচালক মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন। অনুষ্ঠানে কবি মাহবুব-উল আলম চৌধুরীর সহ-ধর্মিনী লেখক জওশান আরা রহমান, কবি মুহম্মদ নূরুল হুদাসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম বলেন, মাহবুব-উল আলম চৌধুরী ভাষা আন্দোলনের ঐতিহাসিক কবিতার জন্য খ্যাত হলেও তার অন্যান্য কৃতিত্বও কম নয়। বিশেষত তার সম্পাদিত ‘সীমান্ত’ পত্রিকা আমাদের সাময়িকপত্রের ইতিহাসে বিশেষ স্থান দখল করে আছে। তার আত্মজীবনী, প্রবন্ধ, নাটক এবং সামগ্রিক জীবনসাধনায় একটি অসাম্প্রদায়িক, যুক্তিবাদী, প্রগতিশীল সমাজ গঠনের আকাক্সক্ষা ব্যক্ত হয়েছে।
অধ্যাপক শিরীন আখতার বলেন, মাহবুব-উল আলম চৌধুরী আকস্মিকভাবেই একুশের ঘটনার ভেতর জড়িয়ে পড়েননি। দেশ বিভাগ-পরবর্তী সময়কাল থেকেই বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতির যে অস্তিত্ব সংকট সৃষ্টি হচ্ছিলো তারই অভিঘাতে একজন মাহবুব-উল আলম চৌধুরীর আবির্ভাব। শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতির যে স্ফূরণ তার হৃদয়বন্দর মাতিয়ে রাখতো- সেখানে ছিলো দেশ ও জাতির জন্যে ভালোবাসা।
তিনি বলেন, মাহবুব-উল আলম চৌধুরী ‘কাঁদতে আসিনি ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি’Ñ কবিতাটিতে আবহমান বাংলার রূপছবি ফুটে উঠেছে অসামান্য দক্ষতায়। আবেগের সঙ্গে ইতিহাস ও ঐতিহ্যের যে অচ্ছেদ্য বন্ধন তিনি সুঁনিপুণভাবে গেঁথে দিয়েছেন, তাতে মুন্সিয়ানার পরিচয় পাওয়া যায়। তার চিন্তাধারার মধ্যে নাজিম হিকমত আর পাবলো নেরুদার বিশেষ মিল রয়েছে।
মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, মহান রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে কবি মাহবুব-উল আলম চৌধুরীর ভূমিকা ঐতিহাসিক এবং অবিস্মরণীয় হয়ে থাকবে। ভাষা আন্দোলনের পটভূমিতে লেখা তার কবিতা আজো আমাদের অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে উজ্জীবিত করে।
একাডেমি আয়োজিত চারজন ভাষা সংগ্রামীকে নিয়ে স্মরণ অনুষ্ঠানে আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রয়েছে ভাষা সংগ্রামী অজিত কুমার গুহ স্মারক বক্তৃতানুষ্ঠান। এতে বক্তৃতা প্রদান করবেন ভাষা সৈনিক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কামাল লোহানী। সভাপতিত্ব করবেন বাংলা একাডেমির সভাপতি ও জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। এ ছাড়া ২৬ সেপ্টেম্বর বুধবার রয়েছে ভাষা সংগ্রামী শহীদ ধীরেন্দ্র নাথ দত্ত এবং ২৭ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার ড. মুহম্মদ এনামুল হকের ওপর স্মারক বক্তৃতানুষ্ঠান।
বাসস/এইচএ/১৭১৫/-কেজিএ