তৈরি পোশাক রফতানির উৎসে করহার আরো কমলো : করপোরেট কর হার আগের মতোই

221

ঢাকা, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮(বাসস) : তৈরি পোশাক রফতানির উৎসে কর হার আরো কমানো হয়েছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দশমিক ৭০ শতাংশ হারে রফতানিকারকদের রফতানির বিপরীতে উৎসে কর দিতে হতো। চলতি অর্থবছরে সেটি কমিয়ে দশমিক ৬০ শতাংশ নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। একই সঙ্গে কর্পোরেট কর হার আগের মতোই রাখা হয়েছে।
এনবিআর সূত্র বলছে, আয়কর অধ্যাদেশের রফতানির উৎসে কর ১ শতাংশ নির্ধারণ করা আছে। প্রতিবছর বাজেটের পরে প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে এক বছরের জন্য কর কমানো হয়। ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার সময় রফতানির উৎসে করের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী ঘোষণা না দেয়ায় আইন অনুযায়ী করহার ১ শতাংশে উন্নীত হয়। এতে অসন্তোষ প্রকাশ করে রফতানিকারকরা সরকারের কাছে কর হার কমানোর দাবি করেন। এর প্রেক্ষিতে কর হার দশমিক ৬০ শতাংশ নির্ধারণ করে গত বুধবার প্রজ্ঞাপন জারি করে এনবিআর।
উল্লেখ্য, উৎসে কর আদায় করা হয় মোট রফতানি মূল্যের ওপর। কোন রফতানিকারক ১০০ টাকার পণ্য রফতানি করলে ৬০ পয়সা কর হিসেবে দিতে হয়। প্রতিবছর গড়ে আড়াই হাজার কোটি টাকা তৈরি পোশাক খাতের উৎসে কর হিসেবে আদায় করা হয়।২০১৪-১৫ অর্থবছরে উৎসে করহার দশমিক ৩০ শতাংশ ছিল। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বাজেটে তা দ্বিগুণ করে দশমিক ৬০ শতাংশ করা হয়। ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেটে উৎসে কর এক দশমিক ৫০ শতাংশ করার প্রস্তাব দেওয়া হলেও শেষ পর্যন্ত ৭০ পয়সায় নির্ধারণ করা হয়।একই হারে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে উৎসে কর দেন উদ্যোক্তারা।এবারের বাজেটেও উৎসে কর হার নির্ধারণ করায় দেয়ায় রফতানিকারকদের ১ শতাংশ হারে দিতে হচ্ছিল।
এদিকে তৈরি পোশাক খাতের করপোরেট করহার আগের অবস্থায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।গত বুধবার এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে রাজস্ব কর্তৃপক্ষ।
চলতি অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সাধারণ কারখানার করপোরেট কর ১৫ শতাংশ এবং পাবলিক লিমিটেড বা যৌথ মূলধনি কোম্পানির করহার সাড়ে ১২ শতাংশ করার প্রস্তাব দেন অর্থমন্ত্রী। বাজেটে এ প্রস্তাব পাস হয়। উভয় ক্ষেত্রেই গত অর্থবছর করহার ছিল ১২ শতাংশ। অন্যদিকে পরিবেশসম্মত এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত গ্রিন বিল্ডিং সার্টিফিকেটপ্রাপ্ত কারখানার করহার ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১২ শতাংশ করা হয়।এই করপোরেট করহার আগের মতই যথাক্রমে ১২ শতাংশ এবং ১০ শতাংশ করা হয়েছে।

image_printPrint