কিউবায় কাস্ত্রো পরিবারের বাইরে নেতৃত্ব : দিয়াজ-কানেলের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর

47
image_printPrint

হাভানা, ২০ এপ্রিল, ২০১৮ (বাসস) : কিউবার পার্লামেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ কানেলকে নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করায় বিগত ৬০ বছরের মধ্যে এই প্রথম নামের অংশ কাস্ত্রো নয় এমন কেউ এই ক্যারিবীয় দ্বীপ রাষ্ট্রটির প্রেসিডেন্ট পদে আসীন হলেন।
ক্ষমতা হস্তান্তরের অনুষ্ঠানটি রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।
প্র্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর প্রথম বক্তৃতায় দিয়াজ দেশকে ‘বিপ্লব’-এর পথে রাখার অঙ্গীকার করেছেন। তবে তিনি একই সাথে রাউল কাস্ত্রো সূচিত অর্থনৈতিক সংস্কার অব্যাহত রাখারও প্রতিশ্রুতি দেন।
রাউল কিউবায় ক্ষুদ্র বেসরকারি উদ্যোক্তাদের জন্য দ্বার উন্মুক্ত করেছিলেন।
দিয়াজ কানেল বলেন, ‘আমি দায়িত্ব নিয়েছি কাজ করতে, প্রতিশ্রুতি দিতে নয়।’
রাউল কাস্ত্রোর ঘনিষ্ট বা ডান হাত হিসেবে পরিচিত কিউবার কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষ নেতা রুপালি চুলের দিয়াজ কানেল ২০১৩ সাল থেকে প্রথম ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।
দিয়াজ কানেল ৮৬ বছর বয়সী রাউল কাস্ত্রোর কাছ থেকে ক্ষমতা গ্রহণ করেছেন। রাউল কাস্ত্রো ২০০৮ সালে তার ভাই এবং দেশটির ১৯৫৯ সালের বিপ্লবের নায়ক ফিদেল কাস্ত্রোর স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন।
রাউল কাস্ত্রো প্রেসিডেন্ট হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে কিউবার সম্পর্ক গড়ে তা এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করেছিলেন। তিনি দেশের ভেতরেও বেশ কিছু সংস্কার কার্যক্রম শুরু করেছিলেন।
বৃহস্পতিবার কিউবার পার্লামেন্ট আনুষ্ঠানিকভাবে নতুন প্রেসিডেন্টের নাম ঘোষণা করে।
রাউল কাস্ত্রো প্রেসিডেন্টের পদ ছাড়লেও আগামী ২০২১ সালে পরবর্তী কংগ্রেস পর্যন্ত তিনি কিউবার ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির প্রধানের পদে বহাল থাকবেন এবং তার প্রভাব আগের মতই থাকবে।
দিয়াজ তার বক্তৃতায় বলেন, দেশের বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য বড় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত এখনো কাস্ত্রোই নেবেন।
মিগুয়েল দিয়াজ কানেল ২০১৩ সালে কিউবার ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার আগ পর্যন্ত ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির রাজনীতিতে সামনের কাতারে থাকলেও নিজেকে সেভাবে প্রকাশ করতেন না। তবে তিনি প্রেসিডেন্ট রাউল কাস্ত্রোর খুবই কাছের মানুষ। শুক্রবার ৫৮ বছরে পা দেয়া মিগুয়েল দিয়াজ কানেল উদারপন্থী হিসেবেও পরিচিত।
তার জন্ম ১৯৬০ সালে। এর এক বছর আগে ফিদেল কাস্ত্রো প্রথমে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কিউবার ক্ষমতায় আসেন।
কিউবার নতুন নেতা মিগুয়েল দিয়াজ লেখাপড়া করেছেন ইলেক্ট্রেক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে।
বিশ বছর আগে ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির যুব সংগঠনের মাধ্যমে রাজনীতিতে আসেন।
ফিদেল কাস্ত্রোর নেতৃত্বে কিউবায় ১৯৫৯ সালে এক বিপ্লবের মাধ্যমে পশ্চিমা দুনিয়ায় কিউবাই প্রথম কমিউনিস্ট দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।
এরপর ফিদেল কাস্ত্রোর নেতৃত্বে কিউবায় একদলীয় শাসন চলতে থাকে। ফিদেল শারীরিক অসুস্থতার কারণে এক দশক আগে ছোট ভাই রাউল কাস্ত্রোর হাতে ক্ষমতা ছেড়ে দেন। এখন রাউল কাস্ত্রোও অবসরে গেলেন।
নেতৃত্ব কাস্ত্রে পরিবারের বাইরে গেলেও দেশটিতে বড় ধরনের কোন পরিবর্তন আসবে বলে মনে করছেন না বিশ্লেষকরা।